Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

‘চীনা পণ্য ছাড়ো’ বিসিসিআইকে ‘চাপ’

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুন, ২০২০, ১২:০১ এএম

লাদাখ সীমান্তে ভারত-চীন উত্তেজনার মধ্যে দেশজুড়ে চীনা দ্রব্য বয়কটের ডাক উঠেছে। যার জেরে বেশ সমস্যায় পড়েছে দেশটির সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) কর্তৃপক্ষ। কারণ আইপিএলের একাধিক স্পনসর হয় চীনা, নাহয় চীন এবং ভারতের যৌথ অংশীদারদের মালিকানাধীন। লাদাখে চীনা সেনার বর্বরতার পরই আইপিএলের যাবতীয় চীনা স্পনসর বাতিল করার দাবি উঠছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই দাবি আরও জোরাল করল ‘চেম্বার অফ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’ নামের বণিকসভা। ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে (বিসিসিআই) চিঠি লিখে যাবতীয় চীনা সংস্থার সঙ্গে চুক্তি বাতিল করতে অনুরোধ করেছে তারা।

‘চেম্বার অফ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’ নামের বণিকসভার দাবি, বোর্ডকে দ্রæত চীনা সংস্থাগুলির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। বিসিসিআই যদি তা না করে, তাহলে দেশের সব ব্যবসায়ী আইপিএল বয়কট করবে। এমনকী জাতীয় দলের ম্যাচও স্পনসর করবে না তারা। উল্লেখ্য, বিসিসিআই গতকালই জানিয়েছিল চীনা সংস্থার সঙ্গে চুক্তি বাতিল করার প্রশ্ন এখনই আসছে না। যদি সরকার পুরোপুরি চীনা সংস্থা এবং স্পনসরের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে তাহলেই একমাত্র ভেবে দেখতে পারে বোর্ড। কিন্তু তারপর বিভিন্ন মহলের চাপে তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আগামী সপ্তাহে জরুরি বৈঠক করে চীনা সংস্থাগুলির সঙ্গে চুক্তির ব্যাপারটি খতিয়ে দেখা হবে।
এর প্রেক্ষিতেই চাপে পড়ে আইপিএলের সঙ্গে যে সব চীনা সংস্থা জড়িত তাদের সঙ্গে চুক্তি আর রাখা হবে কি না, তা নিয়ে আগামী সপ্তাহে বৈঠকে বসবে আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। ‘ভিভো’, ‘আলিবাবা’, ‘পেটিএম’-সহ সমস্ত চীনা সংস্থারই ভাগ্য নতুন করে নির্ধারণ হবে! ভারতীয় বোর্ডের ‘সোনার হরিণ’ আইপিএলেরই টাইটেল স্পনসর ‘ভিভো’। যা কিনা চীনা মোবাইল সংস্থা। এ ছাড়াও ছোটখাটো বেশ কিছু চীনা সংস্থা ভারতীয় ক্রিকেট টিমের সঙ্গে জড়িত। ভারতীয় দলের পূর্বতন স্পনসর ছিল ‘অপ্পো’। যা চীনা সংস্থা। বর্তমানে ‘বাইজু’ তাতেও শোনা যাচ্ছে চীনের অংশ আছে। এদের সকলের ভাগ্য নির্ধারণ হবে আগামী সপ্তাহে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিসিসিআই


আরও
আরও পড়ুন