Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০ আশ্বিন ১৪২৭, ০৭ সফর ১৪৪২ হিজরী

ইউপি সদস্যসহ ৫ জন কারাগারে

আড়াইহাজারে পুলিশ ও প্রবাসী হত্যা

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়ায় পুলিশের এসআই নাসির সিরাজী ও সউদী প্রবাসী রব মিয়া হত্যার পৃথক দুটি মামলায় পিতা-পুত্রসহ ৫ জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।
গত বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ ১ নম্বর জেলা ও দায়রা জজ শাহ মোহাম্মদ জাকির হাসানের আদালতে আত্মসমর্পণ করে তারা জামিন আবেদন করেছিলেন। আদালত শুনানি শেষে তাদের আবেদন নামঞ্জুর করেছেন।

আত্মসমর্পণকারীরা হলেন আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের কদমিরচর গ্রামের রোকন উদ্দিন ওরফে রুকু মেম্বার (৬০), তার ছেলে শফিকুল (২৭), একই এলাকার রব মিয়ার ছেলে আবুল (২৪) ও রুবেল (২৮) এবং পাশের এলাকা পূর্ব কান্দির চাঁন মিয়ার ছেলে শফিক (২৮)।

অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর জাসমীন আহমেদ জানান, ২০১১ সালের ১৭ জুন রাতে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের কদমীরচর গ্রাম থেকে আলম, আহসান উল্লাহ, শফিকুল ইসলাম ও ফিরুজ মিয়াকে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগে গ্রেফতার করে মেঘনা নদী দিয়ে ট্রলার যোগে খাকান্দা পুলিশ ফাড়িতে ফেরার পথে মাঝ নদীতে গ্রেফতারকৃতরা ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করে।

এসময় গ্রেফতারকৃতদের সহযোগিরা নদীর তীর থেকে এলোপাথাড়ি ঢিল ও টেটা ছুরে। তখন পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়ে ফাড়িতে চলে আসে। ফাড়ির ইনচার্জ নাসির সিরাজীকে খুঁজে পায়নি। পরদিন নদীতে তার লাশ ভেসে উঠে। এ ঘটনায় পুলিশের এসআই আহসান উল্লাহ বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় আত্মসমর্পণকারীরা চার্জশিটভুক্ত আসামি।

তিনি আরো জানান, ২০১৪ সালের ৮ ডিসেম্বর পূর্বকান্দি গ্রামে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১৫-২০টি বাড়ি ঘর ভাঙচুর করে রুকু মেম্বার ও তার লোকজন। ওই সময় বাধা দিলে সউদী প্রবাসী রব মিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করে। তখন আরো কয়েকজনকে কুপিয়ে তাদের বাড়ি ঘরে ব্যাপক লুটপাট চালানো হয়। এ ঘটনায় নিহত রব মিয়ার ভাই আম্বার মেম্বার বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়ের করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউপি-সদস্য
আরও পড়ুন