Inqilab Logo

ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

চট্টগ্রামে করোনার ধাক্কা কমছে

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৪ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রামে করোনা সংক্রমণের হার কমছে, বাড়ছে সুস্থ্যতা। মৃত্যুর হারও কিছুটা কমেছে। আগের মতো গণহারে নমুনা দেওয়ার প্রবণতাও কমছে। উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভিড়ও নেই। এসব দিক বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন করোনার ধাক্কা কমতে শুরু করেছে। তবে বিশেষজ্ঞরা এর সাথে কিছুটা দ্বিমত পোষণ করে বলছেন, ধাক্কা কমছে এটা বলার সময় এখনও আসেনি। বলা যায় করোনা পরিস্থিতি আপাতত স্থিতিশীল রয়েছে।
গত চব্বিশ ঘণ্টায় আরো ১০৭ জনসহ এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে ১১ হাজার ৫৯৭ জনের সংক্রমণ পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ছয় হাজার ৭৯২ জন। সুস্থতার হার ৫৮ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় কেউ মারা যাননি। এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ২১৬ জন। করোনায় মৃত্যুর হার ১.৮৬ শতাংশ। আক্রান্ত ২৭৮ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। বাসায় আইসোলেশনে আছেন আরো ৮১৯ জন। বেসরকারি হাসপাতালে করোনা রোগ্ ীআছেন ১২২ জন। আর উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন আরো ২৯১ জন।
গত ২৬ মার্চ চট্টগ্রামে করোনা টেস্ট শুরু হয়। এ পর্যন্ত ৪৪ হাজার ৭৭৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। গড়ে সংক্রমণের হার ২৫ শতাংশ। শুরুতে একটি ল্যাবে পরীক্ষা হলেও এখন ল্যাব সংখ্যা ৭টি। তবে গত বেশ কয়েকদিন ধরে টেস্টের জন্য নমুনা দেওয়ার হার কমে গেছে। নমুনার অভাবে একটি ল্যাব গত দুইদিন বন্ধ আছে। গেল সপ্তাহে দিনে এক হাজারের উপরে নমুনা টেস্ট হলেও এখন তা ৫শ’র মধ্যে নেমে এসেছে।
চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, টেস্টের সংখ্যার চেয়ে সংক্রমণের হার গুরুত্বপূর্ণ। আগে গড়ে যেখানে ২৬ ভাগ নমুনায় সংক্রমণ পাওয়া যেত গত কয়েক দিনে তা ২০ এর নীচে নেমে এসেছে। উপসর্গ নিয়ে রোগীর সংখ্যাও কমছে। এসব সূচক বিবেচনা করে বলা যায় চট্টগ্রামে করোনার ধাক্কা কমে আসছে। টেস্ট কমে যাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আগে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছিলো, একজনের কোন উপসর্গ দেখা দিলে পুরো পরিবার টেস্টের জন্য নমুনা দিত। এখন সে প্রবণতা কমছে। আবার দ্বিতীয় বারের মতো নমুনা টেস্টও আমরা কমিয়ে দিয়েছি। তবে ফি নির্ধারণ করার কারণেও টেস্টের হার কমতে পারে।
ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি ল্যাবের প্রধান প্রফেসর ডা. শাকিল আহমদ খান বলেন, বিশাল জনগোষ্টিকে টেস্টের বাইরে রেখে সংক্রমণ কমছে সেটা বলা যাবে না। নমুনা টেস্টের সংখ্যা কমে গেলেও সংক্রমণ শনাক্তের হার তেমন একটা কমেনি। ফলে সংক্রমণ এখনও আগের মতো আছে। উপসর্গ কম হওয়ায় টেস্ট কমিয়ে দেওয়া উদ্বেগজনক উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতে সংক্রমণ কমবে না বরং রোগটি দীর্ঘদিন থেকে যাবে। করোনার মতো একটি ভয়াবহ সংক্রামক ব্যাধিকে সাধারণ জ¦র, সর্দির মতো মনে করে নিজে নিজে চিকিৎসা নেওয়ার প্রবণতা মারাত্মক সংক্রমণের কারণ হতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চট্টগ্রাম


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ