Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

হেলিকপ্টার রয়েছে ইউডাব্লিউএসএ’র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

মিয়ানমারের সবচেয়ে বড় জাতিগত সশস্ত্র সংগঠন ইউনাইটেড ওয়া স্টেট আর্মি (ইউডাব্লিউএসএ) বুধবার নিশ্চিত করেছে যে, তাদের কাছে একটি হেলিকপ্টার রয়েছে। দেশের বিদ্রোহী গ্রুপগুলোর মধ্যে তারাই প্রথম এই হেলিকপ্টারের মালিক হলো। ইউডাব্লিউএসএ’র এক মুখপাত্র বলেছেন যে, তাদের এই সা¤প্রতিক আকাশযানটি কোন সামরিক কাজে ব্যবহার করা হবে না। বরং শুধু ‘ব্যক্তিগত ও অবসরের কাজে’ এটাকে ব্যবহার করা হবে। চীনের কাছ থেকে তারা এই হেলিকপ্টারটি কিনেছে বলে জানা গেছে। ইউডাব্লিউএসএ’র জনসংযোগ কর্মকর্তা উ নাই রাং নিশ্চিত করেন যে,ইউডাব্লিউএসএ চার আসনের একটি হেলিকপ্টার কিনেছে। তিনি জানান যে, এটা গত বছর কেনা হয়েছে এবং এটার ব্যবহার অনেক দিন ধরেই করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ইউডাব্লিউএসএ’র এবারই প্রথমবারের মতো প্রাইভেট হেলিকপ্টার কিনলো। বুধবার তিন ইরাবতীকে বলেন, “এটা শুধু ব্যক্তিগত কাজে এবং অবসরে ব্যবহারের জন্য, অন্য কোন কাজের জন্য নয় এটা”। ইউডাব্লিউএসএ’র কাছে সামরিক হেলিকপ্টার রয়েছে বলে যে কথা বলা হচ্ছে, সেটাকে গুজব বলে উল্লেখ করেন তিনি। ইউডাব্লিউএসএ’র প্রায় ৩০,০০০ সেনা রয়েছে এবং ২০,০০০ সহযোগী সেনা রয়েছে। গত বছরের এপ্রিলে এক প্যারেডের সময় তারা তাদের আধুনিক সামরিক সরঞ্জামাদির প্রদর্শনী করে। হেলিকপ্টারের দাম কত, কোত্থেকে এটা কেনা হয়েছে এবং তাদের গ্রুপ সরকারকে এ জন্য কর দিয়েছে কি না, এ ধরণের প্রশ্নের জবাব দিতে অস্বীকার করেন উ নাই রাং। তবে, স্থানীয় সংবাদ স‚ত্রগুলো জানিয়েছে যে, হেলিকপ্টারটি চীনে তৈরি এবং ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে এটি কেনা হয়েছে। দুটো আর্থিক ও বিমান চলাচল ওয়েবসাইটের তথ্য মতে, মডেল অনুযায়ী চার আসনের হেলিকপ্টারের দাম আড়াই লাখ ডলার থেকে ১৭ লাখ ডলারের মধ্যে। কেন্দ্রীয় সরকারের মুখপাত্র উ জাউ তে ২১ ফেব্রুয়ারি প্রেসিডেন্ট ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে, মিয়ানমার সরকার ইটালিয় ব্র্যান্ডের একটি হেলিকপ্টার কিনবে যাতে প্রাকৃতিক বিপর্যয় পরবর্তীকালে জরুরি প্রয়োজনে মন্ত্রিসভার সদস্যটা এটা ব্যবহার করতে পারেন। দ্য ইরাবতী, এসএএম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমার


আরও
আরও পড়ুন