Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৯ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

পোশাক কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত হয়নি : বিজিএমইএ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ এপ্রিল, ২০২০, ১০:৩২ এএম

গার্মেন্ট খোলার সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছে পোশাক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ)। তাই ক‌রোনার এই প্রাদুর্ভাবে গ্রাম থে‌কে শ্রমিকদের ফি‌রি‌য়ে না আনার অনুরোধ ক‌রে‌ছে সংগঠনটি।

গতকাল শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) রাতে বিজিএমইএর ওয়েবসাইটে সদস্য‌দের উদ্দেশে এক বার্তায় এ তথ্য জানি‌য়ে‌ছে সংগঠন‌টি। বিজিএমইএর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, অর্থনীতি‌কে চলমান রাখতে সার্বিক পরিস্থিত বিবেচনায় পোশাক কারখানা খোলা রাখার নির্দেশনা দে‌বে বিজিএমইএ। সেই নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত যেসব শ্রমিক গ্রামে আছে, তাদের ঢাকায় আসতে না বলার জন্য অনুরোধ করা হলো।

পর্যায়ক্রমে এলাকাভিত্তিক পোশাক কারখানা খোলার নির্দেশনা দেয়া হবে জা‌নি‌য়ে বিজিএমইএ বল‌ছে, শুরু‌তে কারখানা সীমিত আকারে খোলা রাখা যাবে। ফলে প্রথম ধাপে কারখানার আশপাশে যেসব শ্রমিক থাকে, তাদেরই কাজে যোগদান করতে বলা যাবে। মানবিক দৃষ্টিকোণ বিবেচনায় কোনো শ্রমিক ছাঁটাই না করার অনুরোধ করে‌ছে পোশাক মা‌লিক‌দের সংগঠন‌টি। এছাড়া বিরূপ পরিস্থিতিতে শ্রমিকদের ঢাকায় নিয়ে আসা হলে বিজিএমইএর পক্ষ থে‌কে কোনো সহায়তা করা হ‌বে না ব‌লে জানা‌নো হ‌য়ে‌ছে।



 

Show all comments
  • Md Hasab ২৫ এপ্রিল, ২০২০, ১১:৫৬ এএম says : 0
    সরকার যদি স্কুল কলেজ ও সরকারি যত অফিস বন্ধ রাখতে পারে। তবে কেন বিজিইএম গার্মেন্টস বন্ধ রাখেত পারবে না এখন যে দেশের অবস্হা। নামাজ পডতে মসজিদে যাওয়া যাবে না। মসজিদে যদি করোনার ঝুকি থাকে তবে গার্মেন্টস এ কি ঝুকি নাই মসজিদে নামাজ হয় মাত্র ১০মিনিট সেখানে করোনার ঝুকি।আর গার্মেন্টস এ থাকতে হবে ৮-১০ ঘন্টা সেখানে কি করোনা ঝুকি নাই
    Total Reply(0) Reply
  • মো: নাছির ২৫ এপ্রিল, ২০২০, ১০:৩৫ পিএম says : 0
    জেখানে সারা বিসো করুনা আক রাত্ন সরকরি অদুধ থাকে থাকে সেসেখানে তো করনা একান্ত ঝুঁকি বেশি সেখানে তো করনা একান্ত ঝুঁকি বেশি কেননা সেখানেবিজিএমইএ বিকেএমইএ কাছে অনুরোধ সরকারি ছুটির আদেশ গার্মেন্টস বন্ধ থাকা উচিত বিজিএমইএ বিকেএমইএ কাছে অনুরোধ সরকারি ছুটির আদেশ গার্মেন্টস বন্ধ থাকা উচিত
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আল-আমীন আহমেদ ২৬ এপ্রিল, ২০২০, ১:৪৭ পিএম says : 0
    একদিকে বলছে গ্রামে যারা আছে তাদেরকে না আনার অনুরোধ করছে বিজিএমই, আর অন্য দিকে কারখানা থেকে গত দুদিন আগে থেকে ২০-২৫ টা ফোন দিয়ে বলছে যাওয়ার জন্য,না হয় তো চাকরি ছাড়ার জন্য বলছে,তো আমার বিজিএমইএ সভাপতির কাছে একটাই প্রশ্ন যে সারাবিশ্বে এই কোরোনা আক্রান্তের মাঝে আপনার মতে কিভাবে গার্মেন্টস খোলার সিদ্ধান্ত নিলেন আবার এটাই বলছেন যারা গ্রামে আছে তাদের গ্রামে থাকার অনুরোধ করছেন,গ্রামে বসে থাকলে কি আপনি আমাদের চাকরী বাচাবেন নাকি আপনি নিজেই আমাদের বেতন দিবেন?? কত মায়ের ছেলে মেয়েরা এই শিল্পপ্রতিষ্ঠান গুলোতে কাজ করে অন্তত তাদের মা বাবার মুখের দিকে তাকিয়ে আপনার সিদ্ধান্ত টা নিন, সন্তান বাচলে একদিন টাকা আসবেই, জানিনা আপনার সন্তান আছে নাকি কিন্তু আপনার সন্তান যদি আজকে এই বিপর্যয়ে দাড়াত তখন হয়তো আপনি এমনটা ভাবতেন না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিজিএমইএ

২৩ জানুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ