Inqilab Logo

ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

রিভিউতে আম্পায়ার্স কলের ‘রিভিউ’ চান শচীন-লারা

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ জুলাই, ২০২০, ১২:৩১ এএম

বলের কতখানি অংশ স্টাম্পে লেগেছে, কতখানি লাগেনি। রিভিউ নেওয়ার পর তা হয়ে পড়ে গুরুত্বপ‚র্ণ। এই হিসেবের ফেরে অনেক সময়ই রিভিউ নেওয়ার পরও মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত বহাল থেকে যায়। গতপরশু রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারের ১০০এমবি অ্যাপে রিভিউ সিস্টেম নিয়ে আলাপ করেছেন কিংবদন্তি দুই ব্যাটসম্যান ব্রায়ান লারা ও শচীন টেন্ডুলকার। শচীন মনে করেন, রিভিউয়ের ক্ষেত্রে পুরোপুরি প্রযুক্তির উপরই নির্ভর করা উচিত, তার সঙ্গে একমত লারাও।

বর্তমানে চালু নিয়মে রিভিউয়ের ক্ষেত্রে ‘আম্পায়ার্স’ কল রাখে বড় ভ‚মিকা। ধরা যাক, কোন এলবিডবিøওর আবেদনে যদি আম্পায়ার নট আউট দেন। সেই সিদ্ধান্ত যখন চ্যালেঞ্জ করে ফিল্ডিং দল। তখন বলের বৈধতা, আউটসাইড লেগ পিচড না হলে এবং ব্যাটে না লাগলে পরে দেখা হয় বল স্টাম্পে কতটুকু লেগেছে। যদি ৫০ শতাংশের কম স্টাম্পে লাগে তাহলে মাঠের আম্পায়ারের দেওয়া ‘নট আউট’ সিদ্ধান্তই বহাল থাকে। আবার মাঠের আম্পায়ার যদি ওই সিদ্ধান্তই যদি আবার ‘আউট’ দিতেন তাহলে ব্যাটিং দলও চ্যালেঞ্জ করেও বিফল হতো। অর্থাৎ মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে কেবলই, বল যদি ৫০ শতাংশের বেশি স্টাম্পে আঘাত করে।

শচীন মনে করেন এই নিয়ম বদলানো উচিত। রিভিউতে গেলে সবকিছুই বিচার করা উচিত প্রযুক্তি দিয়ে, ‘রিভিউতে আইসিসি যে নিয়ম চালিয়ে আসছে, এর সঙ্গে আমি একমত না। কেউ যখন রিভিউ নেয় বুঝতে হবে মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে সে অখুশি। এই কারণেই তো লোকে রিভিউ নেয়। টিভি আম্পায়ারের কাছে গেলে সব প্রযুক্তির উপর ছাড়া উচিত। টেনিসের মতো দেখা উচিত। বল লাইনে একটু স্পর্শ করলেও সেটা ভেতরে, না হলে বাইরে। মাঝামাঝি বলে কিছু নেই।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে একশো সেঞ্চুরির মালিক শচীনের মত, বল স্টাম্পে লাগলেই সেটা আউট ধরা উচিত, কত শতাংশ সেটা বিবেচ্য নয়, ‘বলের কত শতাংশ স্টাম্পে লাগল, সেটা বিষয় না। রিভিউয়ে যদি দেখা যায় বল স্টাম্পে একটু হলেও লেগেছে, আউট দেওয়া উচিত। সেক্ষেত্রে মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত যেটাই হোক না কেন, কারণ তার সিদ্ধান্ত তো চ্যালেঞ্জই হয়েছে।’ তবে প্রযুক্তি নিখুঁত ফল দিচ্ছে কিনা তা নিয়েও আছে বিতর্ক। টেন্ডুলকার মানছেন সেটা। কিন্তু মানুষও যে নিখুঁত নয়, কাজেই কোন প্রযুক্ত ব্যবহার করলে শতভাগই আস্থা রেখে করা উচিত বলে মনে করেন তিনি, ‘হ্যাঁ অনেকে বলবেন প্রযুক্তি তো শতভাগ ঠিক না। কিন্তু মানুষও তো শতভাগ ঠিক না। কাজেই প্রযুক্তি যদি আপনি ব্যবহার করেনই, পুরো আস্থা নিয়ে করা উচিত।’

টেন্ডুলকারের এই ব্যাখ্যা পুরো মনে ধরেছে লারার। প্রতি উত্তরে তিনি বলেন, রিভিউ সিস্টেমকে আরও পরিশীলিত করা দরকার, ‘বেশ যুক্তি আছে তোমার কথায়। কারণ দেখা যায় একই ডেলিভারির ক্ষেত্রে, আম্পায়ার আউট দিলে রিভিউর ফল একরকম, আউট না দিলে আরেকরকম। রিভিউ ক্রিকেটের অংশ হয়ে গেছে, এটি রেখে দেওয়ার পক্ষে আমি। কিন্তু এটি আরও পরিশীলিত করতে হবে, যতটুকু নিখুঁত করা যায় করতে হবে।’ পরে তাদের সমর্থন জানান ভারতীয় স্পিনার হরভজন সিংও, ‘শচিনের সঙ্গে শতভাগ একমত। বল স্টাম্পে একটু স্পর্শ করলেও আউট দেওয়া উচিত। খেলাটির ভালোর স্বার্থেই কিছু নিয়ম পরিবর্তন করা দরকার, এই নিয়ম একটি।’

এমন একটি সময় এ নিয়ে আলোচনা চলছে, যখন করোনাপরবর্তি ক্রিকেট ফিরেছে বেশ কিছু পরিবর্তিত নিয়ম নিয়ে। সাউদাম্পটনে গতকালই শেষ হওয়া ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ টেস্টেও আম্পায়াররা ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছেন কমপক্ষে ৬টি। যার প্রত্যেকটিই গেছে ক্যারিবিয়ানদের বীপক্ষে!



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শচীন-লারা
আরও পড়ুন