Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭, ০৬ সফর ১৪৪২ হিজরী

সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে গার্মেন্টস

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ মে, ২০২০, ১২:০৬ এএম

তৈরি পোশাকের বিশ্ববাজার ধরে রাখতে করোনাভাইরাস ঝুকির মধ্যেই ঢাকা, গাজীপুর, সাভার, নারায়ণঞ্জজের কয়েক হাজার গ্রার্মেন্টস চালু করা হয়েছে। গত বুধবার হাজার হাজার পোশাক শ্রমিক কাজে যোগদান করেছেন। এতে করে দ্রুত করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পরার আশংকা বেড়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, অন্তত আরো ১৫ দিন কঠোর লকডাউন কার্যকর করা উচিত ছিল।

জানা যায়, সারাদেশের সাত হাজার ৬০২টি পোশাক কারখানার মধ্যে গত বুধবার কাজ শুরু করে দুই হাজার ৩৫৬টি। শিল্প পুলিশ জানায়, এর মধ্যে ঢাকার ৪৪৩টি, গাজীপুরে ৬৩৮টি, চট্টগ্রামে ৬০৫টি, নারায়ণগঞ্জে ৩০১টি, ময়মনসিংহে ৮০টি এবং খুলনার ২৮৯টি কারখানা চালু হয়। গতকাল গার্মেন্টস চালুর এই সংখ্যা প্রায় দ্বিগুন হয়ে গেছে। আগামী কাল ২ মে সবগুলো গার্মেন্টস চালু করার কথা রয়েছে। গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, তৈরি পোশাকশিল্পের আন্তর্জাতিক বাজার হাতছাড়া হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হওয়ায় ঢাকার আশপাশের গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিগুলো সীমিত আকারে চালু করা হয়েছে।

প্রথমে বলা হয়, করোনার মধ্যে বিদেশের অর্ডারের মালামাল দেয়ার জন্য গার্মেন্টস পর্যায়ক্রমে চালু করা হচ্ছে। পুনরায় কার্যক্রম শুরু করার অনুমতি পাওয়া গার্মেন্টস কারখানাগুলো চলবে ঢাকায় থাকা শ্রমিকদের নিয়ে। বাইওে থেকে কোনো শ্রমিককে আসতে দেওয়া হবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এই ঘোষণা দেন। আবার শ্রম ও কর্মসংস্থার প্রতিমন্ত্রী ঘোষণা দেন গার্মেন্টস শ্রমিকদের যারা এপ্রিল মাসের দু’চার দিন কাজ করেছেন তারা পুরো মাসের বেতন পাবেন। আর যারা কাজে যোগদান করতে পারেননি তাদের শতকতা ৬০ শতাংশ বেতন দেয়া হবে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, সারাদেশের গার্মেন্টস শ্রমিকরা পিঁপিলিকার মতো ঢাকামুখী হয়েছেন।

গণপরিবহনের অভাবে তারা পিকআপ ভ্যান এবং ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায়, বাইকে করে ফিরেছেন। নিদারুণ কষ্ট করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে কর্মস্থলে এলেও তাদের গুনতে হয়েছে সাধারণ ভাড়ার চেয়ে দিনগুন চারগুন টাকা। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকার হয়তো সিদ্ধান্তটি নিয়েছে অর্থনৈতিক দিক বিবেচনা করে। তবে শ্রমিকদের সুরক্ষা নির্দেশিকা তৈরি করার আগে কারখানা চালু করতে দেওয়া উচিত হয়নি। গার্মেন্টস চালু এবং শ্রমিকদের যাতায়াতের পথে যথাযথ স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থা ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত না করায় গার্মেন্টসগুলোর শ্রকিদের মধ্যে করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলেছে।

জানতে চাইলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের সাবেক উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাহেরুল হক বলেন, করোনা ঝুকির মধ্যেই গার্মেন্টস খোলার সিদ্ধান্ত সঠিক নয়। এটা গার্মেন্টস শ্রমিকদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে ফেলবে। এটা লকডাউন নীতির সম্পূর্ণ লঙ্ঘন। লকডাউনের অর্থ মানুষ ঘরে থাকবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখবে। গার্মেন্টস চালু করায় সংক্রমণের হার বাড়বে।

বিজিএমইএর সহসভাপতি আরশাদ জামাল দিপু সাংবাদিকদের জানান, এ পর্যন্ত অর্ধেক শ্রমিক কাজে যোগদান করেছেন। এদের বেশিরভাগই ঢাকা ও এর আশেপাশের এলাকার। ঢাকার বাইরে থেকে যারা এসেছেন আমরা তাদের আসতে বলিনি। কারখানা আবার চালু হচ্ছে জেনে তারা ফিরে এসেছে।



 

Show all comments
  • Milton Baka ১ মে, ২০২০, ১:২৩ এএম says : 0
    এই দৃশ্যটা কাদের সাহেবকে দেখানো উচিত। ওনি বলেছেন স্বল্প পরিসরে খুলেছে। এখন কথা হলো তাহলে বৃহত্তর পরিসরের জন্য কি বাকি রেখেছেন?
    Total Reply(0) Reply
  • Md Rubel Hossain ১ মে, ২০২০, ১:২৪ এএম says : 0
    মাশাআল্লাহ্
    Total Reply(0) Reply
  • Monir Hossain ১ মে, ২০২০, ১:২৪ এএম says : 0
    সবাইকে আগাম করোনা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। ঈদ বোনাস হিসেবে মাননীয় বানিজ্য মন্ত্রী ও বিজিএমইএ সভাপতিকে ঊষ্ণ চুম্বন।
    Total Reply(0) Reply
  • সেদিন দেখা হয়েছিলো ১ মে, ২০২০, ১:২৪ এএম says : 0
    ইতালিতে ট্রেইলার ছিলো,বাংলাদেশে পুরো মুভিটা দেখবো....
    Total Reply(0) Reply
  • Ayyat Mahmud ১ মে, ২০২০, ১:২৪ এএম says : 0
    কিছু শ্রমিক মারা গেলে গেল । তাতে মালিকদের কি আসে যায় ? তাদের ইনকামতো ঠিকই থাকলো ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mijanur Rahman ১ মে, ২০২০, ১:২৫ এএম says : 0
    এখানে সরকারের নিয়মনীতি মেনে চলা ফেরা করছে
    Total Reply(0) Reply
  • Qudry Sumon ১ মে, ২০২০, ১:২৬ এএম says : 0
    কোন গারমেন্টস এ যদি এক জন করোনা রোগী অজান্তেই ঢোকে পরে তা পুরো শ্রমিকদের সংস্পর্শে আসতে ৫/৭ দিন সময় নেবে , একই সময়ে বসায় থাকা পরিবারকেও আক্রান্ত করবে , একেবারে মেছাকার হয়ে যাবে আশংন্কা করছি ! তাই ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নেবেন , অল্প সুবিধার জন্য পরে যেন শ্রমিককেই চিরদিনের জন্য হারাতে না হয় ।
    Total Reply(0) Reply
  • Ayesha Akter Tripti ১ মে, ২০২০, ১:২৬ এএম says : 0
    সবচেয়ে বড় শয়তান বিজিএমইএ এবং গার্মেন্টস মালিকগুলো। এখন যে গার্মেন্টস তৈরি করবে কোন দেশে বিক্রি হবে? প্রায় সব দেশের শপিংমল বন্ধ। আসলে শ্রমিকদের হয়রানি এবং ছাটাইয়ের চিন্তা করেই গার্মেন্টস খুলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Tanjim Nipa ১ মে, ২০২০, ১:২৭ এএম says : 0
    মসজিদে নামাজ পরতে গেলে করোনা ছড়াবে। আর গার্মেন্টস এ কাজ করতে গেলে করোনা ছড়াবে না। এটা কোনো সুস্থ্য মানুষের কথা হতে পারে না।এতোদিন বাংলাদেশ জতটা ভালো ছিলো, এবার তার চেয়ে অনেক বেসি খারাপের দিকে জাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ১ মে, ২০২০, ৭:১৯ এএম says : 0
    এখানে ছবিতে আমি যা দেখছি এতে একটা বিষয় নিশ্চিত যে, এই অবস্থা চলতে থাকলে ২/৩ দিনের মধ্যেই শুনা যাবে করোনায় আক্রান্তের কারনে কারখানার একটি শাখা বন্ধ। পরের দিন একইভাবে অপর একটি শাখা বন্ধ হবে। ৭ দিনের মধ্যেই দেখা যাবে পুরো কারখানাই বন্ধ। কাজেই এই ছবিটার প্রতি সরকার প্রধান শেখ হাসিনা, পুলিশ প্রধান (আইজিপি) ও বিজিএমইর সভাপতি রুবানা হকের দৃষ্টি পড়া উচিৎ এবং এখান থেকেই কড়া নিরাপত্তার ব্যাবস্থা নেয়া উচিৎ। আমি আগেই বলেছিলাম পোষাক কারখানার শ্রমিক ফেডারেশনের নেতারা হচ্ছে পকেট বানিজ্যে ওস্তাদ কাজেই শ্রমিকেরা মারা যাচ্ছে নাকি হচ্ছে এটা তাদের দেখার বিষয় নয় তাদের বিষয় হচ্ছে টাকা পকেটে আসতে হবে। আইএলও যখন করোনার পরিস্থিতিতে যে কোন কারখানার শ্রমিকদেরকে সাবধানতা অবলম্বন করতে বলেছে সেখানে আমাদের দেশে শ্রমিক নেতারা সেটা না করে কারখানা খোলার পায়তারা করে আসছিল। এটাও বুঝা যাচ্ছে যে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অর্ডার এসেছে কাজেই সেই সময়মত কাপড় তৈয়ার করে পাঠাতে না পারলে কাজ বাতীল হয়ে সবদিক থেকেই লোকশান গুনতে হবে। তাইবলে মালিকেরা লোকশান না গুনার জন্যে লক্ষ লক্ষ শ্রমিকদের জীবন নিয়ে খেলবে এটাও সঠিক নয়। এখন যে বিপদ সরকার ঘাড়ে নিয়েছে সেটা সামাল দেয়ার দায় দায়িত্বও সরকারের। আমরা দেখতে চাই সরকার জনগণের স্বার্থে কি সিদ্ধান্ত নেয়। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে সঠিক সময়ে সঠিক সেদ্ধান্ত নেয়ার যোগ্যতা দান করেন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Hiron hajong ১ মে, ২০২০, ৭:২৪ এএম says : 0
    এগুলো এখনি বন্ধ করা দরকার তানাহলে আমাদের মারাত্ত্বক ক্ষতি হয়ে যাবে। আমাদের জাতির অস্তীত্ত থাকবেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • Hiron hajong ১ মে, ২০২০, ৭:২৪ এএম says : 0
    এগুলো এখনি বন্ধ করা দরকার তানাহলে আমাদের মারাত্ত্বক ক্ষতি হয়ে যাবে। আমাদের জাতির অস্তীত্ত থাকবেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • Hiron hajong ১ মে, ২০২০, ৭:২৭ এএম says : 0
    এগুলো এখনি বন্ধ করা দরকার তানাহলে আমাদের মারাত্ত্বক ক্ষতি হয়ে যাবে। আমাদের জাতির অস্তীত্ত থাকবেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • সুমন ১ মে, ২০২০, ৬:৩৩ পিএম says : 0
    একটা গার্মেন্টসে কিভাবে কাজ হয় তা যে করে সেই জানে কোন ভাবেই গার্মেন্টসে শারীরিক দূরত্ববজায় রাখা সম্ভব না এই দেশে সরকারের
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গার্মেন্টস

২৭ জুন, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন