Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১০ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

ভোটারের আগ্রহ কম

বগুড়া-১আসনে নির্বাচনী চালচিত্র

মহসিন রাজু | প্রকাশের সময় : ১৪ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

আগামী ২৯ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য বগুড়া-১ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে ভোট শান্তিপূর্ণ হবে কিনা তা’ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। পাশাপাশি নির্বাচনী প্রচারণার ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দলের বিপরীতে প্রধান প্রতিদ্ব›িদ্ব বিএনপিসহ অন্য প্রার্থীরা সমান ও স্বাভাবিক প্রচারণার সুযোগ পাবেন কিনা তা নিয়েও সৃষ্টি হচ্ছে বিভ্রান্তি। এছাড়া ভোটের দিনে ভোটার উপস্থিতি নিয়েও চলছে আলোচনা।
যমুনা ও বাঙালী নদী বিধৌত সোনাতলা ও সারিয়াকান্দি উপজেলা নিয়ে গঠিত বগুড়া-১ সংসদীয় আসনে ২০০৮, ২০১৪ ও সর্বশেষ ২০১৯ সালের নির্বাচনে ধারাবাহিকভাবে জয়লাভ করেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল মান্নান। এর আগে ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি দলীয় মনোনয়ন পেয়েও জিততে পারেননি। তবে একটানা ৬ বার মনোনয়ন পাওয়া আব্দুল মান্নান ১/১১ সরকারের সময়ের কিছু বিতর্কিত ভ‚মিকার কারণে যোগ্যতা সম্পন্ন এই নেতা দলের কেন্দ্রীয় কমিটি ও মন্ত্রীসভায় জায়গা করে নিতে পারেননি ।
চলতি বছরের শুরুতে তিনি আকস্মিকভাবে মারা গেলে আসনটি সাংবিধানিকভাবে শূন্য ঘোষিত হয় ও উপনির্বাচন অনিবার্য হয়ে ওঠে। ওই আসনে দলের মনোনয়ন দৌড়ে আওয়ামী লীগে অনেক যোগ্যতা সম্পন্ন নেতা মনোনয়ন চাইলেও দলের সিলেকশান বোর্ড দ্রুত আব্দুল মান্নানের বিধবা পত্মী ও সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নান শিল্পীকে মনোনয়ন দিতে দেরি করেনি। যে প্রেক্ষাপটে সাহাদারা মান্নান শিল্পী দলের মনোনয়ন পেয়েছেন, সেই প্রেক্ষাপটে বগুড়ার সচেতন রাজনীতিক মহলের ধারণা আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া আসনটি যাতে বিএনপির হাতে চলে না যায় সেজন্যে সর্বাত্মক প্রয়াস নেবে ক্ষমতাসীন দল।
বিএনপির একটি সূত্র ইনকিলাবকে নিশ্চিত করেছে, পরিস্থিতি বুঝেই এই উপনির্বাচনে বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়ী নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শোকরানা দল থেকে অনেক আগেই অব্যাহতি নিয়েছেন। আরেক ব্যবসায়ী এই আসনের সাবেক এমপি কাজী রফিকুল ইসলাম অযথা অর্থনাশ ও ব্যবসায়িক ঝুঁকির শঙ্কায় মনোনয়নই নিতে চাননি। ফলে সোনাতলা উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও নবগঠিত বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য এবং সোনাতলা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়ব জাকির সহজেই মনোনয়ন পেয়েছেন ।
বিএনপির নির্বাচনী প্রচারণার ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য পাওয়া না গেলেও সূত্র বলছে, বিএনপি কর্মীদের মাঠ ছাড়া করতে হয়তো অচিরেই পায়ে পা দিয়ে ক্যাচাল বাধানো হবে তারপর মামলা দিয়ে নেয়া হবে পুলিশী এ্যাকশান। আলামত হিসেবে বলা হয়েছে, ইতোমধ্যেই আওয়ামী লীগের একাধিক ইউনিয়ন ও গ্রাম অফিস ভাঙচুরের প্রচারণা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে চালানো হচ্ছে যা আগাম অশনি সংকেত ছাড়া কিছুই নয়।
এদিকে নির্বাচনী হলফনামার তথ্য মোতাবেক জানা যায়, নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলীয় এবং স্বতন্ত্র মিলে মোট ৬ জন প্রার্থীর মধ্যে ৩ জনই কোটিপতি বলে জানা গেছে। দাখিলকৃত হলফনামা মোতাবেক আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী সাহাদারা মান্নান শিল্পীর স্থাবর অস্থাবর সম্পদের আর্থিক মূল্য ৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। বিএনপি মনোনিত প্রার্থী আহসানুল তৈয়ব জাকিরের সম্পদ ২ কোটি টাকার। অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ইয়াসির রহমতুল্লাহর নগদ ব্যাংক জমা ও স্বর্নালংকার মিলিয়ে সম্পদের পরিমাণ কোটি টাকারও বেশি।
মাঠ পর্যায়ের ভোটার ও বিভিন্নদলের কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিদ্যমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি, অতি সাম্প্রতিককালের ভোটের সংষ্কৃতি এসব মিলিয়ে ভোট নিয়ে কোথাও উচ্ছাস বা উৎসাহ লক্ষ করা যাচ্ছে না।
উল্লেখ্য, চলতি বছরের শুরুতে বগুড়া সদরের উপনির্বাচনে মির্জা ফখরুলের ছেড়ে দেওয়া আসনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী জিএম সিরাজ বিজয়ী হলেও ওই নির্বাচনে মাত্র ৩৩ শতাংশ ভোট পড়ে। ওই নির্বাচনে ইভিএমে ভোট নেওয়া হলেও বগুড়া-১ আসনের নির্বাচন হচ্ছে ব্যালটে বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উপনির্বাচন

১৪ মার্চ, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন