Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

টঙ্গীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে মাদরাসা ছাত্রকে তুলে নেয়ার অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

৫ দিনেও সন্ধান নেই
টঙ্গী সংবাদদাতা : টঙ্গীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেয়ার ৫ দিন পরও মাদ্রাসাছাত্রের কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ছাত্রের নাম নাজমুস সাকিব (২২)। তিনি এ বছর যশোর আমিনিয়া আলিয়া কামিল মাদ্রাসার ফাজিল পরীক্ষার্থী। গত ১০ জুলাই তিনি টঙ্গীর আউচপাড়ায় বড় বোনের বাসায় বেড়াতে আসেন।
সাকিবের বড় বোন শামীমা আক্তার টঙ্গী প্রেস ক্লাবে এসে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, গত ১০ জুলাই সাকিব তার বাসায় বেড়াতে আসেন। গত ১৪ জুলাই ভোর সাড়ে ৪টায় ফজরের নামাজ আদায় করতে বাসার পাশের মসজিদে যান। এরপর আর ফিরে আসেনি। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে শামীমা আরো জানান, সাকিব বাসা থেকে বের হওয়ার আগে ওই এলাকায় সাদা পোশাকের ডিবি পুলিশ ঘোরাঘুরি করছিল। মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে বাসায় ফেরার পথে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে একটি সাদা রঙের মাইক্রোবাসে তাকে তোলা হয়। এরপর ওই গাড়িটি স্থানীয় এশিয়া পেট্রলপাম্পের সামনে কিছুক্ষণ অবস্থান করার পর ঢাকার দিকে চলে যায়। তারা এ ব্যাপারে গাজীপুর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের কার্যালয়সহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাজীপুর ও ঢাকার বিভিন্ন ইউনিট ও দপ্তরে যোগাযোগ করেন। কিন্তু কেউ সাকিবকে আটকের দায় স্বীকার করেনি। এ ব্যাপারে শামীমা গত ১৫ জুলাই টঙ্গী মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি নং-৬৩৭ করেন।
নাজমুস সাকিব ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ থানার সাইকবাড়িয়া গ্রামের আকরাম হোসেনের ছেলে। তিনি যশোর কোতোয়ালি থানার বারান্দিপাড়ায় ভগ্নিপতি মাহবুব হাসানের বাড়িতে থেকে আমিনিয়া আলিয়া কামিল মাদ্রাসায় ফাজিল (স্নাতক) শ্রেণীতে পড়েন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: টঙ্গীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে মাদরাসা ছাত্রকে তুলে নেয়ার অভিযোগ
আরও পড়ুন