Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

পবিত্রতা অর্জনের প্রয়োজনীয়তা

এ. কে এম. ফজলুর রহমান মুনশী | প্রকাশের সময় : ১৭ মে, ২০২০, ১২:০২ এএম

আরবি ভাষায় অপবিত্রতাকে ‘হদছ’ এবং পবিত্রতাকে ‘তাহারাত’ বলা হয়। আল কোরআনে সুস্পষ্টভাবে ঘোষণা করা হয়েছে, ‘ইন্নাল্লাহা ইউহিব্বুত তাউয়্যাবীনা ওয়া ইউহিব্বুল মূতা-ত্বাহ্যিরীনা।’ অর্থাৎ আল্লাহপাক তাওবাহকারী ও পবিত্রতা অর্জনকারীদেরকে ভালোবাসেন। হাদিস শরীফে এসেছে, ‘আত্তাহুরু শাতরুল ঈমান।’ অর্থাৎ পবিত্রতা ঈমানের অংশ। সুতরাং আল্লাহর ভালোবাসা লাভ করার জন্য পবিত্রতা সুলভ ঈমান অব্যাহত থাকা একান্ত জরুরি। ইসলামি শরীয়তে হদছ বা অপবিত্রতাকে দু’ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

যথা: (ক) হদছে আকবার বা বড় অপবিত্রতা এবং (খ) হদছে আসগার বা ছোট অপবিত্রতা। অনুরূপভাবে তাহারাত বা পবিত্রতাকে তিন ভাগে বিভক্ত করে আলোচনা করা হয়েছে। যথা: (ক) অপবিত্রতা হতে পবিত্রতা অর্জন করা, (খ) দেহের সাথে সম্পর্কিত বস্তু বা কাপড়ের সাথে সংশ্লিষ্ট বস্তু অথবা স্থানের সাথে সম্পর্কিত অপবিত্রতা হতে পবিত্রতা অর্জন করা এবং (গ) দেহ হতে উৎপন্ন অপবিত্রতা হতে পবিত্রতা অর্জন করা।

যেমন: (১) নখ, (২) দেহের নিম্নাঙ্গে উৎপন্ন পশম এবং (৩) ময়লা আবর্জনা ইত্যাদি। সুতরাং অপবিত্রতা হতে পবিত্রতা অর্জন সৎ কাজের ভিত্তির মধ্যে অন্যতম ভিত্তি বলে পরিগণিত। তাই, স্মরণ রাখা দরকার যে, ভিত্তি যদি মজবুত ও সুদৃঢ় হয়, তাহলে তার উপর নির্মিত ইমারত বা স্থাপনার দীর্ঘস্থায়ীত্ব অবিসংবাদিত হয়ে থাকে। অন্যথায় তা’ দিন দিন নড়বড়ে হতে থাকে এবং কোনো এক সময় তা ধ্বসে পড়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়।

এমনটি যেন না হয় তৎপ্রতি খেয়াল রেখে ইসলামি শরীয়ত অপবিত্রতা হতে পবিত্রতা অর্জনের সীমাকে চিহ্নিত করে দিয়েছে। কেননা এটি এমন রুচিসম্পন্ন ও চয়নকৃত ব্যক্তিগণের রুচির ওপর নির্ভরশীল, যাদের মধ্যে মালাকুতী নূরের ঝর্ণা ধারা বিস্তার লাভ করেছে। ফলে, তারা যেই সমস্ত বিষয়সমূকে হদছ বা অপবিত্রতা বলা হয়, তা নিজেদের জন্য যেমন অপছন্দনীয় মনে করেছেন, তেমনি স্বীয় অনুসারীদের জন্যও অপছন্দনীয়বলে সাব্যস্ত করেছেন। একইভাবে যাকে তাহারাত বা পবিত্রতা বলা হয়, তা নিজেদের জন্য আনন্দদায়ক ও প্রশান্তিময় বলে মনে করেছেন এবং তাকে নিজেদের অনুসারীদের জন্যও অপরিহার্য কল্যাণকর বলে বিবেচনা করেছেন।

আমরা যদি সর্বশেষ নবী ও রাসূল হযরত মোহাম্মদ মোস্তাফা আহমাদ মুজতাবা (সা.)-এর আগমন পূর্ববর্তী মিল্লাতগুলোর প্রতি গভীর দৃষ্টিতে তাকাই, তাহলে দেখতে পাই যে, ইহুদি, নাসারা, অগ্নি উপাসক ও মিল্লাতে ইসমাঈল (আ.)-এর অবশিষ্টাংশ সকলেই হদছ তথা অপবিত্রতাকে দুভাগে ভাগ করত, যেমনটি আমরা পূর্বে উল্লেখ করেছি।

অন্ধকার যুগের আরবদের মাঝেও জানাবাতের পর (স্ত্রী সঙ্গমের পর দেহ শুদ্ধির জন্য) গোসল আমভাবে প্রচলিত ছিল। বিশ^নবী মোহাম্মদাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.)ও হদছের তথা অপবিত্রতার উল্লিখিত দু’প্রকারের ন্যায় পবিত্রতা অর্জনেরও দুটি প্রকারের কথা ঘোষণা করলেন। হদছে আকবরের বিপরীতে তাহারাতে কোবরাকে অর্থাৎ গোসলকে (বড় অপবিত্রতার বিপরীত বড় পবিত্রতাকে) অপরিহার্য ঘোষণা করলেন। তা এজন্য যে, এ জাতীয় অপবিত্রতা স্বল্প সংখ্যক সংঘটিত হয়ে থাকে। কিন্তু তালবীছ বা কুমন্ত্রণার দিক থেকে অধিক হয়।

সুতরাং কঠিন কাজে আত্মাকে পবিত্র ও সতর্ক করার জন্য বড় পবিত্রতাকে অবলম্বন করার প্রয়োজনীযতা দেখা দেয়। অপরদিকে বিশ্বনবী মোহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) হদছে ছোগরাকে তাহারাতে ছোগরার (ছোট অপবিত্রতাকে ছোট পবিত্রতার) অর্থাৎ, অজুর বিপরীত ঘোষণা করলেন। এর কারণ হলো, এ জাতীয় হদছে ছোগরা অধিক পরিমাণে সংঘটিত হয়। আর তালবীছ তথা কুমন্ত্রণার দিক থেকে অল্প সংখ্যক হয়ে থাকে। এতদ সম্পর্কে বেশি একটা সতর্কতা প্রদর্শনের প্রয়োজন পড়ে না। যে সব বস্তুত হদছে আসগর বা ছোট অপবিত্রতার অর্থ বা চিহ্ন পাওয়া যায়, সেগুলো অসংখ্য। সুরুচিসম্পন্ন ব্যক্তিরা তা জানে এবং বুঝে। অবস্থা, অবস্থান, পরিবেশ ও প্রয়োজনীয়তা অনুসারে সকল মানুষকে তা অবহিত করা হয়ে থাকে।

আর এ কথাও স্মরণ রাখা দরকার যে, তাহারাত বা পবিত্রতা অর্জনের তৃতীয় প্রকারটি পরিপূর্ণ শান্তিও তৃপ্তিদানের পরিচায়ক। কেননা, ঐ সকল বস্তু যার মধ্যে তাহারাত বা পবিত্রতার অর্থ, চিহ্ন এবং আনন্দ ও মনের প্রশান্তি বিদ্যমান, সেগুলো অসংখ্য। যেমন সুগন্ধি লাগানো, বিভিন্ন দোয়া-কালাম পাঠ করা ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা। বর্তমানে করোনাভাইরাসের উৎপাত হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কথা ফলাও করে বলা হলেও অজু-এর কথা মুখেও আনা হয় না। এটা প্রকৃত অর্থেই দুঃখজনক।



 

Show all comments
  • MD Taleb Ullah Swapon ১৭ মে, ২০২০, ১:১৮ এএম says : 0
    পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নতা রক্ষায় ইসলামে বেশ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে এবং বিভিন্নভাবে পরিচ্ছন্নতার অনুশীলন দেয়া হয়েছে। পবিত্র কোরআন ও রাসুল (সা.)-এর হাদিসে পরিচ্ছন্নতা বিষয়টির ক্ষেত্রে আরও ব্যাপক শব্দ ‘তাহারাত’ বা পবিত্রতা ব্যবহার করা হয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • কাজী হাফিজ ১৭ মে, ২০২০, ১:১৯ এএম says : 0
    বিভিন্ন উপায়ে পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে এবং নানাবিধ শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। এমনকি পরিচ্ছন্নতা রক্ষাকে ঈমানের অংশ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • মেহেদী ১৭ মে, ২০২০, ১:১৯ এএম says : 0
    ইসলামে ব্যক্তির পরিচ্ছন্নতা, গৃহের পরিচ্ছন্নতা ও পরিপার্শের পরিচ্ছন্নতা—কোনোটাই বাদ যায়নি। ব্যক্তির পরিচ্ছন্নতা রক্ষায় অন্তত জুমাবারে গোসলের গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এমনকি হাদিসে এ ক্ষেত্রে ওয়াজিব বা অত্যাবশক বলা হয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ তোফায়েল হোসেন ১৭ মে, ২০২০, ১:১৯ এএম says : 0
    বাস্তবে ইসলাম সতত সৌন্দর্য ও মাধুরীপূর্ণ ধর্ম। আল্লাহ তাআলা আমাদের সবাইকে ইসলামের সৌন্দর্য মোতাবেক জীবন যাপনের তাওফিক দান করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • কায়সার মুহম্মদ ফাহাদ ১৭ মে, ২০২০, ১:২০ এএম says : 0
    ইসলামের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো পবিত্রতা। পবিত্রতা মানে জীবনব্যাপী পবিত্রতা। যথা বিশ্বাসের পবিত্রতা, কর্মের পবিত্রতা, শারীরিক পবিত্রতা, মানসিক পবিত্রতা, আর্থিক পবিত্রতা, বাহ্যিক পবিত্রতা, অভ্যন্তরীণ পবিত্রতা; ভাষা তথা বাক্যের ও শব্দের পবিত্রতা, রুচির পবিত্রতা, দৃষ্টি ও দৃষ্টিভঙ্গির পবিত্রতা; পরিবেশের ও প্রতিবেশের পবিত্রতা; শ্রবণে পবিত্রতা, দর্শনে পবিত্রতা ও চিন্তায় পবিত্রতা পবিত্র জীবন যাপনের পূর্বশর্ত ও সহায়ক বটে। সর্বোপরি জ্ঞানের পবিত্রতা সর্বশীর্ষে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রমজান
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ