Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ২০ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

মধ্যপ্রাচ্য থেকে খালি হাতে ফিরছে কর্মহীন প্রবাসীরা

বহু প্রবাসী কর্মী দেশে ফেরার অপেক্ষায়

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ জুলাই, ২০২০, ৬:১৯ পিএম

করোনা মহামারীর কারণে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে কর্মহীন প্রবাসী কর্মীদের খালি হাতে দেশে ফেরা অব্যাহত রয়েছে। সংশ্লিষ্ট দেশের কোম্পানীতে কাজ না থাকায় প্রবাসী কর্মীরা দেশে ফিরতে বাধ্য হচ্ছে। করোনার কারণে প্রবাসী কর্মীদের স্বপ্ন চুরমার হয়ে যাচ্ছে। চড়া সুদে ঋণ ও ভিটেমাটি বিক্রি করে বিদেশে গিয়ে অধিকাংশ কর্মীই অভিবাসন ব্যয়ের টাকাও তুলতে পারেনি।

এদিকে, নতুন ভিসাপ্রাপ্ত কর্মী ও বিভিন্ন দেশ থেকে ছুটিতে আসা প্রায় দেড় লাখ বাংলাদেশি কর্মীর বিদেশে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এতে রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো কোটি কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন। আটকে পড়া এসব কর্মীরা পরিবার পরিজন নিয়ে দুর্বিষহ জীবন যাপন করছে। তাদের ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে যাচ্ছে। ফলে তারা চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছে।

এদিকে, আজ বুধবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে এযাবত প্রায় ২২ হাজার কর্মী দেশে ফিরেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে বিভিন্ন দেশে কর্মহীন হয়ে পড়া বাংলাদেশি কর্মীরা যাতে করোনা পরবর্তী সময়ে পুনরায় কর্মে নিয়োগ পেতে পারেন সেজন্য বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে সরকার।তিনি বলেন, প্রত্যাগত কর্মীদের স্বল্প সুদে সরকার প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে দু’ধাপে সাতশ’ কোটি টাকা ঋণ দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তেল সমৃদ্ধ দেশ কুয়েত থেকে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, কুয়েতে করোনার কারণে প্রায় আড়াই লাখ বাংলাদেশি কর্মী চরম হতাশায় ভুগছে। দেশটিতে প্রায় বিশ হাজার অবৈধ বাংলাদেশি রয়েছে। দেশটির সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় কয়েক হাজার কর্মী বিনা জরিমানায় কুয়েত সরকারের খরচে দেশে ফিরতে নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করে চারটি অস্থায়ী ক্যাম্পে অপেক্ষা করছে। মঙ্গলবার রাতে কুয়েত এয়ারওয়েজের একটি বিশেষ ফ্লাইট (কিউ ইউ-১২৮৩) যোগে ২৭০ জন কর্মী খালি হাতে দেশে ফিরেছে। রাতে সিঙ্গাপুর থেকে চাকরি হারিয়ে (ফ্লাইট বি এস-৩৭২) যোগে ৬০ জন কর্মী ঢাকায় পৌঁছেছে। প্রত্যাগত এসব কর্মী জানায়, তারা দেশটিতে ভালো বেতনেই কাজ করছিল। করোনার কারণে চাকরি হারিয়ে তাদের বাধ্য হয়েই দেশে ফিরতে হলো। আজ দুপুরে কাতারের দোহা থেকে কাতার এয়ারওয়েজের একটি বিশেষ ফ্লাইট (কিউ আর-৬৩৮) কর্মহীন ২০০ প্রবাসী কর্মী ঢাকায় পৌঁছেছে। বিমানবন্দরের নির্ভরযোগ্য সূত্র এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। দুপুরে (এফ জেড-৮০৭৪) যোগে দুবাই থেকে ১২০ জন কর্মী এবং আজ বিকেল ৪টায় অপর ফ্লাইট (বি এস-৩৮২) যোগে দুবাই থেকে আরো ১৩০ জন কর্মহীন কর্মী খালি হাতে ঢাকায় পৌঁছেছে। প্রত্যাগত কয়েক জন কর্মী জানায়, দেশটিতে কোম্পানীতে কাজ না থাকায় অনেক বাংলাদেশি দেশে ফেরার জন্য অপেক্ষা করছে। আটাবের সাবেক মহাসচিব আসলাম খান আজ ইনকিলাবকে বলেন, করোনা মহামারীতে চাকরি হারিয়ে প্রবাসী কর্মী দেশে ফেরা অব্যাহত থাকলে শ্রমবাজারে বিপর্যয় নেমে আসবে। তিনি বলেন, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স দেশের অর্থনীতির চাকাকে গতিশীল রাখছে। করোনা পরবর্তী নতুন নতুন শ্রমবাজার সন্ধানের কার্যক্রম এখন থেকেই শুরু করতে হবে। করোনা মহামারীতে প্রতিদিন ট্রাভেল ও ট্যুরিজম খাতে একশত কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। এ সেক্টরকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার ওপরগুরুত্বারোপ করেন তিনি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মধ্যপ্রাচ্য


আরও
আরও পড়ুন