Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ১২ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

জাদুকর বেনজেমায় সওয়ার রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ জুন, ২০২০, ১২:০১ এএম

বার্সেলোনাকে পরিষ্কার ব্যবধানে পেছনে ফেলে রিয়াল মাদ্রিদকে লিগ শীর্ষস্থান এনে দেওয়া গোলটি করেছেন কাসেমিরো। কিন্তু ফুটবল বিশ্লেষক কিংবা সাধারণ সমর্থক—কারও মুখেই এই ব্রাজিলিয়ানের নাম নেই। সবাই মেতেছেন করিম বেনজেমার প্রশস্তিতে। নয় নম্বর জার্সিধারী ‘সহজাত দশ’ বেনজেমাই গতপরশু কেড়ে নিয়েছেন সব আলো।
লিগে সবার নিচে থাকা দলের সঙ্গে খেলা। কিন্তু এসপানিওলের বিপক্ষে ধুঁকেছে রিয়াল। জিতলেই বার্সেলোনার চেয়ে দুই পয়েন্ট এগিয়ে যাওয়ার সুযোগের চাপ কিংবা টানা ম্যাচ খেলার ধকলের প্রভাব দেখা গেছে কাল। এরপরও ম্যাচটা বের করে এনেছে জিনেদিন জিদানের দল। ৪৫ মিনিটে কাসেমিরোর একমাত্র গোলই ব্যবধান গড়ে দিয়েছে দুই দলের।
৪৫ মিনিটে যে কাজটা করেছেন বেনজেমা, সেটা বর্ণনা করা বেশ কঠিন। ক্রস থেকে পাওয়া বল নিয়ে ডি-বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়েছিলেন বেনজেমা। কিন্তু গোল পোস্টের ভুল দিকে চলে গিয়েছিলেন। ওই অবস্থায় তাঁকে নিয়ে ব্যস্ত ছিল এসপানিওলের দুই ডিফেন্ডার ও গোলরক্ষক ডিয়েগো লোপেজ। এ অবস্থাতে সবাইকে চমকে দিয়ে ব্যাকহিল করেন ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ড। পেছন থেকে দৌড়ে আসা কাসেমিরো প্রায় ফাঁকা পোস্টেই গোল দিয়েছেন। ম্যাচ শেষে তাই জিদানের সব প্রশংসা বেনজেমার জন্য, ‘আমাকে এটা অবাক করে না। সে এমন এক খেলোয়াড় যে এসব সুযোগ সৃষ্টি করতে পারে। এরপর কাসেমিরোও জায়গামতো ছিল। এটা হয়তো পুরো লিগেরই সেরা মুহূর্ত ছিল।’
শুধু জিদান কেন, গোলদাতা কাসেমিরোই তো বলছেন, এটা তার নয় বেনজেমারই গোল, ‘করিম যা করলেন, সেটা আমার কাছে স্বাভাবিক মনে হয়েছে। আমরা সবাই জানি ওর যে গুণ সেটা নম্বর নয়ের (প্রথাগত স্ট্রাইকার) না, বরং একজন দশের (প্লে মেকার)। আমি ওকে জানি, আমি জানি তিনি কীভাবে খেলেন এবং কী দক্ষতা আছে। আমি ফাঁকায় বল চেয়েছিলাম এবং ওর ব্যাকহিলটা অসাধারণ ছিল। এটা করিমের গোল। এটা একজন দশ নম্বরের ব্যাক হিল এবং তাঁকে অভিনন্দন জানাতেই হবে।’
যাঁকে নিয়ে এমন প্রশংসার খই ফুটছে, সেই বেনজেমা অবশ্য নির্বিকার, ‘এটা ভালো একটা মুভমেন্ট ছিল। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এর পর যে গোলটা হয়েছে সেটা। কাসেমিরো ঠিকভাবে কাজটা করেছে। আমরা সবাই খুশি। আমি এভাবেই ফুটবলটা দেখি। আমি জানতাম কাসেমিরো আমার পেছনে আছে।’
এমন ‘জানাতাম’ ধরে নিয়ে আধুনিক ফুটবলের অন্যতম সেরা মুহূর্ত উপহার দিয়েছিলেন গুতি। ২০১০ সালে দেপোর্তিভোর বিপক্ষে ডি-বক্সে সামনে শুধু গোলরক্ষক থাকা অবস্থায় ব্যাকহিল করেছিলেন গুতি। সেবার সে ব্যাকহিলের সুবিধা নিয়েছিলেন বেনজেমা। গতকাল সে বেনজেমাকে সে ঋণ শোধ করতে দেখে গুতিও মুগ্ধ। টুইট করেছেন, ‘বন্ধু, জাদু। ভয়ংকর!’
দুই বছর পর লিগ জিততে চাইলে রিয়ালের এই জাদুকরি বেনজেমাকে দরকার হবে আগামী ছয় ম্যাচেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন