Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০১ জুন ২০২০, ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৮ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

কাশ্মীরে তৃতীয় দিনের মতো ভারতবিরোধী বিক্ষোভ সংঘর্ষ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২০, ১২:০২ এএম

বুধবার ভারতীয় বাহিনী কাশ্মিরের দক্ষিণে আওয়ান্তিপুরে হত্যা করেছে কাশ্মীরি নেতা রিয়াজ নাইকু ও তার এক সহযোগীকে। এর প্রতিবাদে শুক্রবার তৃতীয় দিনের মতো ভারতবিরোধী বিক্ষোভ ও সংঘর্ষ অব্যাহত ছিল কাশ্মীরে। এদিন ভারত বিরোধী বিক্ষোভকারীরা সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। জবাবে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে ভারতীয় সেনারা শটগান থেকে গুলি ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। বার্তা সংস্থা এপি’কে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন। এতে বলা হয়, তিন দিনের সংঘর্ষে এরই মধ্যে কমপক্ষে একজন নিহত ও ৫০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের স্থানীয় পর্যায়ে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বুলেটবিদ্ধ ও গুলিতে আহত কমপক্ষে এক ডজন মানুষকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে শ্রীনগরে হাসপাতালে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ তথ্য দিয়েছেন একজন চিকিৎসক। তিনি বলেছেন, আহতদের বেশির ভাগেরই এক চোখে বা উভয় চোখে গুলি লেগেছে। ওদিকে কাশ্মীরি ওই নেতার নিজের গ্রামে বৃহস্পতিবার ভারতীয় সেনায় সয়লাব হয়ে যায়। অভিযোগ করা হয়েছে, সেখানে মৃত ওই নেতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করার জন্য একটি তাঁবু টানানো হয়েছিল। সেনারা তা ভাঙচুর করেছে সেনারা। এর ফলে সেখানে বড় রকমের প্রতিবাদ বিক্ষোভ ও সংঘর্ষ দেখা দেয়। খবরে বলা হয়েছে, বড় রকমের কোনো দাফন অনুষ্ঠান যাতে হতে না পারে, সেজন্য নিহত ওই দুই নেতার মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেনি কর্তৃপক্ষ। এর পরিবর্তে পুলিশ ওই দুটি মৃতদেহ তাদের গ্রাম থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে একটি পাহাড়ের ওপর কবরস্তানে দাফন করেছে। কর্তৃপক্ষ বুধবার থেকেই ওই অঞ্চলে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে রেখেছে। কাশ্মীরে বিক্ষোভ দেখা দিলেই এমন নীতি গ্রহণ করা হয়। বলা হয়েছে, এ বিষয়ে পুরোপুরি তথ্য গোপন করে গেছে ভারত। এমনকি তারা পরিস্থিতি নিয়ে মিডিয়ার কাছে ব্রিফিংও করে নি। রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালে যখন কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নেয় ভারত, তখনও তারা একই রকম নীতি অবলম্বন করেছিল। তবে নাইকু হত্যাকে কাশ্মীরি যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে একটি বিজয় বলে দাবি করছেন ভারতের নিরাপত্তা বিষয়ক কিছু কর্মকর্তা ও ক্ষমতাসীন দলের কিছু সদস্য। এপি, অনলাইন ডন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কাশ্মীর


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ