Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ক্রীড়া সংগঠক আনোয়ার

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জুলাই, ২০২০, ৭:৫৬ পিএম

সন্ত্রাসীদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বাংলাদেশ উশু ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক, সাউথ এশিয়ান উশু’র বিচারক ও বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক আনোয়ার হোসেন মৃধা। সন্ত্রাসীরা তাকে অপহরণ করার পর অমানুষিক নির্যাতন করেছে। ফলে বর্তমানে তিনি বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছেন। তার ডান পায়ের গোড়ালী ভেঙ্গে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। অনলাইনে চলমান জাতীয় উশু জাজেস প্রশিক্ষন কোর্সের একজন বিচারক ছিলেন তিনি। এছাড়া নতুন জুরাইন কেএম মাইন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকও আনোয়ার। কিন্তু সন্ত্রাসীদের নির্যাতনের শিকার হয়ে আজ তিনি নিজ বাড়ি ছেড়ে নিরাপত্তাহীনতায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। জুরাইনস্থ নিজের বাড়িতে না থেকে আনোয়ারকে এখন আশ্রয় নিতে হয়েছে বন্ধুর বাড়িতে। এ ব্যাপারে ১২ জুলাই কদমতলী থানায় একটি মামলা (নং-২৮, তাং-১২/০৭/২০ ইং, ধারা-১৪৩/৩৪২/৩২৩/৩২৫/৩৪) করেছেন তিনি।

মামলার এজাহারে জানা যায়, ৯ জুলাই রাতে পূর্ব শত্রুতার জেরে জুরাইন আলমবাগ পাকা মসজিদ রোড থেকে স্থানীয় সন্ত্রাসী মো. সজল, সাহাদাত, ল্যাংরা বাবুসহ কয়েকজন মিলে জোর করে আনোয়ার হোসেনকে অপহরণ করে গাড়ীতে তুলে আরসিন গেট মোতালেব শাহ মাজার এলাকায় একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে আনোয়ারের চোখ ও হাত পা বেঁধে অস্ত্রের মুখে এসএস পাইপ দিয়ে সারারাত নির্যাতন করে তা ভিডিওতে ধারণ করে তার মুখ থেকে বিভিন্ন ধরনের শিকারউক্তি মুলক কথা বলানো হয়। এ সময় সন্ত্রাসী সজল পাঁচ লাখ টাকা দাবী করে নইলে বাদীর দোকান লিখে দিতে বলে। অন্যদিকে আরেক অপহরণকারী শাহাদাত সাত লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে নইলে মসজিদ রোডের মদিনা টাওয়ারের ফ্ল্যাট লিখে দিতে বলে। নির্যাতন শেষে আনোয়ারকে একটি কক্ষে রেখে তালা বন্ধ করে চলে যায় সন্ত্রাসীরা। পরদিন ভোর ছয়টায় সুযোগ বুঝে জানালা ভেঙ্গে লাফ দিয়ে নিচে নেমে আসেন আনোয়ার এবং এক রিকশাওয়ালার কাছ থেকে মোবাইল ফোন নিয়ে বাংলাদেশ উশু ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক দুলাল হোসেনকে কল করেন। পরে দুলাল হোসেন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আমি নিরাপত্তার জন্য বন্ধুর বাসায় আত্মগোপন করি। আমার পায়ের অবস্থা খুব খারাপ। হাটতে পারছি না। প্রশাসনের কাছে আমি এর সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি।’ উশু ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসেন বলেন, ‘আনোয়ার হোসেন ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক এবং সাউথ এশিয়ান উশু বিচারক। এছাড়া তিনি নতুন জুরাইন কেএম মাইন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক। বর্তমানে তিনি অনলাইনে জাতীয় উশু জাজেস প্রশিক্ষন কোর্সের একজন বিচারক। এমন একজন ব্যক্তিকে অপহরণ করে নির্যাতন করা আমাদের জন্য লজ্জার। এ ব্যাপারে ঢাকার কদমতলী থানায় মামলা করা হয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে আনোয়ারের উপর নির্যাতনের বিচার দাবী করছি আমরা।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন