Inqilab Logo

শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৭ কার্তিক ১৪২৮, ১৫ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

বৃস্টিতে ভাসছে খুলনাঞ্চলের কৃষকের ধান

খুলনা ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৮ এপ্রিল, ২০২০, ৬:০৮ পিএম

খুলনায় টানা চার দিনের প্রবল বর্ষণে কৃষকের ধান নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি বিছালিতেও (ধান গাছ-গরুর খাবার) পঁচন ধরতে শুরু করেছে। ফলে একদিকে, কৃষক পরিবার ও গবাদি পশুর খাবারেরও সংকটের আশংকা দেখা দিয়েছে। এতে করে আশা-নিরাশার দোলাচলে চোখে অন্ধকার দেখতে শুরু করেছে খুলনার চাষিরা।
সূত্র মতে, খুলনা অঞ্চলের মাঠে কৃষকের স্বপ্নের সোনালী বোরো ধান কাটার উৎসব চলছে। কিন্তু করোনা সংক্রমণ রোধে গৃহবন্দী থাকায় রয়েছে কৃষি শ্রমিক সংকট। তার মধ্যে বাঁধ সেধেছে বৈশাখের বৈরী আবহাওয়া। কৃষক বোরো কেটে কিছুটা রস টানার (শুকানো) জন্য মাঠেই রেখে দেন ধান। অধিকাংশ কৃষকই ধান ঘরে তুলতে পারেননি। কিন্তু এরই মধ্যে গত ৪/৫ দিনের প্রবল বর্ষণে জমিতে পানি জমে যাওয়ায় ধানও ভাসতে শুরু করেছে। এতে কাঁদা মিশে ধান ঝরে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গরুর খাবার হিসেবে ব্যবহৃত খড়-কুটোও (বিছালি) পঁচতে শুরু করেছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, অতি বর্ষণে খুলনার শস্য ভান্ডার খ্যাত ডুমুরিয়া উপজেলার বেশিরভাগ জমিতে পানি জমে গেছে। এতে এ উপজেলার অধিকাংশ কৃষকই ক্ষতির আশংকায় ক্ষণ গুণছেন। বিশেষ করে এ উপজেলার সিংগাইর (সিঙ্গের বিল), বানিয়াখালি বিল, খলশির বিল, বামনদিয়ার বিল ও গোনালির বিলসহ অধিকাংশ বিলই পানিতে থৈ থৈ করছে। বৃস্টির এ পানিতে কৃষকের স্বপ্নও ভাসছে।
উপজেলার টিপনা গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মো. জামাল গাজী বলেন, ৩৫ হাজার টাকা ব্যয়ে অনেক স্বপ্ন নিয়ে ১একর ২০ শতক জমিতে বোরো রোপন করেছিলাম। ফলনও হয়েছিল ভালো। বৃহস্পতিবার ৮-১০জন লেবার নিয়ে পুরো জমির ধান কেটে জমিতে রেখে দেই। দু’দিন রৌদ পেলে একটু রস টানলে ঘরে তোলার প্রস্তুতি ছিল। কিন্তু অতিরিক্ত বৃস্টিতে গাছসহ ধান ভেসে উঠেছে। এতে ধান ও বিছালি নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ২/১ দিনের মধ্যে তুলতে না পারলে এ ধান আর গোলায় উঠানো সম্ভব হবে না।
খুলনা কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পংকজ কান্তি মজুমদার বলেন, খুলনায় ৫৭ হাজার ৫৪০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। ২ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। গত বছর ৫৯ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো উৎপাদন হয়েছিল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন