Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, ১১ শাবান ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

‘তোমার দরজাও খোলো’: গ্রীসকে এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ মার্চ, ২০২০, ১০:০৪ পিএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, আমি ফোনে বলেছিলাম, হে গ্রীস, আমি তোমাকে ডাকছি, তোমার দরজা খুলে দাও এবং এই বোঝা থেকে মুক্তি পাও। তারা এটিকে খুলল.., তাদেরকে (শরনার্থীদের) ইউরোপের অন্য দেশে যেতে দাও।-হুররিয়াত
আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে হেলিক কংগ্রেস সেন্টারে অনুষ্ঠিত "তুরস্কের বীরাঙ্গনা নারীদের' অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
শহীদদের মা, স্ত্রী ও শিশুদের প্রতি তার ভালবাসা এবং শ্রদ্ধা জানিয়ে এরদোয়ান বলেন, আমি ৮ মার্চ, আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আমাদের দেশের এবং বিশ্বের সকল নারীকে অভিনন্দন জানাই। আমি আমাদের শহীদদের স্ত্রী ও সন্তানদের শ্রদ্ধা করি। আমাদের বিশ্বাস, একজন শহীদের মা, স্ত্রী এবং সন্তান হওয়া একটি বিশেষ মর্যাদা। একটি রাষ্ট্রে শহীদদের রেখে যাওয়া আমানতকে সর্বোত্তম উপায়ে সম্মান করা আমাদের দায়িত্ব।
শহীদরা তাদের রক্তে যে নামটির গোঁড়াপত্তন করেছিলেন, তার নাম স্বদেশ। যতক্ষণ পর‌্যন্ত আমাদের বীর শহীদদের কথা মনে থাকবে, ততক্ষণ কেউ আমাদের পতাকা নীচু করতে এবং আমাদের কন্ঠকে নিরব করতে পারবে না।
তুরস্কসহ আজ পৃথিবীর প্রতিটি দেশে ৮ মার্চ নারীর সমস্যা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হবে। আমি বলব, মানবতার অর্ধেক পুরুষ এবং অর্ধেক নারী। এগুলোর মধ্যে যদি আপনি কোনও একটিকে েবাদ দেন, সেখানে মানবতার কোনও চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যাযবে না।
সমস্ত নারীদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা আসলে সমস্ত মানবতার জন্য।পুরুষ হিসাবে আমরা যা কিছু প্রত্যাশা করি, আমাদের নারীদের জন্য একই অনুভূতি থাকতে হবে। নারীকে পণ্য হিসাবে দেখিয়ে, নিপীড়ন করে যে কোনও সমাজের ভবিষ্যত উজ্জ্বল হতে পারে না, আমাদের বিশ্বাস ও সংস্কৃতিতে একথায় কোনও দ্বিমত নেই।
নারীরা বাচ্চাদের নিয়ে প্রতিটি সঙ্কটের সময়ে সবচেয়ে বেশি কষ্ট ভোগ করে। মানবতা এক্ষেত্রে নীরব থাকে। ইউরোপের সীমান্তে থাকা শরণার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোগেন নারী ও শিশুরা।
মায়েরা এবং তাদের সন্তানেরা বেঁচে থাকার জন্য যে সংগ্রাম করছেন না কেন, গ্রীক সৈন্যরা তাদেরকে ফুলে ফেঁপে ওঠা শাসকের স্বার্থে পদদলিত করে।এই ছবিটি দেখে যাদের হৃদয় কাঁপছে না, তাদের মধ্যে মানবতা আছে কি-না, তাতে আমার সন্দেহ।
দুর্ভাগ্যক্রমে, কোনও দেশেরই এই বিষয়ে সংবেদনশীলতা নেই, যদিও সিরিয়ার ৯০ লাখ মানুষ বছরের পর বছর মানবিক সংকটে, লক্ষ লক্ষ লোকের প্রাণহানি ঘটেছে।
আপনি ৩ থেকে ৫ বছর বয়সী কুকুরছানা দেখতে পাচ্ছেন, তাই না? গ্রিসের সীমান্তে যাওয়ার পথে আপনি সম্ভবত দেখেছেন, কীভাবে শিশুটি মাঠে সীমান্তের দিকে হাঁটছে।
আমি এটা আমার নাতিকে দেখিয়েছি। বলেছি, তোমার মতো, ঝরঝরে, পাতা। বিশ্বাস করুন, তারা এমনকি তাদের বেয়নেট ব্যবহার করে। তাদের মধ্যে কোনও বিবেক নেই, তাদের মধ্যে মানবতার লেশ মাত্র নেই।

হে গ্রীস, এই লোকেরা আপনার সাথে থাকবে না। তারা এসে ইউরোপের অন্য দেশে যাবে, আমরা আপনাকে বলেছিলাম। যদি এভাবে চলে যায়, তবে আমরা দরজা খুলব বলে আপনারা এটি বিশ্বাস করেননি।

হে গ্রীস, আমি আপনাকে ডেকে বলছি, আপনার দরজা খুলুন এবং এই বোঝা থেকে মুক্তি নিন। সুতরাং যেহেতু খুলল, তাদেরকে ইউরোপের অন্যান্য দেশে যেতে দিন।এখন আমাদের দরজায় যে ১৫ লক্ষ মানুষ দাঁড়িয়েছিল, তাদের জন্য আমরা সাময়িক হলেও যুদ্ধবিরতিতে স্বাক্ষর করেছি। আমি আশা করি এটি এখানেই থাকবে। আমরা এখনই আছি, কুসংস্কার দিয়ে নয়। আমাদের এটি একবার আলাদা করতে হবে।
আমরা নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিয়েছি, যা আমরা আমাদের পারিবারিক কাঠামোর জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হিসাবে বিবেচনা করি। আমরা এদিকে আরও পদক্ষেপ নেব। আমাদের সমস্ত আইনটিতে, আমরা নারীদের অধিকার রক্ষার জন্য এবং বৈষম্যমূলক আচরণগুলো দূরীকরণের জন্য অত্যন্ত গুরুতর নিয়মকানুন সংযোজন করেছি।

কর্মশক্তিতে নারীর অংশগ্রহণের হার ২৭.৯ শতাংশ থেকে বেড়ে ৩৪.৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে এবং মোট কর্মসংস্থানে নারীর অনুপাত ২৫.৩ শতাংশ থেকে বেড়ে ২৮.৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। আমি সামগ্রিকভাবে পুরুষদের সঙ্গে নারীদের অগ্রযাত্রা শক্তিশালী তুরস্ক গঠনে সহায়ক হবে।

তিনি বলেন, আগামীকাল বেলজিয়ামে ইইউর সাথে আমার বৈঠক হচ্ছে। আমরা এই বিষয়গুলো সেখানে আলোচনা করব। আমি আশা করি যে আমরা বিভিন্ন ভালো ফলাফল নিয়ে ফিরব।আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করেছি। ইইউ তার প্রতিশ্রুতি পূর্ণ করেছে।
তিনি বলেন, আমাদের দেশে বিদেশীদেরকে তারা যেখানে যেতে চান সেখানে যাওয়ার সুযোগ দিয়েছি। গ্রিসের অমানবিক আচরণের বিরুদ্ধে কেউ আওয়াজ দিচ্ছে না, বরং তারা এর সমর্থন করেছে। তুরস্ক, এই নৃশংসতার বিরুদ্ধে সব আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মের মধ্যে এজেন্ডা আনবে এবং অত্যাচারিতদের অধিকার রক্ষার জন্য প্রচেষ্টা চালাবে। ১৫ লক্ষ বেসামরিক লোক আমাদের সীমান্তে পৌঁছানোর কারণে এবং ২৫ লক্ষ নাগরিক তাদের পিছনে অপেক্ষা করার কারণে, আমরা একটি নতুন বোঝার মুখোমুখি হয়েছি। আমাদের ইদলিবে আরও সক্রিয় অবস্থান নিতে হয়েছিল। আমরা কূটনৈতিক সমাধানের জন্য অনুসন্ধানকেও ত্বরান্বিত করেছি।
আমাদের একমাত্র লক্ষ্য দ্রুততম উপায়ে ইদলিবের মানবিক সংকট সমাধান করা। রাশিয়ার সাথে আমরা যে চুক্তি করেছি, তার পেছনে এরকম একটি পটভূমি রয়েছে। সিরিয়ায় মানবিক বিপর্যয় সমাধানের জন্য তুরস্কের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।



 

Show all comments
  • Monjur Rashed ৯ মার্চ, ২০২০, ১১:৫৯ এএম says : 0
    Dear President, you wanted to build castles in the air, but reality is that cunning people are sure to suffer in the long run.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন