Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবের মৌখিক নির্দেশে চুক্তি করেছি

লিখিত ব্যাখ্যায় স্বাস্থ্য মহাপরিচালক

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০২০, ১২:০৫ এএম

রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ নিজ বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে। গতকাল বুধবার তিনি সচিবালয়ে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নানের কাছে লিখিত ব্যাখ্যা জমা দেন। সেখানে তিনি বলেছেন, রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছিল সাবেক স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলামের মৌখিক নির্দেশে। তবে সাবেক সচিব বুধবার গণমাধ্যমে এ বিষয়টি অস্বীকার করেন।

বর্তমান স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান সাংবাদিকদের জানান, মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিখিত জবাব দিয়েছেন, আমরা সেটি পেয়েছি। সেই জবাবের সঙ্গে তিনি অনেক কাগজ সংযুক্তি দিয়েছেন। সেগুলো পর্যালোচনা করা হবে। আমরা দেখব, তার কাছে যা জানতে চেয়েছি সেগুলো আছে কিনা। ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হলে আমরা লিখিতভাবে জানাব এবং সন্তুষ্ট না হলে পরবর্তীকালে নিয়মানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাস্থ্য সচিব বলেন, মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তির লিখিত আদেশ এ ব্যাখ্যার সঙ্গে সংযুক্ত রয়েছে কিনা। তিনি জানান, সেই চুক্তি করা হয়েছিল সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলামের মৌখিক নির্দেশে। যিনি বর্তমানে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আবদুল মান্নান আরও উল্লেখ করেন, সব বিস্তারিত জানার জন্যই আমরা তার কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছিলাম।

এর আগে, রিজেন্ট হাসপাতালের প্রতারণার খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে নির্দেশেই অধিদফতর রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তি করে। যা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়।

এর প্রেক্ষিতে গত ১২ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের কাছে ব্যাখ্যা দাবি করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব শারমিন আকতার জাহান স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ’ বলতে স্বাস্থ্য মহাপরিচালক কী বোঝাতে চেয়েছেন, সে বিষয়ে তার কাছ থেকে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, যে কোনো হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তির আগে নিয়মানুযায়ী তা সরেজমিন পরিদর্শন, হাসপাতাল পরিচালনার অনুমতি পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি, জনবল ও ল্যাব ফ্যাসিলিটি বিশ্লেষণ করে বিবেচিত হলেই চুক্তি করার সুযোগ রয়েছে। ##



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৬ জুলাই, ২০২০, ১১:০১ পিএম says : 0
    এখানে মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ ব্যাখায় বলেছেন, তিনি সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলামের মৌখিক নির্দেশে রিজেন্টের সাথে চুক্তি করেছিলেন। আমি ব্যাক্তিগতভাবে মহাপরিচালকের এই জবাব বিশ্বাস করি কারন আমি বহু দেখেছি সচিবেরা অন্যায় করে আর দোষ চেপেযায় মন্ত্রীদের ঘড়ে। এখানে মহাপরিচালক ভালভাবেই মন্ত্রীকে দোষারুপ করতে পারতেন কারন চুক্তির সময় মন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। আর আমার মনে হয় মহাপরিচালকে সুযোগও করেদেয়া হয়েছিল এটা বলার জন্যে। বাংলাদেশে সকল অসৎ কাজ সম্পাদিত হয় সরকারই আমলাদের মাধ্যমে আর এটা প্রচলন শুরু করেগেছেন জিয়া মিয়া এবং সেটাকে আরো মজবুত করেছেন এরশাদ চাচা পরে জিয়া মিয়ার সুযোগ্য স্ত্রী খালেদা বিবি। এখন এঁর কর্মফল ভোগ করছেন মন্ত্রীরা। তবে বর্তমানে আরো একটা বিষয় দেখার আছে সেটা হচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনাও সচিবদের উপর ভিত্তি করেই সিদ্ধান্ত নেন কাজেই মহাপরিচালকের এই কৈফিয়ত ১০০% সত্য হলেও কতটা কাজে আসবে সেটাও প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমি মহাপরিচালকে ধন্যবাদ দিব তাঁর সাহসিকতার জন্যে। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে সত্যের পথে অটল থাকার ক্ষমতা প্রদান করুন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাস্থ্যসেবা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ