Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত মানবতাবিরোধী কাজ -তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০২০, ৬:২৪ পিএম

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত দেওয়া মানবতাবিরোধী কাজ। এসব বিষয় সরকার পর্যবেক্ষণ করছে। সময়মতো তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরে রোগীর মৃত্যু কোনো ভাবেই কাম্য নয়। 

টেলিকনফারেন্সের শনিবার চট্টগ্রাম নগরীর আগ্রাবাদের বেসরকারি চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে করোনা চিকিৎসায় ২০ শয্যার আইসোলেশন ওয়ার্ড উদ্বোধনকালে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
তার সাথে টেলিকনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ। করোনা চিকিৎসার জন্য ১০টি আইসিইউ সুবিধা নিয়ে আইসোলেশন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে হাসপাতালে।
চিকিৎসক ও নার্সদের উদ্দেশে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডাক্তার, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা হলো সম্মুখযোদ্ধা। তাদের যদি পলায়নপর মনোবৃত্তি হয় তা যুদ্ধের ময়দান থেকে পালিয়ে আসার মতো। এসময় করোনা মোকাবিলায় সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন তিনি। সেবা পেতে রোগীদের যাতে ভোগান্তিতে পড়তে না হয় তা খেয়াল রাখার অনুরোধও জানান তিনি।
এ সময় হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের সদস্য, হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ৬ জুন, ২০২০, ৯:৫৫ পিএম says : 0
    তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত দেওয়া মানবতাবিরোধী কাজ। এসব বিষয় সরকার পর্যবেক্ষণ করছে। সময়মতো তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হাসপাতালের দ্বারে দ্বারে ঘুরে রোগীর মৃত্যু কোনো ভাবেই কাম্য নয়। মন্ত্রী মোহদয় এই একই কথা কয়েকদিন যাবত পত্রিকায় বক্তব্য দিয়ে আসছেন। সরকারের মন্ত্রীরা মানছে হাসপাতালে গেলে রুগীদেরকে চিকিৎসা না দিয়েই বা অন্য হাসপাতালের নাম উল্লেখ করে বিদায় করছে ফলে অগণিত মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য সরকার এধরনের কঠিন অপরাধ করার পরও কোন ব্যাবস্থা নিচ্ছেনা। এইসব ঘটনার উপর নিন্দুকেরা বলছেন, যেসব রুগী হাসপাতালে ভর্তি হতে না পেরে মারা যাচ্ছেন এজন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হচ্ছে খুনির আসামী আর সরকার হবে খুনের সহযোগিতার আসামী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে সুন্দর ভাবেই চালাচ্ছিলেন তার সেই সফলতা দেখে অপশক্তিরা ভিতরে ভিতরে শক্তিশালী হয়ে এবার এই করোনার সুযোগে মরণ কামড় দিয়েছে বলে নিন্দুকেরা মন্তব্য করছেন। সরকার এই করোনার শুরু থেকেই সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগে আসছে অপশক্তির প্রভাবে। ইতিপূর্বে আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রশাসনে এধরনের সিদ্ধন্তহীনতা কমই দেখেছি। ডাক্তাররা যে কত জঘন্যতম নিষ্ঠুর সেটা এখানে একটা সত্য ঘটনার মাধ্যমে বলতে চাই। আমার এক নিকট আত্মিয়া নাম লাভলী আজই শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকায় মারা গেছেন। ইন্নালিল্লাহে অইন্নালিল্লাহে রাজিউন। আল্লাহ্‌ তার বিদেহি আত্মার শান্তি দিন। এটা এখানে বলার কারন হচ্ছে কয়েকদিন পূর্বে ওনার জ্বর গলা ব্যাথা ও কাশি নিয়ে চিকিৎসকের স্মরনাপন্ন হলে ওনাকে ঔষধ দিয়ে বাসায় পাঠিয়ে দেন। অবস্থার পরিবর্তন নাহলে ২/৩ দিনপর আবার চিকিৎসকের নিকট গেলে বলা হয় ডেঙ্গু হয়েছে আর তার রক্ত পরীক্ষার জন্যে নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। লাভলীর অবস্থা খারপ হলে তাঁকে আবার হাসপাতালে নেয়া হলে তাঁকে ভর্তি করে নেয়। এরমধ্যে রক্তের রেজাল্ট করোনা পজেটিভ আসে। তাঁকে আইসোলেশনে নেয়া হয় এবং সে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে মারা যায়। এখন তার এই মৃত্যুকে আমরা কি ডাক্তারের অবহেলা বলতে পারিনা?? আমি জানি এই মন্তব্য সরকার যদিও পড়বে তারপরও এদিকে নজরই দিবেনা ফলে এভাবে দেশে শত শত লোক মারা যাবে যাদের ১০০% করোনা হাবার পরও রক্ত পরীক্ষার কারনে দেখা যাবে এরমধ্যে মাত্র ১০% দেখাগেছে করোনায় মৃত্যু ও বাকী ৯০% স্বাভাবিক মৃত্যু। নিন্দুকেরা বলছেন সরকারের এই পাঁয়তারা কারন হচ্ছে সরকার দেখাতে চায় তারা করোনা নিয়ন্ত্রনে রেখেছে তাই মৃত্যু হার কম কিন্তু প্রকৃত চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। আবার এখানে চিকিৎসক ও নার্সদের উদ্দেশে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডাক্তার, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা হলো সম্মুখযোদ্ধা। তাদের যদি পলায়নপর মনোবৃত্তি হয় তা যুদ্ধের ময়দান থেকে পালিয়ে আসার মতো। নিন্দুকেরা বলছেন, মন্ত্রীর এধরনের বক্তব্যের পর এটাই প্রতিয়মান হয়েছে যে, সরকার ডাক্তার ও নার্সদের হাতে জিম্মি হয়ে আছে। আর সরকার জনগণকে সুচিকিৎসা দেয়ার জন্যে ডাক্তার ও নার্সদেরকে তেলের পর তেল মারছেন। কবি গুরুর ভাষায় বলতে হয় বাঙালীরা ডাক্তার হয়েছেন কিন্তু মানুষ হননি। এখন আমাদের সবাইকে আল্লাহ্‌র দরবারে প্রার্থনা করতে হবে আল্লাহ্‌ যেন বাঙালী ডাক্তার ও নার্সদেরকে সত্য বলার এবং সততার সাথে চলার ক্ষমতা দান করেন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ


আরও
আরও পড়ুন