Inqilab Logo

বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ০৬ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

হোসনি মোবারকের উত্থান-পতনের বিস্ময়কর ইতিহাস

স্বচক্ষে দেখেছিলেন আনোয়ার সাদাতের হত্যাকাণ্ড

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ মার্চ, ২০২০, ১০:০২ পিএম | আপডেট : ১০:১০ পিএম, ৪ মার্চ, ২০২০

মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক ৯১ বছর বয়সে গত ২৫ ফেব্রুয়ারী মৃত্যুবরণ করেছেন। এক নাটকীয় ঘটনার মধ্য দিয়ে তিনি ক্ষমতায় এসেছিলেন এবং একইভাবে নাটকীয়ভাবেই তার অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটে। এরই মধ্যে তিনি কঠোরহস্তে দীর্ঘ ত্রিশটি বছর মিশরে রাজত্ব করেন,  যদিও অগণিত সমস্যা রেখে গিয়েছেন, যা এখন নীল উপত্যকার দেশ মিশরের জন্য চরম হুমকি।

আনোয়ার সাদাতের হত্যাকাণ্ডের প্রত্যক্ষদর্শী, মধ্যপ্রাচ্য বিশেষজ্ঞ সাংবাদিক ও তৎকালীন ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিনিধি ডেবিড ওটাওয়ের প্রতিবেদনে ওঠে এসেছে এসব তথ্য। উইলসন সেন্টারে প্রকাশিত তার রোমহর্ষক বর্ণনা সম্বলিত প্রতিবেদনটি ইনকিলাব পাঠকদের জন্য এখানে তুলে ধরা হলো। অনুবাদ করেছেন মোহাম্মদ আবদুল অদুদ।

১৯৮১ সালে ইসলামী উগ্রপন্থীদের দ্বারা রাষ্ট্রপতি আনোয়ার সাদাতকে হত্যা করার পরে মোবারক আরব বিশ্বের সর্বাধিক জনবহুল দেশটির রাষ্ট্রপতি হন।

১৯৭৩ সালের ৬ অক্টোবর আরব-ইস্রায়েলি যুদ্ধের বার্ষিকী উপলক্ষে কায়রোতে একটি সামরিক কুচকাওয়াজের সময় আনোয়ার সাদাতের হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছিল। আমি চার মাস আগে মধ্যপ্রাচ্যে ওয়াশিংটন পোস্টের জন্য রিপোর্টিং শুরু করতে সেখানে গিয়েছিলাম। মিলিটারি স্ট্যান্ডে তাঁর পঞ্চাশ গজেরও কম দূরে ছিল শত্রুরা। জিপটি মঞ্চের ঠিক সামনে এসে থামল এবং তার পিছনে এবং উপরে সাদাত বসে ছিলেন। খুনিরা একটি জিপ থেকে গুলি চালিয়ে আসছিল এবং গ্রেনেড হামলা করেছিল। (বিমানবাহিনীর মহড়া দেখছিলেন আনোয়ার)। ঘাতকরা জিপ থেকে লাফিয়ে উঠে স্ট্যান্ডের দিকে দৌড়ে যায় এবং তাদের চারপাশে বসে থাকা মিশরীয় কর্মকর্তাদের উপর একে ফোরটি সেভেন রাইফেল থেকে গুলি করে। তখন মিশরীয় কর্মকর্তাদের একজন ছিলেন সাদাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক।

ইসলামপন্থী সন্ত্রাসীরা গুলি চালালে আমি আতঙ্কিত হয়ে বসেছিলাম এবং আমার চোখের সামনে যা ঘটছিল তা রোমহর্ষক ও অবিশ্বাস্য মনে হয়েছিল। মিশরীয় এবং বিদেশী অতিথিরা সমাবেশের প্যান্ডেলে ছড়িয়ে পড়েন এবং আমার প্রথম ধারণা ছিল, গুলি খাওয়া থেকে বাঁচতে হলে দাঁড়িয়ে থাকার চেয়ে শুয়ে থাকা ভাল। আমি আবার পদদলিত হতে চাইনি, তাই দাঁড়িয়েই রইলাম।চোখের সামনে ঘটলো ঘটনাটি। সাদাত বেঁচে আছেন কি-না, তা দেখার জন্য আমি মঞ্চের কাছে দৌড়ে যাই। এত সংশয় তৈরি হয়েছিল যে, সাদাতকে দূরে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। কেবল তা আবিষ্কার করতেই আমি মঞ্চ থেকে নামতে পেরেছিলাম। আমরা জানতাম না, তিনি সেদিন বিকেলে মারা গেছেন, সম্ভবত হাসপাতালে যাওয়ার পথে।

মিশরীয় নিরাপত্তারক্ষীরা বন্দুকযুদ্ধ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য স্বল্প ব্যক্তিকে স্ট্যান্ডে নামিয়ে দিয়ে চেয়ার দ্বারা ঢেকে রেখেছিলেন। এক গাদা চেয়ারের ভিতর থেকে উঠে আসেন মোবারক, যিনি বেঁচে ছিলেন, আমি শুনেছিলাম তাঁর সামরিক কেপির টুপিটি ধুয়ে ফেলার পর এতে একটি বুলেট ছিদ্র ছিল। সেদিন সাদাতের সাথে মোবারক কতটা ঘনিষ্ঠভাবে মৃত্যুর কাছাকাছি গিয়েছিলেন, বিশ্বাসই করতে পারছি না যে, তিনি মিশরে শাসন করতে পারেন।

মোবারক বিমান বাহিনীর বিভিন্ন পদে পদে অধিনায়ক হওয়ার জন্য উত্থিত হয়েছিল, তবে তা অন্যথায় অজানা সত্তা। মিশরীয়রা যারা তাদের নেতাদের নিয়ে রসিকতা করতে পছন্দ করে তারা তাকে ফ্রেঞ্চ ভাষায় "লা ভ্যাচি কুই রিত" নামে অভিহিত করে। মিশরীয়রা "হাস্যোজ্জল গরু" নামেও অভিহিত করে সর্বত্র বিক্রি হয় এমন ফরাসি পনিরের গোল বাক্সগুলোর মত দেখতে। সাদাত হত্যার পিছনে বেশ কয়েকটি ইসলামী গোষ্ঠীতে নির্মূল করা ছাড়া মিশরের ভবিষ্যতের জন্য তাঁর কোনও এজেন্ডা বা দৃষ্টি ছিল না। এই কার্যক্রমে তিনি পুরোপুরি সফল হয়েছিলেন।

 ২০০৫ সালে রাষ্ট্রপতি জর্জ ডব্লু বুশের আশির্বাদে তার অর্ধমুক্ত সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানে পরাজিত না হওয়া পর্যন্ত গণতন্ত্রের প্রতি যে কোনও পদক্ষেপকে দমন করতে পুলিশ, রাষ্ট্রীয় কৌশল অবলম্বন করেছিলেন মোবারক।

চার বছর আমি কায়রোতে থাকাকালীন, মোবারক খুব সামান্য সংবাদ করেছিলেন, যখন লেবাননে ইস্রায়েলি আগ্রাসন (১৯৮২ সালের জুনে) বিশ্ব এবং আমেরিকান প্রচারমাধ্যমের দৃষ্টি নষ্ট করেছিল। মোবারক মাথা নীচু রেখে ইস্রায়েলের সাথে শান্তি বজায় রেখেছিলেন, যদিও তা শীতল ছিল। কিন্তু তিনি ক্রমবর্ধমান সামাজিক ও অর্থনৈতিক সমস্যাগুলোর দিকে মনোযোগ দেননি, যার জন্য মিশর ধীরে ধীরে ডুবেছে। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে জনসংখ্যা বিস্ফোরণ একটি বড় উদ্বেগ, এই বছর ১১ ই ফেব্রুয়ারি মিশরে দশ কোটিতম শিশুটি জন্মগ্রহণ করেছে এবং তিনি পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচি চালু করার চেষ্টা করেছিলেন যা, শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছিল।

মিশরীয় শিক্ষাব্যবস্থায় ইতিমধ্যে একটি বিপর্যয় ছিল, পিতামাতারা তাদের সন্তানদের যদি দেশের একটি উপচেপড়া বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে পরিণত করতে চান, তবে তারা ব্যক্তিগত শিক্ষার জন্য শিক্ষকদের বেতন দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। নীলনদের জীবনদানকারী জলের এক বিশাল বাঁধ দ্বারা হুমকি দেওয়া হয়েছিল, যা ইথিওপিয়া তার উৎস অনুসারে পরিকল্পনা করেছিল। তবে মোবারক আফ্রিকার সাথে মিশরের সম্পর্কের দিকে কোন মনোযোগ দেননি এবং ইথিওপিয়ার শাসকদের সাথে তার সম্পর্ক ১৯৯৫ সালের জুনে অ্যাডিস আবাবার পরিদর্শনকালে তাঁর চেষ্টা করার পরেও শীতল হয়ে ওঠে।

মোবারকের পতনটি তার ক্ষমতায় আরোহণের মতো নাটকীয় ফ্যাশন হিসাবে আসে, যদিও এটি কয়েক ঘন্টা না হয়ে আঠারো দিন সময় নেয়। এবার অবশ্য তিনি তাঁর নিজের মৃত্যুর কারণ হয়েছিলেন। তিনি অবসর নেওয়ার পরে তাঁর পুত্র গামালকে জুতো বর্জন করতে চেয়েছিলেন। তবে তার পিতার মতো গামাল অফিসার ছিলেন না এবং তাকে সামরিক বাহিনীতেও দেননি, যা সে ঘৃণা করতো। তার পরিবর্তে তিনি ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি করেছিলেন ২০১১ সালে পিতার পতনের পর নির্ধারিত নির্বাচনে জয়ের চেষ্টা করতে।

২৫ জানুয়ারী, ২০১১-এ যখন কায়রোতে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল, তিউনিসিয়ার রাষ্ট্রপতি জাইন আল-আবিদীন বেন আলী ইতিমধ্যে রাস্তায় বিক্ষোভের দ্বারা উত্থিত হলেও মুবারক হুমকিটিকে গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করেননি। তিনি তিউনিসিয়ার সামরিক বিবৃতি ছয় দিন পরে "জনগণের দাবির বৈধতা" স্বীকৃতি দিয়ে এবং "এই মহান ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শক্তি প্রয়োগ না করার প্রতিশ্রুতি" দিয়ে গুরুত্ব সহকারে নেননি। তাঁর পরামর্শদাতাদের একজন তাকে পদত্যাগ করতে ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছিলেন।  তাকে জানিয়েছিলেন যে, তিনি যদি তা না করেন, তবে তিনি ‘সিউজস্কু মুহুর্তের’ মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন। (নিকোলা সিউসেস্কু ছিলেন রোমানিয়ার সর্বশেষ কমিউনিস্ট নেতা, ১৯8৯ সালের অভ্যুত্থানে গুলি চালানো স্কোয়াড দ্বারা যার মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছিল)।

তবুও, মোবারক বিশ্বাস করেননি যে, তিনি বিপদে আছেন। কিন্তু মিলিটারি জোর দিয়েছিল সে ছিল এবং তাকে ১১ ই ফেব্রুয়ারি সকালে সশস্ত্র বাহিনীর সুপ্রিম কাউন্সিলের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বাধ্য করে, যা তাকে এবং তার পরিবারকে লোহিত সাগরের পাড়ে শর্ম-আল-শেকের তার বাড়িতে নিয়ে যায়। তার পর থেকে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে প্রাপ্ত অপরাধের জন্য একের পর এক বিচার হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত তিনি মৃত্যুদণ্ড থেকে রক্ষা পেয়ে অবশেষে কায়রো হাসপাতালে নিঃশব্দে মৃত্যুবরণ করেন।

তার প্রধান লিগ্যাসির একটিকে বিদ্বেষপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে। তিন দশক ধরে ক্ষমতায় ইসলামপন্থীদের উত্থানকে দমন করার পরে, তার অপসারণের পরের ঘটনাগুলো ২০১২ সালের জুনে মুসলিম ব্রাদারহুডের নেতা মোহাম্মদ মুরসির নির্বাচনের দিকে পরিচালিত করে। মুরসি মিশরের ৬ হাজার বছরের পুরানো ইতিহাসে প্রথম নির্বাচিত ইসলামপন্থী নেতা ছিলেন, কিন্তু ছিলেন সামরিক অভ্যুত্থানের দ্বারা বহিষ্কার, যা ব্রাদারহুডের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে একটি গণজাগরণ থেকে বৈধতার দাবি করেছিল। মিশর ১৯৮১ সালে সাদাতকে হত্যা করা এবং তার নিজের জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে ইসলামপন্থীদের নির্মূল করার জন্য মুবারক যে দৃঢ়তা দেখিয়েছেন, তার সাথে প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির দ্বারা তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ক্ষেত্রেও একই মিল রয়েছে।

 

মিশরের দীর্ঘতম, তবুও অপ্রাপ্ত এবং ৩০ বছর ধরে অপ্রতিরোধ্য শাসক হিসাবে  মোবারকের কাছে মিশরের চূড়ান্ত জনসংখ্যা ও অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার সর্বাধিক সুযোগ ছিল। তবে একজন সামরিক কর্মকর্তার ফ্যাশনে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং অস্থিরতা ও ইসলামী আন্দোলন দমন করার জন্য তিনি কঠোর আদেশের ব্যাপারে সিদ্ধহস্ত ছিলেন। সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিষয়ে মুবারক আন্তর্জাতিক পরামর্শদাতাদের, বিদেশি নেতৃবৃন্দ এবং অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞদের কাছে কেবল একটি টিন কানের প্রতিদান দিয়েছিলেন, বিভিন্ন সংস্কারের জন্য এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানানো হলেও তিনি ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করতেন।

শেষ অবধি, মোবারক ৩০ বছর স্থিতিশীল নীল উপত্যকার দেশটির জন্য ব্যয়বহুল প্রমাণিত। এখন তার সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সমস্যাগুলো মোকাবিলা করার জন্য ১০০ মিলিয়ন শক্তিশালী মানুষ লড়াই করে চলেছে। মিশরে এখন একটি গতিশীল এবং উদ্ভাবনী নেতৃত্বের খুবই প্রয়োজন, যা আরব বিশ্বের বৃহত্তম দেশটিকে সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের পথে পরিচালিত করতে পারে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিশর

১৩ মার্চ, ২০১৬

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ