Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন সুপারিশ প্রণয়নের নির্দেশনা শিল্পমন্ত্রীর

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ এপ্রিল, ২০২০, ২:৩৩ পিএম
করোনা মহামারীর ফলে সৃষ্ট শিল্পখাতের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ সঠিকভাবে বাস্তবায়নের জন্য একটি কার্যকর সুপারিশমালা প্রণয়নের জন্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের  নির্দেশনা দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।
তিনি বলেন,  করোনা পরবর্তী সময়ে অতিক্ষুদ্র, কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাত কীভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারে, সে বিষয়ে এখনই একটি কার্যকর নীতিমালা ও সুপারিশ প্রণয়ন করতে হবে। এ লক্ষ্যে তিনি  শিল্প মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বিসিক, এসএমই ফাউন্ডেশন, এফবিসিসিআই, বিসিআই, নাসিব এবং ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প মালিক সমিতির প্রতিনিধির সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেন।
 
শিল্পমন্ত্রী সোমবার (১৩ এপ্রিল)  তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের যথাযথ ব্যবহার, মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পগুলো  দ্রুত বাস্তবায়ন এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে শিল্প মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করনীয় বিষয়ে এক অডিও বার্তায় এ দিকনির্দেশনা দেন।
 
অডিও বার্তায় শিল্পমন্ত্রী বলেন,  করোনার প্রভাবে তৃণমূল পর্যায়ে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্থ কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প-কারখানার সঠিক তালিকা প্রণয়ন করতে হবে । প্রণোদনার অর্থের যাতে কোনো ধরনের অপব্যবহার না হয় এবং প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্থরা যাতে এর সুফল পায় , সেজন্য  জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মনিটরিং কমিটি গঠনের  নির্দেশনা দেন তিনি।
 
এ সময় শিল্প সচিব মো. আবদুল হালিম শিল্পমন্ত্রীকে জানান, কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজর ২০ হাজার কোটি টাকা ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল যাতে সংশ্লিষ্ট শিল্প মালিকরা সঠিকভাবে ও সহজভাবে পান, সে লক্ষ্যে ইতিমধ্যে বিসিক, এসএমই ফাউন্ডেশন, নাসিব এবং বাংলাদেশ লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প মালিক সমিতির নিকট থেকে সুপারিশ সংগ্রহ করা হয়েছে।  এর এর ভিত্তিতে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা একটি প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। মন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে এগুলো যাচাই-বাছাই করে প্রস্তাবনা আকারে বাংলাদেশ ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও অর্থ বিভাগে প্রেরণ করা হবে। এসময় তিনি  রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানার শ্রমিকদের জন্য  পুনঃঅর্থায়ন পদ্ধতিতে  ঋণ হিসাবে ২ শতাংশ হারে শিল্প  উদ্যোক্তাদের জন্য  প্রধানমন্ত্রী  যে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন, তা  বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ব্যাংক জারিকৃত  বিভিন্ন নির্দেশনা ও সার্কুলার সম্পর্কে শিল্প মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে  সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িক সংগঠনকে অবহিত করা হয়েছে বলে জানান।
 
শিল্প সচিব জানান, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন কর্পোরেশনসমূহ যেন প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের সুবিধা গ্রহণ করতে পারে, সে লক্ষ্যে ইতোমধ্যে বাংলদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের প্রস্তাব অনুযায়ী ৫টি শিল্প প্রতিষ্ঠানকে ৯০ কোটি টাকা ঋণ প্রদানের জন্য  ৮ এপ্রিল ২০২০ অর্থবিভাগ ও বাংলাদেশ ব্যাংকে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে। মন্ত্রী বিষয়টি নিবিড়ভাবে তদারকির জন্য শিল্পসচিব কে নির্দেশনা দেন।
 
অডিও বার্তায় শিল্পমন্ত্রী বর্তমান পরিস্হিতিতে এসএমই উদ্যোক্তারা যাতে ই-কমার্স এর মাধ্যমে তাদের পণ্য বিক্রি করতে পারেন,  এসএমই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সে ধরনের উদ্যোগ উদ্যোগ নিতে ফাউন্ডেশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।  তিনি দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবজনিত পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিসিক শিল্পনগরীসমূহে পার্সোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্টস, স্যানিটাইজার, মাস্ক ও ঔষধ সামগ্রী, মেডিক্যাল অক্সিজেন, স্যালাইনের প্যাকেটসহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় উপকরণের প্যাকেট এবং ওষুধ উৎপাদন অব্যাহত রাখতে বিসিক কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। 
 শিল্পমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ৩১ দফা নির্দেশনা অনুসরণ করে সরকারি-বেসরকারি খাতে পরিচালিত উৎপাদনশীল শিল্পকারখানা সচল রাখতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন। একই সাথে তিনি জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিসিআইসির কারখানাগুলোতে সার উৎপাদন এবং জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় কৃষক পর্যায়ে সারের সরবরাহ নিশ্চিত করার তাগিদ দেন। তিনি পবিত্র রমজানকে সামনে রেখে ভোক্তা সাধারণের জন্য মানসম্মত পণ্য নিশ্চিত করতে বিএসটিআইকে নির্দেশনা দেন।
 
তিনি বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাব শুধু বাংলাদেশ নয়,  গোটা বিশ্বের অর্থনীতিকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে। সাহস, ধৈর্য ও পেশাদারিত্বের সাথে এর মোকাবেলা করতে হবে। তিনি করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও শিল্প মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিরবচ্ছিন্ন কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেন । করোনা পরিস্থিতি উত্তরণে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন , তাদেরকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পুরস্কৃত করা হবে বলে তিনি জানান।


 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ