Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১২ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

ত্রাণ বিতরণে গণজমায়েত বিপজ্জনক

১১ এপ্রিল পর্যন্ত গণপরিবহন বন্ধ সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০০ এএম

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে গিয়ে অধিকতর বিপজ্জনক পথ বেছে না নিই। কোনো অবস্থায় জমায়েত করা যাবে না। এ ব্যাপারে প্রশাসন, সেনবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাবসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যে দায়িত্ব পালন করছে তাদের সাহায্য করতে হবে। গতকাল শনিবার জাতীয় সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।
সেতুমন্ত্রী বলেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে জনস্বার্থের কথা বিবেচনা করে আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে, জরুরি সার্ভিসের জন্য পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জ্বালানি, পচনশীল দ্রব্য, ত্রাণবাহী গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। কিন্তু পণ্যবাহী পরিবহন ও ট্রাকে কোনোভাবেই যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। মন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে সংকটে থাকা নিম্ন আয়ের মানুষকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিতে গিয়ে গণজমায়েত সৃষ্টি হওয়াকে ‘বিপজ্জনক’ অভিহিত করে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছেন। সুদিনের প্রত্যাশায় সাময়িক কষ্ট ও ত্যাগ মেনে চলতে হবে। দেশবাসী যাতে নিজেদের ভালোর জন্য সুদিনের আশায় সাময়িক ত্যাগ স্বীকার করেন। সাধারণ ছুটির মধ্যে যানবাহনের ফিটনেস কিংবা ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে জরিমানা ছাড়া নির্ধারিত ফি ও কর দিয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত লাইসেন্স আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এ অবস্থা মেনে আমরা যদি এগিয়ে যাই হয়তো অচিরেই দেশের অবস্থা আরও ভালোর দিকে যাবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে নিয়ম-কানুন মেনে চললে অবশ্যই আমরা এই মহাসংকট থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারব। নিজেদের জীবন জানমাল রক্ষ করতে পারব। ওবায়দুল কাদের বলেন, সারাবিশ্বে করনো পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। এযাবৎ বিশ্বে ১১ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে। এযাবৎ ৫৭ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। আমাদের দেশ তুলনামূলকভাবে অনেক ভালো আছে। ইতালি, স্পেন, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্সের মতো দেশে যে ভয়াবহ অবস্থা সেই তুলনায় আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভালো আছি।
মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১টি নির্দেশনা মেনে আমরা সবাই এক যোগে সঙ্গবদ্ধভাবে এই অদৃশ্য শত্রুর মোকাবিলা করে চলছি। ঘরে আমরা সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে সুরক্ষিত থাকবো, বাইরে অদৃশ্য শক্তি করোনা এই অদৃশ্য শত্রুকে ঘরে ঘরে মোকাবিলা করতে হবে। ঘরে ঘরে সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে দুর্গ গড়ে তুলতে। কোনো অবস্থাতেই শঙ্কিত হওয়া চলবে না। আমাদের সকলকে সর্তক থাকতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করতে যেয়ে যেন অধিকতর জমায়েতের মতো বিপজ্জনক পথ বেছে না নিই। কোনো অবস্থাতেই জমায়েত করা যাবে না। এ ব্যাপারে প্রশাসন সেনাবাহিনী পুলিশ র‌্যাবসহ নিয়ন্ত্রককারী সংস্থাকে সাহায্য করতে হবে।
তিনি বলেন, দেশের জনগণ, যাত্রী সাধারণ, পরিবহন মালিক শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবগতির জন্য জানাচ্ছি ইতোপূর্বে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বর্ধিত করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় জন স্বার্থ বিবেচনায় আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সকল প্রকার যানবাহন চলাল বন্ধ রাখার অনুরোধ করছি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ