Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাত

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জুন, ২০২০, ১২:০১ এএম

ডেইরিখাতে কোভিডের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে আগামী অর্থবছরের জন্য বরাদ্দ ৩ হাজার ১৯৩ কোটি থেকে বাড়িয়ে ৫ হাজার কোটি টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ডেভেলপমেন্ট ফোরাম (বিডিডিএফ)। একইসাথে সংগঠনটি খামারিদের গো-খাদ্য ও খামারের উপকরণ ক্রয়ের জন্য ভর্তুকি প্রদানের দাবি করা হয়েছে। 

গতকাল এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি এসব প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. কে বি এম সাইফুল ইসলাম।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বাংলাদেশে প্রতিদিন গড়ে প্রায় দুই থেকে আড়াই কোটি লিটার তরল দুধ উৎপাদন হয়, যার বাজার মূল্য ১২০ কোটি টাকা। করোনার কারণে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কৃষি ও প্রাণিসম্পদ খাত। মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে মে’র প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত মাত্র দেড় মাসে কৃষকের লোকসান হয়েছে ৫৬ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা। কারণ, কৃষি ও প্রাণিসম্পদ খাতের উৎপাদিত পণ্যসমূহ উচ্চপচনশীল এবং তা স্বল্প সময়ের মধ্যে বাজারজাত করতে হয়। করোনার ফলে খামারিরা তাদের উৎপাদিত দুধ বিক্রি করতে না পারায় আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।
এছাড়া খামারিরা গাভিগুলোকে পর্যাপ্ত গো-খাদ্য সরবরাহ করতে পারছে না, ফলে গবাদি পশুর নানা অসুখ ও স্বাস্থ্যগত সমস্যা তৈরি হচ্ছে। পাশাপাশি বিপণন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় দুগ্ধ প্রক্রিয়াজাত কোম্পানিগুলোও সক্ষমতা অনুযায়ী দুধ সংগ্রহ, প্রক্রিয়া ও বিক্রয় করতে পারছে না। ফলে দুগ্ধ প্রক্রিয়াজাত কোম্পানিগুলোর বিক্রয় প্রায় ৫০ শতাংশে নেমে এসেছে। এতে ডেইরি খাত সবকিছু মিলিয়ে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন।
সংগঠনটির নেতারা বলেন, খামারের উৎপাদন অব্যহত রাখার জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গো-খাদ্যে ভর্তুকি দিচ্ছে। বাংলাদেশের কৃষিখাতেও প্রস্তাবিত বাজেটে ভর্তুকির পরিমাণ ৯ হাজার ৫শ’ কোটি টাকা। কিন্তু ডেইরিখাতের জন্য আলাদাভাবে এ ধরনের কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তারা করোনা পরিস্থিতিতে প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র খামারিদের সুরক্ষায় গো-খাদ্যের ওপর ভর্তুকি প্রদানের দাবি করা হয়। সংগঠনটির পক্ষ থেকে সকল প্রকার দুগ্ধ এবং দুগ্ধজাতপণ্যে কমপক্ষে ২৫ শতাংশ আমাদানি শুল্ক আরোপ, দেশে উৎপাদিত সব ধরনের ডেইরি পণ্যে শূন্য কর নির্ধারণ, ডেইরি উপকরণে আমদানি শুল্ক হ্রাস, বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধ করার প্রস্তাবসহ মোট ১২টি সুপারিশ তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বিডিডিএফ সহসভাপতি উজমা চৌধুরী ও ড. কাজী ইমদাদুল হক, প্রচার সম্পাদক মো. মুতাসীম বিল্লাহ প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মৎস্য-প্রাণিসম্পদ-খাত
আরও পড়ুন