Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

রাজনৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য নয় অভিবাসীদের প্রতি বিদ্বেষ

ঐতিহ্য থেকে বেরিয়ে জাপানের অভিবাসন সম্প্রসারণ-শেষ পর্ব

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ জুন, ২০২০, ১২:০২ এএম

মারিয়ার স্বামী একটি আন্তর্জাতিক বিদ্যালয়ের রক্ষণাবেক্ষণ কর্মী এবং তাদের মেয়ে, যিনি একটি রামেন কারখানায় কাজ করেন, তাদের সাথে থাকেন। মারিয়া বলেন, ‘আমি মনে করি আমি অনুভব করতে শুরু করেছি যে, আমি এখানকার। আমি এখানে এত দিন ছিলাম। লোকেরা সাধারণত মিশুক। আমি মাঝে মাঝে দুর্ব্যবহারের সম্মুখীন হই, তবে এটি বেশিরভাগই বয়স্ক লোকের দ্বারা। অল্প বয়সীদের দ্বারা কখনই নয়।’ তবে, জাপানের বিস্তৃত বিজাতি বিদ্বেষ কোনো কল্পকাহিনী নয়।
২০১০ সালে জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার বিশেষজ্ঞরা বর্ণবাদ, বৈষম্য এবং অভিবাসী শ্রমিকদের শোষণের জন্য জাপানকে তলব করে। বর্ধিত অভিবাসন দেশের কুখ্যাত ও কঠোর আশ্রয়নীতিগুলি বদলে দেয়নি। ২০১৮ সালে প্রায় ১০ হাজার আবেদনকারীর মধ্যে কেবল ৪২ জন আশ্রয়প্রার্থীর আবেদন অনুমোদিত হয়েছিল।
বেশিরভাগ বিদেশি এখানে নৈমিত্তিক বর্ণবাদের প্রচুর উপাখ্যান ভাগ করে নিতে পারেন। টোকিওতে দুই দশক ধরে বসবাসকারী আফ্রিকান আমেরিকান বায়ি ম্যাকনিল বলেছিলেন যে, তিনি প্রায় প্রতিদিন বর্ণবিদ্বেষের মুখোমুখি হন। তবে তা এখনও আমেরিকার মতো খারাপ নয়। কয়েক বছর আগে ম্যাকনিল একটি ভাইরাল ব্লগ পোস্ট লিখেছিলেন, যেটিতে তিনি ‘গাইজিন আসন’ সম্পর্কে মন্তব্য করেন।
জাপানিজ ভাষায় গাইজিন অর্থ বিদেশি এবং ম্যাকনিল লেখেন যে, যখনই তিনি পাতাল রেলে বসেন এবং তার পাশের আসনটি খালি থাকে। স্থানীয়রা সেখানে বসে থাকতে অস্বীকৃতি জানান। তিনি বলেন, ‘সাধারণত, আমি জাপানি ভাষায় লোকদের বলতে শুনি যে, কোনও কালো ছেলের পাশে বসে থাকা খুব ভীতিকর।’ ম্যাকনিল আরো বলেছিলেন যে, তবুও তিনি আমেরিকার মজ্জাগত জাতিবিদ্বেষের চেয়ে জাপানের নৈমিত্তিক বর্ণবাদকে শ্রেয় মনে করেন। তিনি জাপানের বর্ণবাদকে বালিশ লড়াইয়ে আঘাত হানার মতো লঘু মনে করেন।
আমেরিকার বর্ণবাদ বিরোধী ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনের সমর্থনে বিশ্বব্যাপী বিক্ষোভ জাপানে মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। জুনের প্রথম দিকে হাজার হাজার মানুষ টোকিওতে ব্ল্যাক লাইভ ম্যাটারের প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিল, যা অভিবাসী এবং বিদেশীদের হয়রানির বিষয়ে দেশব্যাপী বিতকের্র পাশাপাশি জাতিগত মনস্তত্বেও ভূমিকা রেখেছে। ব্যবসাবিষয়ক অধ্যাপক ইয়াশিরো বলেছিলেন যে, তিনি আসন্ন বছরগুলিতে জাপানে প্রচুর সামাজিক সঙ্ঘাত প্রত্যাশা করছেন। কারণ কয়েক হাজার নতুন অভিবাসী বৈচিত্রে অভ্যস্ত নয় এমন একটি দেশে পৌঁছবেন। তবে ওগুমা এবং অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, জাপানে সংগঠিত রাজনৈতিক অসন্তোষ তো দূরের কথা, কোনও জাতীয়তাবাদী প্রতিক্রিয়ার প্রকাশও দেখা যায় না।
যদি কোনও জাতিবিদ্বেষ অবশেষে উত্থিত হয়, তবে এটি দেখতে কেমন হবে? বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞরা বলেছিলেন যে, এটির কোনও সংগঠিত রাজনৈতিক আকার নেয়ার সম্ভাবনা নেই। ওগুমা বলেছিলেন, ‘বিজাতি বিদ্বেষী জাতীয়তাবাদীরা সাধারণত রাজনীতিতে অপ্রাসঙ্গিক। যদি কোনও প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, তবে তা সম্ভবত টোকিওর বিরুদ্ধে স্থানীয় গণজাগরণের সূচনা করবে, যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতোই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে জনসাধারণের বিদ্রোহ।’
তবে, কোভিড-১৯ মহামারী পরবর্তী রাজনৈতিক পরিণতি সম্পর্কে অনুমান করা শক্ত। প্রচুর প্রনোদনা ব্যয় এবং একটি শক্তিশালী ও সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে জাপান মোটামুটিভাবে মহামারীটিকে মোকাবেলা করেছে। দেশটির গত এপ্রিলের বেকারত্ব ছিল আড়াই শতাংশ। জাপানে বৈদেশিক কর্মীদের উপর বর্ণবাদী হয়রানির বর্ধিত কিছু ঘটনায় দেশটির বিশ্বায়ন ও অভিবাসন নিয়ে সংশয় থাকলেও, এই মুহূর্তে জাপান বিশ্বের এমন কয়েকটি দেশগুলির মধ্যে একটি যেখানে অভিবাসীদের বিরুদ্বে বিদ্বেষ রাজনৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য নয়। (সমাপ্ত)



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাপান

৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন