Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

সুন্দরগঞ্জে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি, ভাঙ্গনে বিলিন হচ্ছে বাড়ি ঘর

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৬ জুন, ২০২০, ৫:১২ পিএম

উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢল এবং অবিরাম বর্ষনে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে নদ- নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। চরাঞ্চলের বসতবাড়ি ও উঠতি তোষাপাটসহ নানাবিধ ফসলের ক্ষেতে আগমন ঘটছে পানির। উপজেলার তারাপুর,বেলকা, হরিপুর, চন্ডিপুর,শ্রীপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার নদীর বিভিন্ন চরে পানি উঠতে শুরু করেছে। এক সপ্তাহ থেকে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে শুরু হয়েছে নদী ভাঙ্গন। সপ্তাহের ব্যবধানে শতাধিক বসতবাড়ি বিলিন হয়েছে নদী গর্ভে। বসতভিটাসহ ঘর-বাড়ি হারিয়ে ভাঙ্গন কবলিত পরিবারগুলো দিশেহারা হয়েছে। হরিপুর ইউনিয়ন আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান জানান,পাড়াসাদুয়া গ্রামে ব্যাপক হারে নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান নাফিউল ইসলাম জিমি জানান, তাঁর ইউনিয়নের কাশিম বাজার ও পাড়াসাদুয়া এলাকায় নদী ভাঙ্গনে ৩০ পরিবার বিলিন হয়েছে এবং বিভিন্ন চরে পানিবন্ধী হয়েছে শতাধিক পরিবার। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে আগামী ২/১ দিনের মধ্যে দুই/তিন হাজার পরিবার পানিবন্ধী হয়ে পড়বে। কাপাসিয়া ইউপি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন জানান,গত এক সপ্তাহে নদী ভাঙ্গনে তার ইউনিয়নে ৭০/৮০ টি পরিবার বিলিন হয়েছে। নদী ভাঙ্গন ও বন্যার আগমনে চরাঞ্চলের মানুষ হয়েছে দিশেহারা। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সৈয়দ রেজা-ই মাহমুদ বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শন করতে গিয়ে সেখান থেকে জানান, এ পর্যন্ত ১০ হেক্টর তোষা পাট,কাউন ৩ হেক্টর ও সবজি ২ হেক্টর পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ