Inqilab Logo

ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

‘ভারতকে বিশ্বাস করা যায় না’

পাক-ভারত সিরিজ নিয়ে পিসিবি চেয়ারম্যান

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৫১ পিএম

 

পাকিস্তান-ভারতের সাবেক ক্রিকেটারদের কথার যুদ্ধ থামছেই না। শুরু করেছিলেন সাবেক পাকিস্তানি ফাস্ট বোলার শোয়েব আখতার। নিজের ইউটিউব চ্যানেলে এক ভিডিও বার্তায় ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন করে করোনা তহবিল গঠনের প্রস্তাব দিয়েছিলেন শোয়েব। এরপর থেকেই সরব দুই দেশের সাবেক ক্রিকেটাররা। কপিল দেব তো শোয়েবের প্রস্তাবকে উড়িয়েই দিয়েছেন। এবার সুনীল গাভাস্কার রসিকতা করেই ওড়ালেন ভারত-পাকিস্তান সিরিজের যাবতীয় সম্ভাবনা।

তিনি নিজের মন্তব্য করেছেন সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক রমিজ রাজারই ইউটিউব চ্যানেলে। তার কথা খুব পরিষ্কার, ‘লাহোরে তুষারপাত হতে পারে, কিন্তু এ মুহ‚র্তে ভারত-পাকিস্তান সিরিজ হবে না। নিরপেক্ষ ভেন্যুতেও না। আইসিসি টুর্নামেন্টে দুই দেশের খেলা হবে। তবে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের কোনো সম্ভাবনাই নেই।’ গাভাস্কারের সঙ্গে এক মত রমিজও, ‘এখন পরিস্থিতি কঠিন। এখন তো সম্ভব না। তবে ক্রিকেট দেখার মজা কিন্তু এটাই। এই দুই দেশের খেলা হলে সব বন্ধ হয়ে যায়। এটাই তো ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হিসেবে গণ্য করা হয়।’

এই যখন অবস্থা ঠিক তখনই উত্তপ্ত এই আগুনে ঘি ঢেলে দিলেন এহসান মানি। বেশ আক্ষেপ করেই পিসিবি চেয়ারম্যান বলেছেন ‘ভারতকে বিশ্বাস করা যায় না’! বারবার প্রতিশ্রæতি দিয়েও রক্ষা না করায় ভারতের ওপর আর ভরসা করা যায় না, বলছেন মানি। পিসিবির নতুন টিভি স্বত্ব নিয়ে আলোচনাতেই এসেছে ভারতের সঙ্গে সিরিজের প্রসঙ্গ। আগের টিভি স্বত্বের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে কদিন আগে। নতুন চুক্তির ভাবনায় ভারতের বিপক্ষে সিরিজকে বিবেচনার বাইরে রেখেই এগোচ্ছে পিসিবি।

এমনিতে ক্রিকেট বিশ্বের আর সব দেশের বোর্ডের টিভি স্বত্বে আয়ের সবচেয়ে বড় উৎস ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। কিন্তু রাজনৈতিক বৈরিতায় দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ আছে এই দুই দেশের সিরিজ। ভারতীয় বোর্ড বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ক্রিকেট বোর্ড, তাদের তাই মাথাব্যথা সামান্যই। কিন্তু পিসিবির আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে ব্যাপক। গত চক্রেই ভারতের বিপক্ষে দুটি সিরিজ না হওয়ায় সম্ভাব্য ৮ কোটি মার্কিন ডলার আয় করতে পারেনি তারা।

ভারতীয় বোর্ড প্রতিশ্রুতি রক্ষা না করায় আইনী লড়াইয়েও গিয়েছিল পিসিবি। উল্টো সেখানেও তাদের গুনতে হয় মাশুল। আইনী লড়াইয়ে হেরে ভারতীয় বোর্ডকে জরিমানা দিতে হয়েছে ২০ লাখ ডলার। সব মিলিয়ে এখন আর ভারতের সঙ্গে খেলার আশাই করছে না পাকিস্তান, স্পষ্টই জানিয়েছেন পিসিবি চেয়ারম্যান, ‘অতীতে দুইবার, তিনবার তারা কথা দিয়েছে যে খেলবে, কিন্তু পরে সরে দাঁড়িয়েছেৃকাজেই তাদের বিশ্বাস করা যায় না। দৃশ্যমান কোনো ভবিষ্যতে তাদের সঙ্গে খেলা শুরু করা যাবে বলে তাদের ওপর ভরসা করতে পারছি না। খেলতে হলে হয়তো এশিয়া কাপ ও আইসিসি ইভেন্টে হবে। আমরা তো শুধু ক্রিকেটেই আগ্রহী এবং বরাবরই খেলা ও রাজনীতিকে আলাদা রেখেছি। কিন্তু ভারত তা করেনি। এবারও ব্যাপারটি একই।’

২০০৮ সালে মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকেই একরকম বন্ধ দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক লড়াই। দীর্ঘ প্রায় এক যুগে একটি দ্বিপাক্ষিক সিরিজই হয়েছে তাদের, ২০১২-১৩ মৌসুমে ভারতে সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে গিয়েছিল পাকিস্তান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পিসিবি-চেয়ারম্যান
আরও পড়ুন