Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

কুড়িগ্রামে বন্যায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২০, ৯:৩৮ এএম

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে কুড়িগ্রামে ধরলা ও ব্রহ্মপূত্র নদের পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। রোববার সকালে ধরলার পানি কুড়িগ্রাম ব্রীজ পয়েন্টে বিপদসীমার ৬২ সে.মি ও ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ৬৪সেন্টিমিটার ও নুন খাওয়া পয়েন্টে৫০ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।
জেলার ছোট-বড় ১৬টি নদ-নদী পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার ৯টি উপজেলার ৪৭টি ইউনিয়নে আংশিক পানি প্রবেশ করেছে। এরমধ্যে ২২টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়াও গেল এক সপ্তাহের নদ-নদীর ভাঙনে জেলায় প্রায় দু’শতাধিক বাড়িঘর নদী গর্ভে গেছে।
নিম্নাঞ্চলের ঘরবাড়িতে বন্যার পানি ওঠায় পরিবারের লোকজনের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছে। চরাঞ্চলের আবাদি ফসলাদি পানিতে তলিয়ে গেছে। ক্ষতি হয়েছে তিল, চিনা, বাদাম ও সবজিক্ষেতের।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ সূত্রে জানাযায়, পাট-১০৭৫ হেক্টর, আমন বীজতলা ৩৮ হেক্টর,আউশ-৩৭২ হেক্টর, সবজি-১২০ হেক্টর, তিল-১১০ হেক্টর, কাউন-০৫হেক্টর, মরিচ-১০ হেক্টরসহ ১৬৯২ হেক্টর ফসলী জমি বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে।
জেলা প্রশাসক মোঃ রেজাউল করিম জানান,ভাঙন কবলিত এবং বানভাসীদের সরিয়ে আনতে কাজ করছে জেলা প্রশাসন। এছাড়াও উপজেলা পর্যায় ৩০২ মে.টন চাল এবং ৩৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা পরিস্থিতি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ