Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

মুসলিম তরুণদের সামাজিক সক্রিয়তা জার্মানিতে বেড়েছে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ জুলাই, ২০২০, ১১:০৫ এএম

জার্মানিতে দিন দিন মুসলিমদের সংখ্যা বাড়ছে। আর এই কারণেই মুসলিম তরুণদের সামাজিক কাজে অনেক বেশি অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। পাশাপাশি নারীরাও এসব কাজে অংশ নেন।

জার্মানির পেডাগজিকাল ইউনিভার্সিটি অফ কার্লসরুহের ইনস্টিটিউট ফর ইসলামিক থিওলজি ও রিলিজিয়াস এডুকেশনে গবেষণাটি করা হয়৷ গবেষণার পরিচালক ইয়র্গ ইমরান শ্র্যোটার জানিয়েছেন, ১৪ থেকে ৩৪ বছর বয়সী প্রায় সাতশ' তরুণের ওপর জরিপ চালানো হয়েছে৷ তবে এরা উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থী এবং গবেষণায় স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে অংশ নিয়েছেন৷ জরিপটি অনলাইনে করা হয়৷

গবেষণায় দেখা গেছে, সাতশ' তরুণের মধ্যে ৬১ ভাগ জানিয়েছেন তারা সামাজিক নানা কাজে সক্রিয়৷ এর বিনিময়ে বেশিরভাগই কোন টাকাও নেন না৷ এর বাইরে আরো ২০ ভাগ সামাজিকভাবে সক্রিয় হতে চান এবং ১১ ভাগ জানিয়েছেন, তারা আগে সম্পৃক্ত ছিলেন৷
‘‘শিক্ষিত মুসলিম তরুণদের মাঝে সামাজিক কাজে অংশ নেয়ার এই বিপুল আগ্রহ ধার্মিকতার ইতিবাচক প্রভাব বলে মনে করছি আমরা,'' ইনস্টিটিউট ও গবেষণা দলের প্রধান ইয়র্গ ব্যাখ্যা করেন৷ ‘‘এতে করে সার্বিকভাবে সমাজের উন্নয়নে তাদের অংশগ্রহণ বাড়বে,'' যোগ করেন তিনি৷
ইয়র্গ বলেন, তিনটি কারণে তারা সামাজিক কাজে অংশ নিচ্ছেন বা যোগ দিতে চান৷ এক, কিছু একটা করতে চান (৮৮ ভাগ), দুই, ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে (৮১ ভাগ) এবং তিন, ছোট করে হলেও সমাজে অবদান রাখা (৭৯ ভাগ)৷

গবেষণার মূল্যায়ণে আরো বলা হয়, যারা মসজিদ কমিউনিটির অংশ তাদেরই শুধু ইসলামের সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে মনে করা উচিত নয়৷ দেখা গেছে, জার্মানিতে ২১ বছর বয়স পর্যন্ত তরুণরা বড়দের চেয়ে মসজিদ কমিউনিটির সঙ্গে সংযোগ বেশি রাখেন৷ তার মানে এই তরুণদের সামাজিক সক্রিয়তা সবচেয়ে বেশি৷

গবেষকরা দেখেছেন, সামাজিক কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়াদের ৭০ ভাগ নারী৷ তার মানে ইসলামী সমাজে পুরুষতান্ত্রিকতার প্রভাব বেশি, জার্মানিতে প্রচলিত এমন ধারণার সঙ্গে বিষয়টি সাংঘর্ষিক বলে মনে করছেন গবেষক দল৷ তারা মনে করছেন, সামাজিক নানা কাজে নারীদের সম্পৃক্ততাকে কাজে লাগানো যেতে পারে৷ গবেষণাটিতে সাইনাস ইনস্টিটিউট বার্লিন ও রবার্ট বশ ফাউন্ডেশন সহায়তা করেছে৷ ডয়চে ভেলে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জার্মানি


আরও
আরও পড়ুন