Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১০ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

টানা তৃতীয়বার পেটেন্ট কো-অপারেশন ট্রিটি সূচকের শীর্ষে হুয়াওয়ে

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ এপ্রিল, ২০২০, ৬:০১ পিএম

সারা বিশ্বের পেটেন্ট কর্পোরেশন আবেদনকারীদের মধ্যে টানা তৃতীয়বারের মতো শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে হুয়াওয়ে। সম্প্রতি ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিসের ‘পেটেন্ট কো-অপারেশন ট্রিটি সূচক ২০১৯’ প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, ২০১৭ সাল থেকে ২০১৯ পর্যন্ত টানা তিন বছর অত্যন্ত সফলভাবে সূচকের শীর্ষস্থানটি ধরে রেখেছে হুয়াওয়ে। এ নিয়ে মোট সাতবার ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিসের ‘পেটেন্ট কো-অপারেশন ট্রিটি সূচকে’র শীর্ষস্থান দখল করলো প্রতিষ্ঠানটি।

২০০৬ সালে প্রথমবারের মতো পেটেন্ট কো-অপারেশন ট্রিটির শীর্ষদেশগুলোর তালিকায় নিজের নাম লেখায় হুয়াওয়ে। সে বছর প্রতিষ্ঠানটির আবেদনের সংখ্যা ছিলো ৬১৭টি। এর দু’বছর বাদেই হুয়াওয়ে চলে যায় সবার শীর্ষে। এরপর কিছুটা পালাবদল হলেও ২০১৭ সাল থেকে টানা তৃতীয়বারের মতো শীর্ষ এই মুকুটটি ধরে রেখেছে হুয়াওয়ে। ২০১৯ সালে এক লাখ ৮১ হাজারেরও বেশি পেটেন্ট আবেদন গ্রহণ করেছে ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিস, যা ২০১৮ সালের তুলনায় প্রায় চার শতাংশ বেশি। এটি প্রতিষ্ঠানটির ইতিহাসে নতুন এক রেকর্ড। এক্ষেত্রে হুয়াওয়ে একাই আবেদন করেছে ৩ হাজার ৫২৪টি পেটেন্টের। এই দৌড়ে হুয়াওয়ের পরেই অবস্থান করছে স্যামসাং এবং এলজি। প্রতিষ্ঠান দু’টি যথাক্রমে ২ হাজার ৮৫৮ এবং ২ হাজার ৮১৭টি পেটেন্ট আবেদন করেছে। ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিসে আবেদনের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যহারে বৃদ্ধি পাবার পেছনে চীন, যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠানগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে।

ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিসের প্রধান বাণিজ্য বিশ্লেষক এইডেন কেনড্রিক বলেন, ২০১২ সাল থেকে ইউরোপীয় পেটেন্টের চাহিদা ক্রমেই বেড়েছে। গতবছর আমরা প্রায় ১ লাখ ৮১ হাজার ৪০৬টি পেটেন্ট আবেদন গ্রহণ করেছি, যা ২০১৮ সালের তুলনায় প্রায় ৪ শতাংশ বেশি। মোট আবেদনের প্রায় অর্ধেকই এসেছে ইউরোপের বিভিন্ন কোম্পানি থেকে। এর মধ্যে কেবল জার্মানি থেকেই আবেদন পড়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ। ইউরোপের বাইরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রায় এক চতুর্থাংশ আবেদন পড়েছে। এছাড়া আবেদনকারী অন্যান্য অঞ্চলের মধ্যে জাপান ১২ শতাংশ, চীন ৭ শতাংশ এবং দক্ষিণ কোরিয়া ৫ শতাংশ জায়গা দখল করেছে। আবেদনে সংখ্যা বৃদ্ধির হিসেবে দেখা যাচ্ছে, ইউরোপের কোম্পানিগুলো বেশ ভালমতোই এগোচ্ছে। কিন্তু এশিয়ার কোম্পানিগুলোই এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভালো করছে, বিশেষত: চীন ও দক্ষিণ কোরিয়ার ফার্মগুলো।”

ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিসের প্রধান অর্থনীতিবিদ ইয়ান মেনিরি বলেন, ডিজিটাল যোগাযোগকে আমরা প্রযুক্তিখাতের নতুন শীর্ষস্থানীয় ক্ষেত্র হিসেবে বিবেচনা করেছি, যেখানে ৫জি প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নতি দেখা যাচ্ছে। চীন, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপকে এই প্রযুক্তির উদ্ভবে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে দেখা গেছে। তারা প্রত্যেকেই এখাতের এক চতুর্থাংশ পেটেন্ট আবেদনের ভাগিদার।

মেনিরি আরো বলেন, “দ্রুততম অগ্রগতির হিসেবে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলো কম্পিউটার প্রযুক্তি। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ক্রমবর্ধমান গুরুত্বের কারণেই এটি ঘটেছে। এখাতে পড়া আবেদনগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো যন্ত্র প্রশিক্ষণ, উপাত্ত পুনরুদ্ধার, চিত্র উপাত্ত প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ধরণ চিহ্নিতকরণ। আবেদনগুলোর মধ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তির আধিপত্য ছিলো চোখে পড়ার মতো এবং এক্ষেত্রে হুয়াওয়ে সবার শীর্ষে অবস্থান করছে। তারপরেই ক্রমানুসমারে অবস্থান করছে স্যামসাং, এলজি, ইউনাইটেড টেকনোলজিস এবং সিমেনস।

একটি কেন্দ্রীয় এবং সমন্বিত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইউরোপীয় পেটেন্ট আবেদন খতিয়ে দেখার পাশাপাশি সারা বিশ্বের ৪৪টি দেশের উদ্ভাবক, গবেষক এবং কোম্পানির আবিষ্কার ও উদ্ভাবনের পেটেন্ট সংরক্ষণে কাজ করছে ইউরোপিয়ান পেটেন্ট অফিস (ইউপিও)। ১৯৭৩ সালে মাত্র ১৭টি রাষ্ট্রের স্বাক্ষরে পথচলা শুরু করা এই সংস্থাটির বর্তমান সদস্য সংখ্যা ৩৮টি। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৮টি রাষ্ট্র ছাড়াও নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড এবং তুরস্কের মতো দেশ বর্তমান এর সক্রিয় সদস্য।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হুয়াওয়ে


আরও
আরও পড়ুন