Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭ আশ্বিন ১৪২৭, ০৪ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি বিশ্ব

জাতিসংঘের সতর্কতা

ডেইলি মেইল | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২০, ১২:০১ এএম

জাতিসংঘ সতর্ক করে দিয়েছে, বিশ্ব ‘ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের’ মুখোমুখি হয়েছে যা ‘বাইবেলের বর্ণনা মতে আমাদের উপর প্রভাব ফেলতে পারে’। জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (ডব্লিউএফপি) সতর্ক করেছে যে, বিশ্বের সবচেয়ে নাজুক দেশগুলিতে ভাইরাসটির প্রভাব মোকাবেলায় যদি পর্যাপ্ত তহবিলের প্রতিশ্রুতি না দেয়া হয় তবে বিশ্ব দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হবে, যা ইতিমধ্যে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় জর্জরিত।

বৃহস্পতিবার জেনেভাতে এক সম্মেলনে ডব্লিউএফপির নির্বাহী পরিচালক ডেভিড ব্যাসলি বলেছেন, ‘আমরা এখন যা দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হচ্ছি তা বাইবেলের বর্ণনা অনুযায়ী আমাদের প্রভাবিত করতে পারে’।

ব্যাসলে বলেন, জাতিসংঘের খাদ্য সংস্থা যে কোনও দিন প্রায় ১০০ মিলিয়ন মানুষকে সহায়তা করে এবং ‘যদি আমরা এই প্রয়োজনীয় অপারেশনগুলি চালিয়ে না নিতে পারি, তবে দ্রুতই মহামারীটির অনাহার মহামারী দেখা দেবে’। ‘কোনও প্রশ্ন নেই। আক্ষরিক অর্থেই ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ আমাদের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে’-তিনি বলেছিলেন।
‘কোভিড-১৯ আঘাত করার আগেই আমরা ইতিমধ্যে সাড়ে ১৩ কোটি লোককে পেয়েছি যারা অনাহারের প্রান্তে পদযাত্রা করেছে। এরা হচ্ছে দীর্ঘকালীন ক্ষুধার্ত ৮২ কোটি ১০ লাখ মানুষের অতিরিক্ত’। ‹

মহামারীটি আঘাত হানার আগেও পূর্ব আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে ইতোমধ্যে কয়েক দশক ধরে খরা এবং ভয়াবহ পঙ্গপাল আক্রান্তের ফলে মারাত্মক খাদ্য সঙ্কট রয়েছে। মহামারীটি জীবন-জীবিকা এবং খাদ্য সুরক্ষার ক্ষতি করতে পারে এবং বিশ্বব্যাপী মন্দা মূলত খাদ্য সরবরাহ শৃঙ্খলা ব্যাহত করবে এবং অতিরিক্ত ১৩ কোটি মানুষকে অনাহারে ঠেলে দেবে।

জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভাইরাসের বিস্তার রোধে প্রয়োজনীয় চলাচলে বিধিনিষেধের ফলে খাদ্যের পরিবহন ও প্রক্রিয়াকরণ ব্যাহত হবে, যার ফলে ফসল ও প্রাণিসম্পদ উৎপাদন ও বিক্রি হ্রাস পাবে এবং এমনকি সবচেয়ে মৌলিক খাদ্য সামগ্রীর উপস্থিতি বিপজ্জনকভাবে কমবে।

এদিকে, লকডাউনের ফলস্বরূপ ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব কিছু লোকের ক্রয়শক্তি মারাত্মকভাবে হ্রাস করতে পারে, সুরক্ষাবাদী নীতিমালা, মুদ্রার অবমূল্যায়ন এবং কৃষিজমির অভাবের ফলে ক্রমবর্ধমান খাদ্যের দামের মধ্যে উচ্চ মানের পণ্যগুলির চাহিদা কমিয়ে আনতে পারে।

জাতিসংঘ জীবন রক্ষা এবং ভঙ্গুর দেশগুলিতে এই রোগের বিস্তার রোধে ৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার তহবিলের জন্য একটি নতুন আবেদন করেছে। আন্তঃসরকারি সংস্থা ইতোমধ্যে মহামারী শুরুর সময়ে ২ বিলিয়ন ডলার চেয়েছিল এবং এখন পর্যন্ত এর অর্ধেক পেয়েছে। আপডেট হওয়া আপিলের মধ্যে নয়টি অতিরিক্ত দুর্বল দেশ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে: বেনিন, জিবুতি, লাইবেরিয়া, মোজাম্বিক, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, সিয়েরা লিওন, টোগো এবং জিম্বাবুয়ে।

জাতিসংঘের অনুমান অনুসারে, আগামী তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলিতে সংক্রমণ আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক ডা. টেদ্রোস অ্যাধনম ঘেব্রেইয়াসুস বলেছেন, যে সকল দেশে অতিরিক্ত সাহায্যের প্রয়োজন হয় তাদের ক্ষেত্রে কেসলোড কম মনে হলেও তাদের পরীক্ষা ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ক্ষমতা এই দেশগুলিকে দুর্বল করে দেয়। তিনি বলছেন, এর অর্থ হ’ল সেখানে অনির্ধারিত কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ঘটছে।

জাতিসংঘের মানবিক বিষয়ক প্রধান বলেছেন যে, ভাইরাসটির সর্বাধিক ধ্বংসাত্মক প্রভাব বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলিতে অনুভূত হবে। ‘আমরা এখনই পদক্ষেপ না নিলে সংঘাত, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যের উল্লেখযোগ্য উত্থানের জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। একাধিক দুর্ভিক্ষের ঝাঁকুনি ফুঁসে উঠেছে,’ -তিনি সতর্ক করেন।

জাতিসংঘের শরণার্থী প্রধান আরও বলেন যে, যুদ্ধ ও অত্যাচার থেকে পালিয়ে আসা লোকজনের ওপর এর প্রভাব ‘বিপর্যয়কর’ হয়েছে।



 

Show all comments
  • মোঃ তোফায়েল হোসেন ১০ মে, ২০২০, ১:১২ এএম says : 0
    গত ডিসেম্বরে চীনে প্রথম যখন এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে তখন কেউ ঘুণাক্ষরেও কল্পনা করতে পারেনি, কি এক মহাবিপর্যয় অপেক্ষা করে আছে বিশ্ববাসীর জন্য। অল্প কিছুদিনের মধ্যে এই ভয়ঙ্কর জীবাণু ছড়িয়ে পড়ে সারা পৃথিবীতে। বিশ্বের ২০০টিরও অধিক দেশে প্রায় ৩.৫ মিলিয়ন মানুষ আজ কোভিড-১৯ নামক এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত, প্রাণ হারিয়েছেন ২ লাখেরও অধিক মানুষ। এর শেষ কোথায়? বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) সতর্ক করে বলেছেন, সহসাই এই প্রাণসংহারী জীবাণুর হাত থেকে মুক্তি নেই মানুষের। সুতরাং, সকলকে ধৈর্য্য এবং সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে মোকাবেলা করতে হবে এই মহামারীকে।
    Total Reply(0) Reply
  • ABDUL MAJID QUAZI ১০ মে, ২০২০, ১:১২ এএম says : 0
    Let people work by maintaining physical distancing where it possible. Not blindly lockdown to stop famine.
    Total Reply(0) Reply
  • কায়সার মুহম্মদ ফাহাদ ১০ মে, ২০২০, ১:১৩ এএম says : 0
    ব্র্যাক এর রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রায় ৯০% মানুষ দরিদ্র সীমার নীচে এবং প্রায় ১৮% লোকের গরে খাবার নেই। যেভাবে করোনা মহামারি জ্যামিতিক হারে বাংলাদেশে বাড়ছে; তাতে মনে হয় মহামারী পরিস্থিতি আরও দীর্ঘায়িত হবে, এই অবস্থা চলতে থাকলে দূর্ভিক্ষও আরও ভয়াবহ হবে।বাংলাদেশ সরকার এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সঠিক সিদ্ধান্ত এখনই নিয়ে হবে, অন্যতায় চরম মূল্য দিতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • খান শহিদুল ১০ মে, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
    Yes absolutely right.majority will die of starvation rather than pestilence. Bangladesh is already facing it.
    Total Reply(0) Reply
  • কামাল রাহী ১০ মে, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
    এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে যেহেতু কোনো প্রতিষেধক নেই, তাই প্রতিরোধই হচ্ছে এর থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়। আর এই প্রতিরোধের অন্যতম অস্ত্র হচ্ছে, সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করা। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ এই সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে তাৎক্ষণিকভাবে লকডাউন বা মানুষ এবং যানবাহন চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। ফলে থমকে যায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। যেহেতু এই লকডাউন কোনো কোনো ক্ষেত্রে ধারণার চেয়েও দীর্ঘায়িত হচ্ছে, এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে সাধারণ মানুষ বিশেষ করে প্রান্তিক এবং নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর ওপর – যারা মূলত দিন আনে দিন খায়।
    Total Reply(0) Reply
  • Auvi Alam ১০ মে, ২০২০, ১:১৪ এএম says : 0
    আল্লাহ তোমার পাপী বান্দাদের ক্ষমা করো নয়তো করোনায় মৃত্য দিও তবুও ক্ষুধার জ্বালা দিয়ে মৃত্যু দিও না
    Total Reply(0) Reply
  • Anjum Aysha ১০ মে, ২০২০, ১:১৫ এএম says : 0
    এই বেকার সময়ে সবারই এখন সক্ষমতা অনুযায়ী কৃষি কাজে জড়িত হওয়া উচিত। তাহলে অন্তত নিজেদের পরিবারের খাদ্য চাহিদা পূরণ করা যাবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ