Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৬ আগস্ট ২০২০, ০১ ভাদ্র ১৪২৭, ২৫ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

২০৪৮ সালের পর থেকে কমবে ভারতের জনসংখ্যা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০২০, ৬:৫৬ পিএম

বিজ্ঞানীরা জানিয়েচেন, ভারতের জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ২০৪৮ সালে শীর্ষে উঠবে। সে সময় জনসংখ্যা হবে ১৬০ কোটি। এরপর থেকেই কমতে শুরু করবে। ২১০০ সালের মধ্যে ৩২ শতাংশ কমে জনসংখ্যা ১০৬ কোটিতে যেয়ে দাঁড়াবে। বুধবার অনলাইন ল্যানসেট জার্নালের সমীক্ষায় এই তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

সমীক্ষা অনুসারে, ২১০০ সালে ভারত হবে বিশ্বের অন্যতম জনবহুল দেশ। এসময় দেশটিতে কার্যক্ষম জনসংখ্যা কমে যেতে পারে। ভারতে ২০-৬৪ বছর বয়সের যারা কাজ করতে পারেন এমন মানুষের সংখ্যা ২০১৭ সালে ছিল প্রায় ৭৬২ মিলিয়ন। যা ২১০০ সালে কমে ৫৭৮ মিলিয়ন হওয়ার আশঙ্কা করা হয়েছে ওই সমীক্ষাতে।

জিডিপির নিরিখে ২১০০ সালে বিশ্বে ভারত সপ্তম অবস্থান থেকে তৃতীয় স্থানে উঠে আসবে বলে সমীক্ষায় পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। এছাড়াও বলা হয়েছে, জন্ম বৃদ্ধির হার ২০১৯ সালেই ২.১ ভাগ কমেছে। ২০৪০ সাল পর্যন্ত এই হারেই তা কমতে থাকবে। মোট জন্ম বৃদ্ধির হার ২১০০ সালে কমে হতে পারে ১.২৯। তবুও দেশটিতে জনসংখ্যা বাড়বে। সমীক্ষায় ২১০০ সালে ভারত দ্বিতীয় বৃহত্তম ইমিগ্রেশন দেশ হবে বলে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানানো হয়, ভারত ত্যাগের চেয়ে দেশটিতে অভিবাসী মানুষের হার বেশি।

সমীক্ষায় আরও বলা হয়, গোটা বিশ্বের জনসংখ্যা ২০৬৪ সালের মধ্যে ৯.৭ বিলিয়ন বা ৯৭০ কোটি স্পর্শ করতে পারে বলে। শতাব্দীর শেষ দিকে তা অবশ্য কমে হবে ৮.৮ বিলিয়ন হতে পারে। জাপান, ইতালি, স্পেনসহ ২৩ দেশের জনসংখ্যা ৫০ শতাংশের বেশি কমে যেতে পারে। বিশ্বে জন্মহার হার ২০১৭ সালে ছিল ২.৩৭। ২১০০ সালে তা কমে ১.৬৬ হতে পারে বলে অনুমান করা হয় ওই সমীক্ষায়। আর ন্যূনতম নিম্ন হার হবে ২.১।

আইএইচএমই ডিরেক্টর ড. ক্রিস্টোফার মুরের নেতৃত্বে এই সমীক্ষা চালানো হয়। তিনি বলেন, ‘ভারতে জনসংখ্যার এই বিস্ফোরণ অর্থনৈতিক বৃদ্ধি, কাজের ক্ষেত্র কমে যাওয়া, স্বাস্থ্য ও সামাজিক ক্ষেত্রে সমস্যা বৃদ্ধির ইঙ্গিত করছে।’ সূত্র: টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৫ আগস্ট, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন