Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬, ০৭ শাবান ১৪৪১ হিজরী

চাবিকাঠি হতে পারে আফ্রিকান মাছ

মানুষের বার্ধক্য রোধ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০১ এএম

আফ্রিকান টার্কোয়েজ (ফিরোজা) কিলিফিশের গবেষণায় জৈবিক ঘটনার পেছনের গোপন রহস্য উদঘাটিত হয়েছে যা ভ্রুণের জীবন বিকাশে বিরতি দেয়। এটি এমন ফলাফল যা মানুষের বার্ধক্যে সম্ভাব্য প্রভাব ফেলে।
কিলিফিশের মতো প্রজাতিগুলি নিজেকে ডায়োপজ হিসাবে পরিচিত ‘স্থগিত অ্যানিমেশন’ অবস্থায় রাখে যা একটি ভ্রুণ হিসাবে কার্যকরভাবে জীবকে চরম পরিবেশে বাঁচতে সহায়তা করার জন্য বয়োঃবৃদ্ধির প্রক্রিয়াটি কার্যকরভাবে থামিয়ে দেয়।

একাডেমিক জার্নাল সায়েন্সে প্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে যে, ভ্রুণগুলি কোষের বৃদ্ধি এবং অঙ্গ বিকাশের মতো কাজগুলি ‘পরবর্তীকালে প্রাপ্তবয়স্কদের বৃদ্ধি, উর্বরতা এবং আয়ুষ্কালের জন্য কোনও বিনিময় প্রথা ছাড়াই’ মাস এবং এমনকি বছরের পর বছর ধরে ধরে রাখে। ডায়াপজের পিছনের ‘প্রক্রিয়াগুলি’ বোঝা বার্ধক্যজনিত রোগগুলির চিকিৎসা এবং এমনকি মানব অঙ্গ সংরক্ষণে সহায়তা করতে পারে।
প্রতিবেদনটির সহ-রচয়িতা স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনতত্ত¡বিদ অ্যান ব্রুনেট বলেছিলেন, ‘ঘড়ির বিরতি দেয়ার উপায়গুলি প্রকৃতি সনাক্ত করেছে’। গবেষণায় দেখা গেছে, আফ্রিকান টার্কোয়েজ (ফিরোজা) কিলিফিশে ভ্রুণের ডায়োপজের সময় কোষের বিস্তার এবং অঙ্গ বিকাশের সাথে জড়িত জিনগুলি বন্ধ থাকে।
গবেষণায় আবিষ্কৃত হয়, সিবিএক্স ৭ নামক একটি প্রোটিন ডায়োপজের সময় উৎপাদন বাড়তে দেখা যায়, জিন সুইচগুলি নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে। গবেষকরা বলেছেন, মানুষের মধ্যে এই প্রোটিনের হেরফের সম্ভব হয় এবং বার্ধক্যজনিত প্রক্রিয়া পরিবর্তনের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। সূত্র : ইন্ডিপেন্ডেন্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মানুষ

২৮ মার্চ, ২০২০
৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ