Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০২ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

দিল্লিতে তিন দিনে ১৪ মসজিদ পুড়িয়েছে হিন্দু দাঙ্গাবাজরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

উত্তর-প‚র্ব দিল্লিতে ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া দাঙ্গায় হিন্দুত্ববাদি দাঙ্গাবাজরা অন্তত ১৪টি মসজিদ ও একটি সুফি দরগাহ পুড়িয়ে দিয়েছে। কয়েকটি মসজিদের অবস্থা দেখে মনে হয় এগুলোর জানালা দিয়ে আগুনে বোমা ছুঁড়ে দেয়া হয়েছে। জানালাগুলোর কাঁচ ভেঙ্গে সেগুলো খোলা হয়েছে। বাকিগুলোর ভেতরে ঢুকে দাঙ্গাবাজরা আগুন লাগানোর আগে ভাঙচুর করে, কোরআন-কিতাব ছিঁড়ে ফেলে, আসববাপত্র ভাঙচুর, বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে ফেলা, যেগুলো ভাঙ্গা যায়নি সেগুলো দুমড়ে-মুচড়ে দেয়। যেসব মসজিদের ইমাম মুয়াজ্জিনরা সময়মতো পালাতে পারেননি, তাদের উপর রড, ব্যাটন নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে দাঙ্গাবাজরা। প্রকাশ্য দিনের বেলা বেশিরভাগ হামলা হয়েছে। কাছাকাছি বাস করেন এমন হিন্দু ও মুসলিম অধিবাসীরা বলেছেন যে দাঙ্গাবাজরা ‘জয় শ্রী রাম’ শ্লোগান দিতে দিতে মসজিদগুলোতে হামলা করে। দাঙ্গাবাজদের সংখ্যা একেক জায়গায় একেকরকম ছিলো। সামাজিক গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া কিছু ভিডিওতে দেখা যায়, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভাঙচুর চালানো ও অগ্নিসংযোগকারী দাঙ্গাবাজ সংখ্যা ২০-এর বেশি ছিলো না। মাত্র ১০ বর্গকিলোমিটার এলাকার মধ্যেই ১৪টি মসজিদ ও দরগাহটির অবস্থান। পাড়া-মহল্লাগুলোতে হিন্দু ও মুসলমান উভয় স¤প্রদায়ের বাস। এসব মসজিদের অনেকগুলো সেই ১৯৭০-এর দশকে তৈরি। মসজিদের কয়েকটি মহল্লার এত ভেতরে যে স্থানীয় লোকজনের সাহায্য ছাড়া এগুলো খুঁজে পাওয়া মুশকিল। যেখানে মুসজিদ পোড়ানো হয়েছে সেখানে মুসলমানদের বাড়িঘরও দাঙ্গাবাজদের হাত থেকে রেহাই পায়নি। বিস্ময়কর হলো যেসব এলাকায় হামলা হয়েছে সেখানকার ছোট বা বড় একটি হিন্দু মন্দিরও ভাঙচুর করা হয়নি। এখন চলছে ধ্বংসাবশেষ সরানো কাজ। কিন্তু এই ঘটনায় ন্যায়বিচার পাওয়া বহু দ‚রের পথ বলে মনে হচ্ছে। এখানে যে ছবিগুলো দেয় হয়েছে সেগুলো ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৭ মার্চের মধ্যে লেখকের নিজের তোলা। এগুলোতে বুঝা যায় কেমন নিয়মতান্ত্রিকভঅবে মসজিদগুলো ধ্বংস করা হয়েছে, যা ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার বড় প্রমাণ। স্ক্রল.ইন, এসএএম।



 

Show all comments
  • salman ১৫ মার্চ, ২০২০, ৫:১০ এএম says : 0
    Yeah Allah, Rabbul Alamin, TUME tomar CORONA virus deyee MURTI PUJARI MUDI, Amit Sah GONG & ........... Zati k DHONGSHO koray daw..ameen
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ