Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ১১ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

সীমান্ত সংঘাত নিরসনে ভারত ও চীনের বৈঠক আজ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০২০, ৪:০১ পিএম

গতমাসে সিকিম এবং লাদাখ অঞ্চলে চীন ও ভারতের সেনাদের মধ্যে হাতাহাতি লড়াইয়ের পর থেকেই সীমান্তজুড়ে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এই সীমান্ত সংঘাত নিরসনে ভারত ও চীনের উচ্চপর্যায়ের সামরিক কর্তাদের বৈঠক বসছে আজ শনিবার। পূর্ব লাদাখের লেহ জেলার অন্তর্গত প্যাংগং লেকের দক্ষিণ প্রান্তে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার (এলএসি) লাগোয়া চুসুলে এই বৈঠকে অংশ নেবেন দুই দেশের কোর কমান্ডাররা।
দুই দেশের সাম্প্রতিক সীমান্ত সংঘাত মেটাতে এর আগে বড়জোর ডিভিশনাল কমান্ডার পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে। কোর কমান্ডার পর্যায়ের বৈঠক এই প্রথম। বৈঠক শুরুর এক সপ্তাহ আগে চীনা সেনাবাহিনীর ‘ওয়েস্টার্ন থিয়েটারের’ প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন জেনারেল জু ওইলিং। তিনি এর আগে ওয়েস্টার্ন থিয়েটারের কমান্ডার ছিলেন। এই বৈঠকে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন ১৪ কোরের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিং।
গতকাল, শুক্রবার সাম্প্রতিক পরিস্থিতির আবহে ভারত ও চীনের মধ্যে কূটনৈতিক পর্যায়ে আলোচনা হয়েছে। ভারতের হয়ে বৈঠকে প্রতিনিধিত্ব করেন যুগ্ম সচিব (পূর্ব এশিয়া) নবীন শ্রীবাস্তব। চীনের হয়ে উপস্থিত ছিলেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডিরেক্টর জেনারেল উ জিয়াংঝাও।
সরাসরি না উল্লেখ করলেও ভারতের কেন্দ্রীয় প্রশাসন জানিয়েছে, বর্তমান ঘটনাক্রম-সহ দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে বৈঠকে কথা হয়েছে।
প্রায় এক মাস ধরে সীমান্তে গালওয়ান উপত্যকা ও প্যাংগং সো লেকের কাছে চার জায়গায় মুখোমুখি চীন ও ভারতের সেনাবাহিনী। কিছু চীনা সেনা যে ভারতীয় সীমান্তে প্রবেশ করেছে, সেটাও স্বীকার করেছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। যদিও তিনি জানিয়েছেন যে চীনা নিয়ন্ত্রণ ঠেকাতে ভারত প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নিয়েছে।
চীন-ভারত সীমান্ত বিবাদ বহু বছরের। বিবাদ মেটানোর জন্য দুই দেশের সামরিক পর্যায়ের বহুবিধ ব্যবস্থাও স্বীকৃত। সামরিক ক্ষেত্রে বিভিন্নস্তরীয় আলোচনা ছাড়াও বিবাদ মেটাতে কূটনৈতিক স্তরে মীমাংসার চেষ্টা হয়। ডোকলামের ক্ষেত্রে যেমন হয়েছিল। আজ শনিবার সামরিক পর্যায়ের উচ্চস্তরীয় এই আলোচনার পাশাপাশি কূটনৈতিক স্তরেও দুই দেশের কথা চলছে।
ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং গত মঙ্গলবার বলেছিলেন, বহু চীনা সৈন্য বিতর্কিত এলএসিতে ঘাঁটি গেড়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র অনুযায়ী, বাড়তি বাহিনী মোতায়েন করেছে ভারতও। ঢিল ছোড়া দূরত্বে দুই বাহিনীর অবস্থান। পাকিস্তান সীমান্তে নিয়ন্ত্রণরেখা (এলওসি) যতটা উত্তেজনাপ্রবণ ও চীন সীমান্তে ততটা নয়। এলওসিতে প্রায় নিয়মিতই দুই দেশের মধ্যে গোলাগুলি চলে। এলএসিতে কিন্তু আগ্নেয়াস্ত্র চলে না। সম্প্রতি চীনা ফৌজের সঙ্গে যত বিবাদ হয়েছে, সব সময় তা হাতাহাতির পর্যায়ে আবদ্ধ থেকেছে। কিন্তু গোলাগুলি না চললেও দুই দেশই এলএসির ব্যাখ্যায় অটল থাকতে সদা সচেষ্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ