Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১২ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

ব্রিটেনে হিজাব নিয়ে সংগ্রামী এক মুসলিম নারীর অভিজ্ঞতা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ মার্চ, ২০২০, ১২:০১ এএম

সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে জোর করে হিজাব খোলানোর অভিযোগে পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করে জয় পেয়েছেন এক মুসলিম নারী। এ বিষয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তার সেই অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন তিনি। তার সেই অভিজ্ঞতা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-
২০০০ সালের সন্ত্রাসবাদ আইনের ৭ নম্বর ধারা ব্রিটিশ বিমানবন্দরে কর্মকর্তাদের ৬ ঘন্টা অবধি জিজ্ঞাসাবাদ, অনুসন্ধান এবং আটক করার ক্ষমতা দেয়। তারা চাইলে সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকার প্রমাণ ছাড়াই যে কারো ডিএনএ নমুনা, আঙুলের ছাপ এবং অন্যান্য তথ্য নিতে পারে।

২০১৮ সালের অক্টোবরে আমি আমার পরিবারের সাথে দেখা করতে বাহরাইন যাচ্ছিলাম, কিন্তু আমাকে হিথ্রোতে থামানো হয়েছিল। আমাকে অন্যান্যদের থেকে আলাদা করে দু’জন অপেক্ষারত পুলিশ অফিসার, যাদের একজন পুরুষ এবং একজন মহিলা, তাদের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। অফিসাররা তখন আমাকে জিজ্ঞাসাবাদের ঘরে নিয়ে যায়। আমি প্রবেশ করার সময় প্রথম যে জিনিসটি দেখলাম তা হ’ল মক্কার দিকে মুখ করে রাখা একটি জায়নামায।

পুলিশ মহিলাটি আমাকে বললেন, আমার ছবি তোলাতে হবে এবং এটি করার জন্য আমাকে হিজাব খুলে ফেলতে হবে। কিন্তু এটি অবমাননাকর এবং মানবাধিকারলঙ্ঘন বলে আমি প্রত্যাখ্যান করলাম। তারা জোর দিয়ে বলেছিল যে, এটি সনাক্তকরণের উদ্দেশ্যে করা হচ্ছে। আমি বলেছিলাম যে, আমার পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং ডেবিট কার্ড সহ আমার সমস্ত আইডি নথি ছিল; আমি কে, তা নিয়ে সন্দেহ নেই। পুলিশ মহিলা জবাব দিয়েছিলেন, ‘আপনার কানের অবস্থানটি আপনার মুখের উপর থাকতে পারে, কিংবা আপনার কোনও কান না থাকতে পারে, আপনি দেখতে কেমন তা আমরা জানি না।’

তিন ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন, কর্মকর্তারা তাদের বিরক্তি প্রদর্শন শুরু করে; তারা আমাকে গ্রেপ্তারের হুমকি দেয়। ধারা ৭ এর অধীনে আপনি আইনত পুলিশ অফিসারদের অনুরোধ মেনে চলতে বাধ্য। তা প্রত্যাখ্যান করলে সন্ত্রাসবাদের দোষী সাব্যস্ত হতে পারেন এবং ৬ মাস পর্যন্ত জেল হতে পারে। অবশেষে সুপারভাইজার অফিসার রুমে ঢুকলেন। তিনি বলেছিলেন যে, তার কর্মকর্তারা জোর করে আমার হিজাব সরিয়ে ফেলতে পারেন। শেষ পর্যন্ত, আমি হার মানতে বাধ্য হলাম। সেখান থেকে বের হয়ে আসার পর আমার মনে হলো যে, একজন মুসলিম ও একজন নারী হিসাবে আমি এই অন্যায় হতে দিতে পারি না। তাই আমি পুলিশকে আদালতে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম।

আমি এই ভিত্তিতে বিচারিক পর্যালোচনা চেয়েছিলাম যে, পুলিশের এই পদক্ষেপগুলি আমার ধর্মের স্বাধীনতার অধিকার, আমার সাথে বৈষম্যম‚লক আচরণ না করার অধিকার এবং আমার অধিকার সম্পর্কিত ইউরোপীয় কনভেনশনের অনুচ্ছেদ ৮, ৯ এবং ১৪ এর অধীনে আমার গোপনীয়তার অধিকারের লঙ্ঘন করেছে। আইনি চ্যালেঞ্জ কয়েক মাস সময় নিয়েছে। পুরো সময় জুড়ে, পুলিশ জোর দিয়েছিল যে তারা কোনও ভুল করেনি। কিন্তু এরপরে গত বছরের অক্টোবরে, আমরা আদালতে যাওয়ার ঠিক এক মাস পরে তারা স্বীকার করে নিয়েছিল যে, হিজাব অপসারণ করা আমার মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং সুতরাং, ছবি তোলা বেআইনী ছিল। তারা তাদের ডেটাবেস থেকে আমার তথ্য এবং ফটোগ্রাফগুলি মুছতে সম্মত হয়েছে এবং আমাকে ১৫ হাজার পাউন্ড ক্ষতিপূরণ দিয়েছে।

আমার বিজয়ের জন্য অনেকে আমাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন - তবে হিজাব পরা আমার অধিকার, আমি কখনই লড়াই করার চেষ্টা করিনি। তবুও, আমি সন্তুষ্ট যে অন্যরা লড়াইটি পরবর্তী স্তরে নিয়ে যাচ্ছে। সব দলের মুসলমান সংসদ সদস্যদের নিয়ে গঠিত সংগঠনটি বৈষম্যমূলক এই আইনের ব্যবহার বন্ধের জন্য সম্প্রতি হোম অফিসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়ে একটি আবেদন করেছে। সেখানে ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ স্বাক্ষর করেছেন। সূত্র : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট।



 

Show all comments
  • jack ali ২২ মার্চ, ২০২০, ১১:৪২ এএম says : 0
    In our Beloved country when practicing Muslim Women gather together to learn Qur'and and Hadith... our security agency arrest them accusing them they are planning terrorist attack.. May Allah Curse upon them-- Ameen
    Total Reply(0) Reply
  • এক পথিক ২২ মার্চ, ২০২০, ৯:৩৭ এএম says : 0
    বাংলাদেশে আইন প্রয়োগকারী ব্যক্তিদের কেউ এমনটি করলে সুবিচার পাওয়া যেত কি?
    Total Reply(0) Reply
  • gil ২২ মার্চ, ২০২০, ৬:০৮ পিএম says : 0
    Good we should always protest against discrimination otherwise those bully will harass more muslims. সবসময় প্রতিবাদ জানানো উচিত না হলে কাফেরদের সাহস বেরে যাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Yousuf ২২ মার্চ, ২০২০, ৭:০৪ পিএম says : 0
    Al Hamdulillah
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Yousuf ২২ মার্চ, ২০২০, ৭:০৪ পিএম says : 0
    Al Hamdulillah
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটেন

১৬ মার্চ, ২০২০
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ