Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১২ আগস্ট ২০২০, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ২১ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

পাকিস্তানের প্রথম নারী লেফটেন্যান্ট জেনারেল হলেন নিগার জোহর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ জুলাই, ২০২০, ১২:০২ এএম

ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে দেশটি নানা সংকট কাটিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্ব নতুন এক পাকিস্তানকে দেখতে পাচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদে পদোন্নতি পেয়েছেন নিগার জোহর নামের এক নারী কর্মকর্তা। পাকিস্তানের ইতিহাসে তিনিই হলেন এই পদমর্যাদা পাওয়া প্রথম নারী।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে নিগার জোহরের পদোন্নতির কথা নিশ্চিত করা হয়। পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ দফতরের (আইএসপিআর) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল বাবর ইফতেখার জানিয়েছেন, একই সঙ্গে ওই কর্মকর্তাকে দেশের ইতিহাসে প্রথম নারী সার্জন জেনারেল হিসেবেও নিয়োগ দেয়া হয়েছে। একই সাথে, এই প্রথম কোনো নারী পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর মেডিকেল কোরের প্রধান হলেন। এই পদোন্নতিকে পাকিস্তানি নারীদের ক্ষমতায়নের পথে একটি মাইলফলক আখ্যা দিয়েছেন দেশটির বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা।

নিগার জোহর আফগানিস্তানের প্রবেশদ্বার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের সোয়াবির বাসিন্দা। বর্তমানে তিনি সামরিক হাসপাতাল রাওয়ালপিন্ডিতে কমান্ড্যান্টের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ২০১৭ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ইতিহাসে তৃতীয় নারী হিসেবে মেজর জেনারেল র‌্যাঙ্ক পান। সামরিক পরিবার থেকে উঠে আসা নিগার জোহরের বাবা কর্নেল কাদির পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই’এ কাজ করেছেন। তার চাচা অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ আমিরও আইএসআই’এ কাজ করেছেন। ৩০ বছর আগে এক গাড়ি দুর্ঘটনায় নিগার জোহরের বাবা-মায়ের মৃত্যু হয়।

পাকিস্তান সরকারের তথ্য অনুযায়ী নিগার জোহর কেবল একজন ডাক্তারই নন তিনি দক্ষ একজন শ্যুটারও। রাওয়ালপিন্ডিতে স্কুল জীবন শেষ করে তিনি ১৯৮৫ সালে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ২০১৫ সালে তিনি লাহোরের হেলথ সাইন্স বিশ্ববিদ্যাল থেকে জনস্বাস্থ্যের ওপর মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। সশস্ত্রবাহিনীর একটি হাসপাতাল বা ইউনিট পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়া প্রথম নারী কর্মকর্তা হওয়ার সম্মানও রয়েছে তার ঝুলিতে।

নবনিযুক্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল নিগার জোহরকে অভিনন্দন জানিয়ে পাকিস্তান ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির বিরোধী দলীয় নেতা শাহবাজ শরিফ বলেছেন, এর মধ্য দিয়ে দেশের মেয়ে শিশু ও তরুণ নারীদের কাছে একটি জোরালো বার্তা যাবে। পিএমএল-এন নেতা আহসান ইকবাল নিগার জোহরের এই অর্জনকে পাকিস্তানের সেইসব নারীদের অর্জন আখ্যা দেন যারা জাতীয় উন্নয়নের সব ক্ষেত্রেই জোরালো ভূমিকা রাখছে। সূত্র : ডন।



 

Show all comments
  • Md Rokon ২ জুলাই, ২০২০, ১:২৯ এএম says : 2
    Congratulations
    Total Reply(0) Reply
  • Ovijit Ovi ২ জুলাই, ২০২০, ১:২৯ এএম says : 1
    নারী নেতৃত্ব হারাম
    Total Reply(0) Reply
  • Sirajul Islam ২ জুলাই, ২০২০, ১:২৯ এএম says : 0
    তাতে কি বিসিএস ক্যাডার তো আর হতে পারে নাই
    Total Reply(0) Reply
  • Md Tawhidul Islam ২ জুলাই, ২০২০, ১:৩০ এএম says : 1
    নারী নেতৃত্ব হারাম.... পাকিস্তান হলে সেটা ভিন্ন কথা
    Total Reply(0) Reply
  • MD Mostofa ২ জুলাই, ২০২০, ১:৩০ এএম says : 0
    Congratulations
    Total Reply(0) Reply
  • নাসিম ২ জুলাই, ২০২০, ১:৩১ এএম says : 3
    শুভ কামনা রইলো। তবে পর্দার বিধান কোনোভাবেই ছোট করে দেখতে পারে না সত্যিকারের মুসলিমরা।
    Total Reply(0) Reply
  • Jack Ali ২ জুলাই, ২০২০, ৬:১২ পিএম says : 0
    We are muslim, of course women should know how to fight.. But their are allow to be PM/commander in Army... Allah Ordered Muslim women to weal Hizab and she is naked. We muslims are far away from Islam..
    Total Reply(0) Reply
  • Mozammel ৩ জুলাই, ২০২০, ৯:১১ পিএম says : 0
    It is matter pride that our ladies can also be DGMS AMC to lead a corps effectively.Let see.Congratulation.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান

১০ আগস্ট, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ