Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, ১১ শাবান ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

দিল্লিতে মসজিদে আগুন দেয় পুলিশ : ওয়াশিংটন পোস্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ২:১০ পিএম

গত রোববার বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরোধী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। তারপর থেকেই টানা কয়েকদিন ধরে সহিংসতায় উত্তাল হয়ে উঠেছে উত্তর-পূর্ব দিল্লির বিভিন্ন স্থান। বিক্ষোভ-সংঘাতে এখন পর্যন্ত ৩৪ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরও দুই শতাধিক মানুষ।

দিল্লিতে কমপক্ষে তিনটি মসজিদে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। অপরদিকে বহু বাড়ি-ঘর এবং দোকান-পাটেও হামলা ও আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে, দিল্লির সহিংসতায় দুর্বৃত্তদের সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সহিংসতা বন্ধের চেষ্টা না করে উন্মত্ত জনতার সঙ্গে যোগ দিয়ে জয় শ্রী রাম বলে স্লোগান দিচ্ছিল পুলিশ। একই সঙ্গে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়েছে তারা।

গত কয়েকদিন ধরে এই দাঙ্গা পরিস্থিতি চললেও এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অবশেষে বুধবার তিনি এ বিষয়ে বিবৃতিতে দিয়ে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান তিনি। লোকজনকে শান্তি ও ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রাখার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী মোদি।

মোদির রাজনৈতিক জীবনে এনিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটল। এর আগে ২০০২ সালে মোদি যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন সে সময় তিনদিন ধরে দাঙ্গা পরিস্থিতিতে এক হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারায়। নিহতদের অধিকাংশই ছিল মুসলিম। কিন্তু আদালত থেকে নিয়োগকৃত একটি প্যানেল সহিংসতায় সম্পৃক্ততার অভিযোগ থেকে মোদিকে নিস্তার দিয়েছিল।

গত বছরের ডিসেম্বরে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস করে মোদি সরকার। তারপর থেকেই এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাসের পর থেকেই মুসলিমদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল। সমালোচকদের দাবি, এই আইন ভারতের সংবিধানবিরোধী। এই আইনের কারণে মুসলিমরা আতঙ্কে আছেন যে, মোদির ভারতে তাদের হয়তো দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক হিসেবে দেখা হবে।

 

 



 

Show all comments
  • ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৩:৩২ পিএম says : 0
    আল্লাহর ঘর মসজিদে আগুন পবিত্র কোরানে আগুন মুসলমানদের হত্যা বাড়ি ঘরে আগুন লুটতরাজ গুজরাট হত্যার মতো দিল্লিতে এই ভয়াবহ হত‍্যাকান্ড লাখ লাখ মুসলিম দিশেহারা। আইন শৃংখলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে আন্তর্জাতিক গন মাধ্যমে সমালোচনা। আমরা জঘন্যতম ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানাতে সরকারের প্রতি আহবান করছি। আমরা আল্লাহর দরবারে ফরিযাদ করছি আল্লাহ্ আপনি জুলুম অত‍্যাচার নিপীড়ন হতে তাদের হেফাজত করুন। আপনার ঘর মসজিদ পবিত্র কোরআন অবমাননা কারীদের বিচার করুন। প্রকৃত মালিক আপনি আপনার বিচার হতে কোন রাজা বাদশাহ উজির নাজির অত‍্যাচারি শাসক রেহায় পাবে না। ইসলামের কঠিন সময়ে আল্লাহ্ আমাদের ঈমান আকিদা ইসলামের সঠিক পথে তাকার শক্তি ও সাহস দাও। আল্লাহ্ দুনিয়ার ক্ষনস্হায়ী জীবনের পকৃত সত্য বুঝার সবাই কে তৌফিক দাও। ভারতের মুসলিম ভাইদের শহীদি আর্তার মাগফেরাত কামনা। বাংলাদেশ শান্তি মমতার দেশ। এইদেশের মানুষ সব ধর্মের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ইসলাম শান্তির ধর্ম। আইন শৃংখলা বাহিনী রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ আইন প্রয়োগ প্রতিষ্ঠান সজাগ থাকবেন যাতে আমাদের দেশে বিশৃঙ্খলা না হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Imdadul Haque ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৮:১৪ পিএম says : 0
    হিন্দু ভাই দের বলছি মুসলিম দের মারতে এখন আর মায়া কান্না দেখাতে হয় না। আমরা আপনাদের মায়া কান্না চাই না। আল্লা যা ভাল মনে করবেন তা করবেন।আমেরিকা ও সমরথন করে
    Total Reply(0) Reply
  • আব্দুল্লাহ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ৯:২৭ পিএম says : 0
    দো’আ মুসলিম জাতির সবচেয়ে বড় অস্ত্র। সকল মুসলিম ভাইদের কাছে অনুরোধ -মহান আল্লাহর কাছে সকলেই দো’আ করুন, মহান আল্লাহ যেন মোদির হাত থেকে সকল মুসলিম ভাইদের হেফাযত করেন। -আমীন।
    Total Reply(0) Reply
  • জামসেদ ১ মার্চ, ২০২০, ১২:৫২ পিএম says : 0
    দিল্লিতে মসজিদে আগুন দেয় পুলিশ। সৌদি বাদশা দেখে, কিন্তু প্রতিবাদ করেনা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ