Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

ঈদ রাজনীতিতে ভাটা

ইয়াছিন রানা | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২০, ১২:০১ এএম

ঈদের আগ মুহূর্তে আওয়ামী লীগসহ রাজনৈতিক দলগুলো যে রকম ব্যস্ত থাকতো এবার করোনাভাইরাসের কারণে ‘ঈদ রাজনীতি’তে ভাটা পড়েছে। বৈশি^ক এ দুর্যোগের কারণে হয়নি কোন রাজনৈতিক ইফতার পার্টি। কমে গেছে রাজনীতিবিদদের ব্যস্ততা। করোনার কারণে বেশিরভাগ রাজনীতিবিদ সেলফ আইসোলেশনে রয়েছেন তাই কর্মীরাও নেতাদের কাছে পাচ্ছে না। এমপি-মন্ত্রীদের মাঠে পাওয়া না গেলেও স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধিদের ব্যস্ততা বেড়েছে কয়েকগুণ।

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে ঈদের সময় রাজনীতি যেমন জমজমাট ছিল, নির্বাচনের পর গত বছরই তাতে ভাটা পড়েছিল। আওয়ামী লীগের ৪০৪৩ জন মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বেশিরভাগকেই দেখা যায়নি। এবার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের এ সঙ্কট আরো ভয়াবহ। এমপি-মন্ত্রীরাও এলাকার খোঁজ খবর রাখছেন না। হাজার হাজার নেতা ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে ব্যানার ফেস্টুন লাগিয়ে এলাকাগুলো ছেয়ে ফেলতেন, সেই নেতাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

তবে এ সঙ্কটের মাঝে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন গুটি কয়েক রাজনীতিবিদ। সকাল সন্ধ্যা ছুটে বেড়াচ্ছেন গরীব, দুঃখীদের কাছে। ত্রাণ হিসেবে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, নগদ অর্থ সহায়তা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা পালন করে যাচ্ছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতাদের মাঠে না থাকার কারণ হিসেবে একজন নেতা ইনকিলাবকে বলেন, গত নির্বাচনের আগে বলা হয়েছিল বিতর্কিত ব্যক্তিরা মনোনয়ন পাবেন না। সে জন্য শুরু থেকেই মাঠে কাজ শুরু করেছিলাম। কিন্তু সর্বশেষ দেখা গেছে দলীয় মনোনয়নে তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। আমাদের কাজের কোন মূল্যায়ন করা হয়নি, বিতর্কিতরাই আবার এমপি হয়েছেন। দলের সেই এমপিরাই তো মাঠে নেই, আমরা কিভাবে থাকবো?

এর মাঝেও জীবনের মায়া না করে করোনার সংকটে গরীব, দুঃখী, কর্মহীনদের প্রতিদিনই খাবার বিতরণের কাজ করে যাচ্ছেন অনেকেই। সংরক্ষিত আসনের এমপি সেলিনা ইসলাম ছুটে বেড়াচ্ছেন লক্ষীপুরের রায়পুরের প্রত্যেক গ্রামে। স্বামী লক্ষীপুর-২ আসনের এমপি কাজী শহিদুল ইসলাম পাপুল লকডাউনে দেশের বাইরে আটকে থাকায় সেলিনা ইসলাম নিজ হাতেই অসহায়দের জন্য খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন। নোয়াখালীতে করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনে সহযোগিতা করেছেন, স্থানীয় হাসপাতাল, জেলা প্রশাসনে পিপিই প্রদান করা থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় সহায়তা করেছেন।

দিনাজপুরে করোনার শুরু থেকেই কাজ করে যাচ্ছেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং হুইপ ইকবালুর রহিম। লকডাউন, রমজান ও ঈদে সকলকে সহায়তা করছেন তারা। ৭৫ বছর বয়সী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফি প্রতিদিনই অসহায়দের জন্য নিজ হাতে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করছেন। কুমিল্লা-১ আসনে আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আব্দুস সবুর, ব্রাহ্মনবাড়িয়া-৫ আসনে যুবলীগ নেতা আলামিনুল হক আলামিন, চাঁদপুর-৩ আসনে রেদওয়ান খান বোরহান, মাদারীপুরে কাজ করে যাচ্ছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা শাহাবুদ্দিন ফরাজী। প্রায় ৫ হাজার মানুষকে সহায়তা করেছেন এবং নিজের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের জন্য ঈদে পোষাক না কিনে সেই খরচ গরীব, দুঃখীদের মাঝে বিতরণ করেছেন শাহাবুদ্দিন।

এদিকে ঢাকা-৫ আসনের এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লা মারা যাওয়ায় করোনার মাঝে জমে উঠছে নির্বাচনী রাজনীতি। প্রার্থীরা ইতোমধ্যে মাঠে নেমে পড়েছেন এবং অসহায়, গরীব দুঃখীদের সাহায্য করার মাধ্যমে নিজেদের প্রার্থিতা জানান দিচ্ছেন।

মরহুম হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল, ৭০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুর রহমান আতিক, জাসদের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার মীর আব্দুস সবুর আসুদ, ঢাকা দক্ষিণ সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন ইতোমধ্যে অসহায়দের সহযোগিতার মাধ্যমে প্রার্থীতার জানান দিচ্ছেন।

মশিউর রহমান ইনকিলাবকে বলেন, এখানে আমাদের প্রচারের কিছু নেই। অসহায় মানুষদের পাশে দাড়ানোর শিক্ষা আমার বাবার কাছেই শিখেছি। নির্বাচনের জন্য নয়, সাধারণ নিম্নবিত্ত মানুষ, অসহায়. গরীবদের সব সময়ই আমরা সাহায্য সহযোগীতা করি, এবারও করছি।

আরেক মনোনয়নপ্রত্যাশী ৭০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুর রহমান আতিক নিজ এলাকায় অসহায়দের সহযোগী করছেন। অন্যান্য ওয়ার্ডেও গরীব দুঃখীদের সহযোগীতা করছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ