Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

নোয়াখালী সদরের অশ্বদিয়ায় চাল আত্মসাতের গুজবে সংঘর্ষ, আহত ১০

নোয়াখালী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২০ এপ্রিল, ২০২০, ৯:১১ পিএম

নোয়াখালী সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নে জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত চাল আত্মসাতের গুজবে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ঘেরাও করে জেলেরা। পরে তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে চেয়ারম্যানের সমর্থকদের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। এসময় হামলাকারীরা ইউপি কার্যালয় থেকে প্রায় ৫’শ ত্রাণের প্যাকেট লুট করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন চেয়ারম্যান।

সোমবার দুপুরে অশ্বদিয়া ইউনিয়ন কার্যালয় প্রাঙ্গনে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতরা হচ্ছেন, জবি উল্ল্যাহ, সালা উদ্দিন, সহিদ উল্ল্যাহ, হারুন, সেলিমসহ উভয় পক্ষের ১০জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় জেলেদের জন্য ৪০ কেজি করে দুই মাসে ৮০ কেজি চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। অশ্বদিয়া ইউনিয়নে ১৬০ জন জেলেকে এ ত্রাণের আওতায় আনা হয়। ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের বরাদ্দ না পেয়ে সোমবার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে এসে অবস্থান নেয় জেলেরা। এ সময় চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন বাবলু পরিষদ থেকে বের হলে তাকে ঘেরাও করার চেষ্টা করে জেলেরা। এর মধ্যে চেয়াম্যানের এক সমর্থকে ধাক্কা দিয়ে পেলে দেয় জেলেদের ভিতর থেকে একজন। এনিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

অশ্বদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন বাবলু জানান, জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের চাল আমরা এখনো উত্তোলন করিনি। এ পর্যন্ত ইউনিয়ন পরিষদ হটলাইন ও বিভিন্ন মাধ্যমে হতদরিদ্র, মধ্যবিত্ত ও জেলে পাড়ায় অন্তত ১৩’শ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, তিনজন ইউপি সদস্য (মেম্বার) জেলেদের মিথ্যা তথ্য ও উসকানি দিয়ে পরিকল্পিতভাবে এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। জেলেদের ভিতর থেকে ওই ইউপি সদস্যদের মধ্যে একজন আমার এক কর্মীর ওপর অর্তকিত হামলা করলে এ বিশৃঙ্খলা শুরু হয়। এসময় গ্রাম পুলিশের সদস্যরা আমাকে নিরাপত্তা দিয়ে কার্যালয়ের ভিতরে নিয়ে যায়। হামলার সময় ইউপি কার্যালয় থেকে হতদরিদ্রদের জন্য প্যাক করা প্রায় ৫’শ প্যাকেট ত্রাণ তারা লুট করে নিয়ে গেছে। ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবী করেন তিনি।
সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মো. আবদুর রহিম বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। পুলিশ আসার আগে কিছু অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। পরবর্তীতে ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সালা উদ্দিন বলেন, অশ্বদিয়া ইউনিয়নের জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের চাল এখনো উত্তোলন করা হয়নি। ওই ইউনিয়নে প্রায় ৮’শ জেলে রয়েছে। চাল বরাদ্দ হয়েছে প্রায় ১৫০জনের জন্য।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফুল ইসলাম সরদার জানান, অশ্বদিয়া ইউনিয়নে জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত চাল এখনো উত্তোলন করা হয়নি। চাল আত্মসাৎ এর গুজবে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। আগামী ২-৩দিনের মধ্যে চাল উত্তোলন করে জেলেদের মধ্যে বিতরণ করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গুজব


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ