Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ১২ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

ওয়াশিংটনের মুখোশ খুলে গেছে: ইরান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০২০, ৯:০৬ পিএম

ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রায়িসি বলেছেন- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মানুষের ন্যূনতম অধিকারও লঙ্ঘন করছে, এ কারণে আন্তর্জাতিক আদালতে দেশটির বিচার হওয়া উচিত।

আজ মঙ্গলবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে সাম্প্রতিক বিক্ষোভের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি আরও বলেছেন, একজন কৃষ্ণাঙ্গের সঙ্গে মার্কিন পুলিশের অন্যায় আচরণ থেকে ওয়াশিংটনের মুখোশ খুলে গেছে। তিনি বলেন, যেসব দেশ নিজেদেরকে মানবাধিকারের রক্ষক বলে প্রচার চালাতো তারাও পুরোপুরি নীরব রয়েছে।

আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ রায়িসি আরও বলেছেন, শুধু অশেতাঙ্গ মানুষের সঙ্গে বৈষম্যের বিষয় নয়, আসলে যুক্তরাষ্ট্রে জাতিগত বিদ্বেষ সেখানকার ব্যবস্থার অংশ হয়ে গেছে।

৪৬ বছর বয়স্ক জর্জ ফ্লয়েডকে ২৫ মে সন্ধ্যায় প্রতারণার অভিযোগে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারের কিছুক্ষণ পর একজন পুলিশ অফিসার হাঁটু দিয়ে তাঁর গলা চেপে ধরলে কিছুক্ষণের মধ্যে তিনি মারা যান।

ফ্লয়েড মিনোপোলিস শহরের একটি রেস্তোরাঁয় নিরাপত্তাকর্মী হিসাবে কাজ করতেন। এ ঘটনায় একজন প্রত্যক্ষদর্শীর ধারণ করা ১০ মিনিটের একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে করোনা উপেক্ষা করে প্রতিবাদে সরব হন শত শত মানুষ। এরপর থেকেই বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ চলছে।

জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে চলমান বিক্ষোভে কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিকদের পাশাপাশি বিবেকবান শেতাঙ্গদেরও দেখা যাচ্ছে। ম্যাপিং পুলিশ ভায়োলেন্স নামের বেসরকারি সংস্থার চালানো জরিপে উঠে এসেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের গুলিতে শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় তিনগুণ বেশি মারা যায় কৃষ্ণাঙ্গরা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের শুরু থেকেই কৃষ্ণাঙ্গরা নানাভাবে নির্যাতিত হয়ে আসছে।

সূত্র: পার্সটুডে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইরান-যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন