Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ১১ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

পৌরসভার কাউন্সিলর ও ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

ত্রাণে অনিয়ম, দুই মাসে বরখাস্ত হলেন ৭৪ জনপ্রতিনিধি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ জুন, ২০২০, ১২:১১ এএম

 

সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম ও চাল আত্মসাতের অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম নেহার এবং শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার আরশীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শামসুদ্দোহাকে (ড. রতন) সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। গতকাল রোববার স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক জ্ঞাপন জারি করা হয়।
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর এ নিয়ে মোট ৭৪ জন জনপ্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো। এদের মধ্যে ২৪ ইউপি চেয়ারম্যান, ৪৫ ইউপি সদস্য, একজন জেলা পরিষদ সদস্য, ৩ জন পৌর কাউন্সিলর এবং একজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান।
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম নেহারের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে বিশেষ ওএমএস কার্যক্রমের আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিতরণে অনিয়ম করে নিজের পরিবারের সচ্ছল সদস্য ও আত্মীয়স্বজনসহ ১৬ ব্যক্তির নাম ওএমএসের ভোক্তা তালিকায় অন্তর্ভুক্তকরণ এর অভিযোগ প্রমাণিত হয়। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন অনুযায়ী তাকে পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।
শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার আরশীনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামসুদ্দোহা (ড. রতন) মৎস্যজীবীদের ভিজিএফের ৩৫ বস্তা চাল আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে রয়েছেন এবং শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছেন। স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন অনুযায়ী তাকে পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ত্রাণ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ