Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

উত্তমের ভুলে ব্রাদার্সের ড্র

প্রকাশের সময় : ৩১ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

রুমু, চট্টগ্রাম ব্যুরো : বিপিএলে তাদের প্রথম ম্যাচে ফেনী সকার ক্লাবের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছিল ঢাকা ব্রাদার্স। সেই ম্যাচে গোলকিপার উত্তমের ভুলের খেসারত দিতে হয় তাদের। গতকালও এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত টিম বিজেএমসির সঙ্গে ব্রাদার্সের ম্যাচটিতে একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করেছেন উত্তম। গতকালের ম্যাচটিতেও বিজেএমসির কাছে যে গোলটি হজম করে ব্রাদার্স, সেটিও উত্তমের ভুলের কারণেই হয়েছে। ব্রাদার্সের সেরা একাদশে এই গোলকিপার বারবার দলকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিয়ে চাপে ফেলে দিচ্ছে। অথচ একজন গোলকিপার খেলায় গোলবার আগলে রাখার কথা, সেখানে তার ভুলের খেসারত দিতে হচ্ছে বারবার। তবে গতকাল ভাগ্যের জোরে শেষ পর্যন্ত টিম বিজেএমসির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন লিমিটেড।
টিম বিজেএমসি ম্যাচের ১০ মিনিটেই আক্রমণে যায়। ডিফেন্ডার সাইফুল ডি বক্সে পাস দেন মিডফিল্ডার মুকুলকে। গোলমুখে শট নেন তিনি। গোলকিপার উত্তম প্রতিহত করেন। পরের মিনিটে বিজেএমসির ফরোয়ার্ড জিকো ডি-বক্সে বল পেয়ে যে শট নেন তা ব্রাদার্সের সাইডবার ঘেঁষে বাইরে চলে যায়। মিনিট পাঁচেক পর ব্রাদার্সের ডিফেন্ডার মিঠু ব্যাকপাস দেন গোলকিপার উত্তমকে। কিন্তু উত্তম পা দিয়ে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে ঠিকমতো পারেননি। বলের কাছেই ছিলেন বিজেএমসির সুযোগ সন্ধানী মিডফিল্ডার মুকুল। কোনো ভুল না করে বল ব্রাদার্সের জালে পাঠিয়ে দেন তিনি ১-০। গোল পরিশোধের চমৎকার সুযোগ পেয়েছিল ব্রাদার্স ২৯ মিনিটে। ডানপ্রান্তে ডি বক্সের কোনা থেকে গোলমুখে জোরালো শট নেন ব্রাদার্সের নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড কিংসলে। সেটি ক্রসবারের কোনায় লেগে ফিরে আসে। মধ্য বিরতির পর গোল পরিশোধের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে ব্রাদার্স ইউনিয়ন। ৫৬ মিনিটে বামপ্রান্ত দিয়ে আক্রমণে গিয়ে ব্রাদার্সের বিদেশি মিডফিল্ডার ওয়ালসন ডি-বক্সে ফরোয়ার্ড রাব্বিকে পাস দেন। কিন্তু রাব্বি ভালো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি।
৮০ মিনিটে আরো একটি ভালো সুযোগ পেয়েছিলেন ব্রাদার্সের ফরোয়ার্ড রাব্বি। এবার ডানপ্রান্ত দিয়ে এগিয়ে গিয়ে গোলমুখে দারুণ শট নেন তিনি। গোলকিপার টিম বিজেএমসির গোলকিপার-অধিনায়ক হিমেল ফিস্ট করে দলকে বিপদমুক্ত করেন। মিনিট সাতেক পর ব্রাদার্সের আরো একটি আক্রমণ নস্যাৎ হয়। ডানপ্রান্ত থেকে চমৎকার মাইনাস করেন বদলি ফরোয়ার্ড রনি। গোলমুখে পা লাগাতে ব্যর্থ হন মিডফিল্ডার ওয়ালসন। তবে শেষ বাঁশি বাজার মিনিট খানেক আগে কাংখিত গোল পেয়ে যায় ব্রাদার্স। বদলি ডিফেন্ডার মনির ডানপ্রান্ত থেকে ডি-বক্সে লব করেন। চমৎকার হেডে ফরোয়ার্ড কিংসলে বল বিজেএমসির জালে পাঠিয়ে দেন ১-১। দ্বিতীয়ার্ধের পুরোটা সময় ব্রাদার্সের আক্রমণ ঠেকাতেই ব্যস্ত ছিল টিম বিজেএমসি। এ কারণে তারা পাল্টা আক্রমণে যেতে পারেনি। দু’একটি বিচ্ছিন্ন আক্রমণ করলেও সেখান থেকে গোল পাওয়ার মতো অবস্থা সৃষ্টি করতে পারেনি তারা। ফলে ম্যাচের ১৬ মিনিটেই ব্রাদার্সের জালে বল পাঠিয়েও শেষ মূহুর্তে গোল হজম করে ১-১ গোলের ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে টিম বিজেএমসিকে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন