Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ১১ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

কেরানীগঞ্জের জিনজিরায় করোনায় আক্রান্ত রোগী সনাক্ত : চার হাজার পরিবার লকডাউন

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৫ এপ্রিল, ২০২০, ৮:৫৭ পিএম

ঢাকার কেরানীগঞ্জের জিনজিরায় প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগী সনাক্ত হওয়ায় চার হাজার পরিবার অধ্যুষিত মডেলটাউন এলাকাকে ১৪দিনের জন্য লকডাউন ঘোষনা করেছেন উপজেলা প্রশাসন। আজ রোবার বিকেল ৩টায়(৫এপ্রিল) কেরানীগঞ্জ রাজস্ব সার্কেল সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল এই লকডাউন ঘোষনা করার আদেশ দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেরানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মীর মোবারক হোসোইন,কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম।ওই মডেল টাউন আবাসিক এলাকায় ১৮০টি বাড়ি, ৪হাজার পরিবার সব মিলিয়ে সেখানে ২০হাজার লোকের বসবাস। এব্যাপারে কেরানীগঞ্জ রাজস্ব সার্কেল সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল জানান,জিনজিরা মডেল টাউন আবাসিক এলাকার ১নাম্বার রোডের ৭২নাম্বার বাড়ির ৯তলায় গোলাম মোস্তফা(৬৮) নামে এক ব্যবসায়ী তার পরিবার নিয়ে থাকেন। তিনি কয়েকদিন আগে ইবনেসিনা কেরানীগঞ্জ শাখা এবং জিনজিরা ডাযোগনেনিষ্টক সেন্টারে জ¦র,সর্দি ও কাশি নিয়ে চিকিৎসা করান। এখানে তার রোগ ভাল না হওয়ায় তিনি পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নমুনা সংগ্রহ পরীক্ষা করান। এতে সে করোনভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে রিপোর্টে ধরা পড়ে। তারা এই বিষয়টি আইইসিডিআরের মাধ্যমে জানতে পারেন। বর্তমানে সে রাজধানী ঢাকার কুয়েত-মৈত্রী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।এই ঘটনা জানার পরেই তারা মডেল টাউন আবাসিক এলাকায় এসে প্রথমে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির বসবাসের ৯তলা বাড়ির প্রধান ফটকে তালা বদ্ধ করে দেন। পরে পুরো মডের টাউন এলাকা ১৪দিনের লকডাউন ঘোষনা করে ওই আবাসিক এলাকার ৪টি প্রধান গেটে তালাবন্ধ করে দেন। তবে সে কিভাবে এই প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে সে ব্যাপারে কিছুই এই মুহুর্থে জানা যায়নি। এদিকে এখবরটি দ্রুত জিনজিরা ইউনিয়ন ও এর আশেপাশে ছড়িয়ে পড়লে মানুষের মাঝে চরম আতংক দেখা দেয়।

 



 

Show all comments
  • আব্দুস সালাম সনি ৬ এপ্রিল, ২০২০, ১২:০৭ এএম says : 0
    আমাদের বাড়ী থেকে ৩ কিঃমি এর মধ্য ঐ এলাকা আজকের এই ঘটনার জন্য আমাদের এলাকার অনেক দ্বায়িত্বশীলদের অবহেলা এখনো রয়েছে। মানুষ সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে বৈকাল বেলা পিকনিকের মতো ঘুরতে বের হয় এবং গল্প গুজবে রাস্তায় ব্যাস্ত থাকে। যাহা আমাদের জন্য অত্যান্ড ঝুকিপূর্ন বলে মনে করছি।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন