Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, ১১ শাবান ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

ইদলিবে অভিযান সময়ের ব্যাপার মাত্র : এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০৬ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, যদি দামেস্ক তুর্কি সামরিক অবস্থানগুলো থেকে সৈন্যবাহিনী প্রত্যাহার না করে তাহলে শিগগির সিরিয়ার ইদলিবে সামরিক অভিযান চালাবে আঙ্কারা। আর এই অভিযান পরিচালনা করা হবে চলতি মাসের শেষ দিকে। এরদোগান বলেন, ‘আলোচনা অব্যাহত থাকবে, তবে এটা সত্য যে আমরা আমাদের দাবি আলোচনার টেবিলে সমাধান করা থেকে অনেক দ‚রে। ‘তুরস্ক তার নিজস্ব কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছে।’ ‘আমরা যেকোনো মুহূর্তে অভিযান চালাতে পারি।’ ‘অন্য কথায়, ইদলিবে অভিযান সময়ের ব্যাপার মাত্র।’ এর আগেও এরদোগান বলেছিলেন, ইদলিব থেকে সিরীয় সৈন্যবাহিনী যদি প্রত্যাহার করা না হয় তাহলে তাদের হটাতে ফেব্রুয়ারির শেষ নাগাদ তুরস্ক সামরিক অভিযান পরিচালনা করতে পারে। বুধবার ক্ষমতাসীন একে পার্টির পার্লামেন্ট আইন প্রণেতাদের সাথে বৈঠককালে এরদোগান এ হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, ‘আমরা দিন গণনা করছি এবং এটি চূড়ান্ত হুঁশিয়ারি।’ উত্তর সিরিয়ায় তিনটি সীমান্তে তুরস্কের অভিযানের কথা উল্লেখ করে এরদোগান বলেন, আমাদের আগের অভিযানগুলোর মতোই এ অভিযান হঠাৎ এক রাতেই ঘটতে পারে। এরদোগান জোর দিয়ে বলেছেন, যেকোনো উপায়ে ইদলিবকে একটি সুরতি অঞ্চল হিসাবে গড়ে তুলতে তুরস্ক বদ্ধপরিকর। তিনি আরও উল্লেখ করেছেন যে, ইদলিবের পরিস্থিতি নিয়ে আঙ্কারা ও মস্কোর মধ্যে বেশ কয়েক দফায় আলোচনা হলেও কোনো ‘কাক্সিক্ষত ফলাফল’ আসেনি। এরদোগানের হুমকির প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেস্কভ সতর্ক বার্তা উচ্চারণ করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমরা যদি সিরিয়া প্রজাতন্ত্রের বৈধ কর্তৃপক্ষ এবং সিরিয়া প্রজাতন্ত্রের সশস্ত্র বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার কথা বলি; তবে অবশ্যই এটি সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি হবে।’ তবে পেস্কভ আরও যোগ করেছেন যে, বিদ্যমান চুক্তি অনুসারে আঙ্কারা ‘ইদলিবের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর’ বিরুদ্ধে কাজ করলে মস্কো আপত্তি করবেন না।’ উত্তেজনা যাতে আর বৃদ্ধি না পায় সে বিষয়ে তুরস্কের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন পেস্কভ।’ উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ার কয়েকটি বিদ্রোহী দলকে সমর্থন করছে আঙ্কারা। দু’সপ্তাহের ব্যবধানে ইদলিবে সিরীয় সৈন্যরা হামলা চালিয়ে তুরস্কের ১৩ জন সেনাসদস্যকে হত্যা করার পর থেকেই উত্তেজনা চরমে পৗঁছেছে। সম্প্রতি মস্কোর সহায়তায় আসাদের অনুগতবাহিনী সিরিয়ার শেষ বিদ্রোহী অবস্থানগুলোতে অভিযান চালানো শুরু করার পর এরদোগান এ হুঁশিয়ারি দিলেন। সিরিয়ার সরকারি সৈন্যরা এই অঞ্চলে আক্রমণ পুনরায় পরিচালিত করার পর থেকে প্রায় ৫ লাখ শিশুসহ তিন মাসেরও কম সময়ে প্রায় ৯ লাখ বেসামরিক লোক তাদের বাড়িঘর এবং আশ্রয় কেন্দ্র থেকে পালাতে বাধ্য হয়েছে। এদোগানের হুঁশিয়ারির এক দিন আগেই জাতিসঙ্ঘ ইদলিবে মানবিক পরিস্থিতি চ‚ড়ান্ত অবনতি হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে। জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার প্রধান জানিয়েছেন, এ বছর এই অঞ্চলে হামলায় প্রায় ৩০০ বেসামরিক মানুষ মারা গেছে। এদের মধ্যে সিরিয়া ও রাশিয়ান বাহিনীর হামলায় মারা গেছেন ৯৩ শতাংশ মানুষ। আল-জাজিরা।



 

Show all comments
  • Ahmed Ronju ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৪:০০ এএম says : 0
    go ahead
    Total Reply(0) Reply
  • MD Foysal Ahmed Raju ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৪:০১ এএম says : 0
    সিরিয়ার সেনাবাহিনি রাশিয়া আর ইরানের সাহায্য ছাড়া কিছুই না
    Total Reply(0) Reply
  • নাসিম ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৪:০৪ এএম says : 0
    যুদ্ধ নয় শান্তি চাই, মুসলিমদের নেতৃত্ব চাই
    Total Reply(0) Reply
  • কায়সার মুহম্মদ ফাহাদ ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৪:০৫ এএম says : 0
    সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে হুঙ্কার এরদোগান আপনাকে স্যালুট।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন