Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৭ আগস্ট ২০২০, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৬ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

বিদেশি বিনিয়োগে খরা

নিট বিনিয়োগ কমেছে ১৯.০৪ শতাংশ : বাণিজ্যে ঘাটতি ১৬.০৭ বিলিয়ন ডলার : বৈশ্বিক এফডিআই পতন হতে পারে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত : আকর্ষণে ব্যাংকিং জটিলতা কামানোর নির্দেশ অর্থ মন্ত্রণালয়ের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

মহামারি করোনায় বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বিদেশি বিনিয়োগে। সদ্যসমাপ্ত (২০১৯-২০) অর্থবছরের (জুলাই-মে) ১১ মাসে দেশে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আশঙ্কাজনকভাবে কমেছে। অন্যদিকে দেশের শেয়ারবাজারের বিদেশিরা যে পরিমাণ বিনিয়োগ (পোর্টফোলিও ইনভেস্টমেন্ট) করেছে তার চেয়ে বেশি তুলে নিয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যের ওপর করা হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে।

অবশ্য ইতোমধ্যে করোনার সংক্রমণ প্রেক্ষাপটে চলতি বছর বৈশ্বিক প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের (এফডিআই) পতন হতে পারে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত। একই সঙ্গে ২০২১ সালে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা আঙ্কটাড (ইউএনসিটিএডি)। আঙ্কটাড তার বিশ্ব বিনিয়োগ প্রতিবেদন ২০২০-এ বলছে, ২০১৯ সালে এফডিআই হয়েছিল ১ দশমিক ৫৪ ট্রিলিয়ন ডলার সমমূল্যের। এর বিপরীতে চলতি বছর এফডিআইয়ের পরিমাণ ২০০৫ সালের পর সর্বপ্রথম ১ ট্রিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে আসতে পারে। এছাড়া ২০২১ সালে বেসরকারি খাতে আন্তঃসীমান্তীয় বিনিয়োগ হ্রাস পেতে পারে ৫ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত। ২০২২ সালের আগে এ অবস্থা থেকে উত্তরণ সম্ভব হবে না।

এদিকে, করোনায় যেমন জীবন-জীবিকার ঝুঁকি রয়েছে, অন্যদিকে উঁকি দিচ্ছে সম্ভাবনা। করোনার প্রভাবে বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে। চীন থেকে অনেক বিদেশি বিনিয়োগ অন্য দেশে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। এসব বিনিয়োগ দেশে আনতে ইতোমধ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। এবার বিদেশি বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করতে বিনিয়োগকারীরা যাতে তাদের অর্থ-লভ্যাংশ সহজে নিজ দেশে বা অন্যত্র নিয়ে যেতে পারেন, সেজন্য ব্যাংকিং জটিলতা কমানোর জন্য পদক্ষেপ নিতে বাংলাদেশ ব্যাংককে সম্প্রতি চিঠি দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, দেশে গত অর্থবছরের ১১ মাসে বিভিন্ন খাতে সবমিলিয়ে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) এসেছে ৩৭২ কোটি ৮০ লাখ ডলার, এর মধ্যে নিট বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ১৯৬ কোটি ৫০ লাখ ডলার। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জুলাই-মে সময়ে এফডিআই ছিল ৪৩২ কোটি ৫০ লাখ ডলার এবং যার মধ্যে নিট এফডিআই ছিল ২৪২ কোটি ৭০ লাখ ডলার। সে হিসাবে আগের অর্থবছরের চেয়ে গত অর্থবছরের ১১ মাসে এফডিআই কমেছে ১৩ দশমিক ৮০ শতাংশ এবং নিট এফডিআই কমেছে ১৯ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।
আলোচিত সময়ে শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ (পোর্টফোলিও ইনভেস্টমেন্ট) যা এসেছিল তার চেয়ে বেশি তুলে নেয়া হয়েছে। আগের অর্থবছরেও দেশের শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ কম ছিল। এবার এক্ষেত্রে ধস নেমেছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জুলাই-মে সময়ে শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ (নিট) ছিল ১৬ কোটি ২০ লাখ ডলার। সদ্যসমাপ্ত ২০১৯-২০ অর্থবছরের এই ১১ মাসে বিদেশিরা যে পরিমাণ বিনিয়োগ করেছেন, তার থেকে ৭০ লাখ ডলার বেশি তুলে নিয়ে গেছেন। করোনায় রফতানিতে নেতিবাচক প্রভাবে বৈদেশিক বাণিজ্যে বড় ঘাটতিতে পড়েছে বাংলাদেশ। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে দেশের পণ্য বাণিজ্যে ঘাটতি দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৬০৬ কোটি ৯০ লাখ (১৬ দশমিক ০৭ বিলিয়ন) ডলার। বহির্বিশ্বের সঙ্গে লেনদেনে বাংলাদেশের অবস্থাও ঋণাত্মক রয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন বলছে, গত অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে ইপিজেডসহ রফতানি খাতে বাংলাদেশ আয় করেছে তিন হাজার ১৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এর বিপরীতে আমদানি বাবদ ব্যয় করেছে চার হাজার ৬২৪ কোটি ৪০ লাখ ডলার। সেই হিসাবে মে শেষে দেশে বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৬০৬ কোটি ৯০ লাখ ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় (বিনিময় হার ৮৫ টাকা ধরে) প্রায় এক লাখ ৩৬ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকা। ঘাটতির এ অংক ২০১৮-১৯ অর্থবছরের একই সময় ছিল এক হাজার ৪৯৭ কোটি ৮০ লাখ ডলার। আলোচিত সময়ে আমদানি কমেছে ১০ দশমিক ৮১ শতাংশ। রফতানি কমেছে ১৮ দশমিক ১৬ শতাংশ। তবে রেমিট্যান্স বেড়েছে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে বহির্বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের চলতি হিসাবে উদ্বৃত্ত থাকলেও গত সেপ্টেম্বর থেকে তা ঋণাত্মক হয়েছে। মে শেষে লেনদেন ভারসাম্যের ঘাটতিতে পড়েছে বাংলাদেশ।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চলতি হিসাবে উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হলো নিয়মিত লেনদেনে দেশকে কোনো ঋণ করতে হচ্ছে না। আর ঘাটতি থাকলে সরকারকে ঋণ নিয়ে তা পূরণ করতে হয়। সেই হিসাবে উন্নয়নশীল দেশের চলতি হিসাবে উদ্বৃত্ত থাকা ভালো। কিন্তু গত কয়েক বছর উদ্বৃত্তের ধারা অব্যাহত থাকলেও গেল অর্থবছরে ঋণাত্মক ধারায় চলে গেছে।

গত অর্থবছরের মে শেষে চলতি হিসাবে ৪৩৭ কোটি ৪০ লাখ ডলার ঋণাত্মক হয়েছে। তবে চলতি অর্থবছরের সার্বিক রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ার কারণে প্রথম ১১ মাসে সামগ্রিক লেনদেনে বাংলাদেশের উদ্বৃত্ত দাঁড়িয়েছে ১৬৩ কোটি ১০ লাখ ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে সামগ্রিক লেনদেনে ঘাটতি ছিল ৬৮ কোটি ডলার।
আলোচিত সময়ে সেবাখাতে বাণিজ্য ঘাটতি কিছুটা কম রয়েছে। বিদেশিদের বেতনভাতা পরিশোধ, মূলত বিমা, ভ্রমণ ইত্যাদি খাতের আয়-ব্যয় হিসাব করে সেবা খাতের বাণিজ্য ঘাটতি পরিমাপ করা হয়। জুলাই-মে সময়ে এ খাতে ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ২৭৩ কোটি ১০ লাখ ডলার। যা তার আগের অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ২৯৪ কোটি ৯০ লাখ ডলার।

আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশ (অ্যামচাম) সভাপতি সৈয়দ এরশাদ আহমেদ বলেন, করোনা সঙ্কট কেটে গেলেও সামনে আমাদের জন্য মারাত্মক পরিস্থিতি অপেক্ষা করছে। একই সঙ্গে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আকর্ষণেও নানামুখী সমস্যার মুখোমুখী হতে হবে। তাই দেশে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে দ্রুত প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ