Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১২ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

বিশ্বব্যাংক দিচ্ছে ৩৫০ মিলিয়ন ডলার

রোহিঙ্গা-স্থানীয়দের সহায়তা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০০ এএম

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে দেশটি থেকে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থী এবং সেখানকার স্থানীয়দের জন্য ৩৫০ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক। গতকাল বুধবার বিশ্বব্যাংকের এই ঋণ অনুমোদন দেওয়ার পর সংস্থাটির ঢাকা কার্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের দেয়া এসব অর্থ মূলত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ও হোস্ট কমিউনিটির স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়ন, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা কমানো, সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি, মৌলিক সেবা ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রকল্প পরিচালিত হবে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বিশ্বব্যাংকের সদর দপ্তর এই অনুদান অনুমোদন করেছে। এটি কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণ এবং রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং সামাজিক নিরাপত্তায় ব্যয় হবে।
বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ৩৫০ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে ১৫০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে রোহিঙ্গা এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং জেন্ডার ইস্যুতে। ১০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে সরাসরি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সাহায্যার্থে। এটি ব্যয় হবে পানি স্যানিটেশন এবং দুর্যোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন ধরনের অবকাঠামো নির্মাণে। বাকি ১০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে সরাসরি স্থানীয় জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে। সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ অনুদান ব্যয় হবে।
বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেমবন বলেন, ১১ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিমকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ মানবিক নেতৃত্বের এক বিরল নজির সৃষ্টি করেছে। কিন্তু, স্থানীয় জনগোষ্ঠীর প্রায় তিনগুণ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে কক্সবাজার জেলার সামগ্রিক পরিবেশ ও অবকাঠামো হুমকির মুখে পড়েছে। এই তহবিলের মাধ্যমে উভয়পক্ষের ক্ষতি কমিয়ে আনার চেষ্টা করতে হবে।
এছাড়া এই তহবিল প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি প্রশমন এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার বিভিন্ন খাতে ব্যবহার করা যাবে বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্বব্যাংক


আরও
আরও পড়ুন