Inqilab Logo

ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

মাদারীপুরে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ

মাদারীপুর জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১২ জুলাই, ২০২০, ১২:০৫ এএম

মাদারীপুরে এক কলেজ ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করার অভিযোগে মো. বেলাল হোসেন মাদবর (২৬) নামের এক লম্পটকে আটক করেছেন র‌্যাব-৮। আটক ওই লম্পট শরীয়তপুর জেলার পালং থানার কাশাভোগ গ্রামের মৃত সেকেন্দার আলী মাদবরের ছেলে। আসামিকে মাদারীপুর সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় নির্যাতিতা বাদী হয়ে মাদারীপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। 

গত শুক্রবার রাতে র‌্যাব-৮’র এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, মাদারীপুর ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে র‌্যাব সদস্যরা বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার কাজীকান্দি গ্রামে অভিযান চালিয়ে মো. বেলাল হোসেন মাদবরকে আটক করে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, নির্যাতিতা একটি সরকারি কলেজের ছাত্রী এবং জাজিরা মডার্ন ক্লিনিকে রিসিপসনিস্ট পদে চাকরি করে। সে শরীয়তপুর কলেজে যাওয়ার পথে মো. বেলাল হোসেন মাদবরের সাথে পরিচয় হয়। তাকে সেনাবাহিনীতে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সম্পর্ক গড়ে তোলে। এই সম্পর্কের জের ধরে গত ২১ জুন দুপুরে ওই কলেজ ছাত্রীর সাথে চাকরির বিষয়ে আলাপ করার জন্য মাদারীপুর শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ডের মোটেল মতি (আবাসিক) ১২৫ নম্বর কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে ও গোপনে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অশ্লীল ছবি ও নগ্ন ভিডিও ধারণ করে। এ সময় ৩-৪ ঘণ্টা মেয়েটিকে আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। ধর্ষণের বিষয়ে কাউকে কিছু বললে অথবা পুলিশের কাছে অভিযোগ করলে এ নগ্ন ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেবে এবং তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়। এছাড়াও কলেজে যাওয়া-আসার পথে অভিযুক্ত বেলাল হোসেন প্রায় ওইসব অশ্লীল ছবি ও নগ্ন ভিডিও দেখিয়ে কুপ্রস্তাব দেয় এবং তার কাছে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। মেয়েটি রাজি না হওয়ায় একপর্যায়ে আটক যুবক নগ্ন ভিডিওটি তার কয়েক বন্ধুদের সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। প্রতিকার পাওয়ার জন্য গত বুধবার র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়ে মো. বেলাল হোসেন মাদবরকে আটক করা হয়।
এ ঘটনায় মাদারীপুর সদর মডেল থানায় শুক্রবার দুপুরে ভিকটিম বাদী হয়ে আটক ধর্ষক যুবকসহ ৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর ধর্ষক বেলালকে সদর মডেল থানা পুলিশ মাদারীপুর কোর্টের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ

২৯ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন