Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭, ১২ সফর ১৪৪২ হিজরী

‘সেঞ্চুরি’ হলো না লিভারপুলের

সিটির জয়ে গার্দিওলার রেকর্ড, ৬ রোমাঞ্চকর ম্যাচে জুভেন্টাসের হোঁচট

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০২০, ১২:০৪ এএম

চ্যাম্পিয়নস লিগের নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার আনন্দ আরও মধুর হয়েছে ম্যানচেস্টার সিটির ঘরের মাঠের জয়ে। একাদশে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন এলেও বোর্নমাউথকে হারাতে কষ্ট হয়নি সিটিজেনদের, পেয়েছে ২-১ গোলের জয়। ইতিহাদ স্টেডিয়ামে লড়াইটি ছিল আবার লিগে পেপ গার্দিওলার ১৫০তম ম্যাচ। মাইলফলকের ম্যাচে জয়ের নতুন রেকর্ড গড়েছেন স্প্যানিশ কোচ। লিগের ইতিহাসে ১৫০ ম্যাচে ডাগআউটে দাঁড়িয়েছেন, এমন কোচদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জয় গার্দিওলার। বোর্নমাউথের বিপক্ষে জিতে ইংলিশ শীর্ষ ফুটবলে তিনি ম্যানসিটিতে পেয়েছেন ১১১তম জয়। অন্য যেকোনও কোচের চেয়ে ৬ জয় বেশি। কিংবদন্তি দুই কোচ স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন ও আর্সেন ওয়েঙ্গারও এই জায়গায় পিছিয়ে।

প্রিমিয়ার লিগে ৩০ বছর পর আবারও ইংলিশ ফুটবলের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পরেছে লিভারপুল। এই আনন্দের সঙ্গে আরেকটি অর্জনের হাতছানি ছিল অলরেডদের সামনে। ১০০ পয়েন্টের মাইলফলক ছোঁয়ার। কিন্তু সেটি আর হচ্ছে না! আর্সেনালের কাছে ২-১ গোলের হারে পয়েন্টের ‘সেঞ্চুরি’র স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দলের। চলতি মৌসুমে লিগে এটি তাদের তৃতীয় হার। এমিরেটস স্টেডিয়ামের এই হারেই শেষ হয়ে গেছে তাদের ১০০ পয়েন্ট অর্জনের সুযোগ। ৩৬ ম্যাচ শেষে নতুন চ্যাম্পিয়নদের পয়েন্ট ৯৩, তাই বাকি থাকা দুই ম্যাচ জিতলেও ৯৯ পয়েন্টের বেশি হবে না।

যেভাবে এগোচ্ছিল লিভারপুল, তাতে তিন অঙ্কের জাদুকরি সংখ্যার পথটা সহজই ছিল। কিন্তু ট্রফি নিশ্চিত হওয়ার পর ম্যানচেস্টার সিটি ও গতরাতে আর্সেনালের কাছে হেরে শেষ হয়ে গেল স্বপ্নটা। তাই প্রিমিয়ার লিগের প্রথম শিরোপা জিতলেও ম্যানসিটির রেকর্ডে ভাগ বসানো হলো না ক্লপের দলের। ২০১৭-১৮ মৌসুমে পেপ গার্দিওয়ার ম্যানসিটি গড়েছিল ১০০ পয়েন্টের রেকর্ড। যদিও পয়েন্টের মাইলফলক ছোঁয়ার সুযোগ নষ্টে কোনও দুঃখ নেই ক্লপের, ‘না, একেবারেই নেই। আমি জানতামও না এটা আসবে নাকি না। আমরা আমাদের সাধ্য অনুযায়ী পয়েন্ট চাই, দেখা যাক মৌসুমের শেষে কী দাঁড়ায়।’

বর্তমানে টটেনহ্যামের দায়িত্ব পালন করা পর্তুগিজ কোচ হোসে মরিনহো ১৫০ ম্যাচে পেয়েছিলেন ১০৫তম জয়। পরের জায়গাগুলোয় রয়েছেন যথাক্রমে লিভারপুলের ইয়ুর্গেন ক্লপ (৯২), ফার্গুসন (৯০) ও লিভারপুল, ব্ল্যাকার্ন রোভার্স ও নিউক্যাসলের সাবেক কোচ কেনি ডালগ্লিশ (৮৫)।
ম্যাচে ২-১ স্কোরলাইন হলেও পুরো ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল স্বাগতিকদের হাতেই। ম্যাচের শুরুতে দাভিদ সিলভার গোলে এগিয়ে যাওয়া ম্যান সিটি ব্যবধান দ্বিগুণ করে ৩৯ মিনিটে, যখন জাল খুঁজে পান গাব্রিয়েল জেসুস। ৮৮ মিনিটে ডেভিড ব্রুকসের গোলটা কেবল ব্যবধানই কমিয়েছে বোর্নমাউথের।

একই রাতে ইতালিয়ান সিরি’আতে ম্যাচের শুরুতেই জুভেন্টাসের দাপট। ১২ মিনিটেই ২-০ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে যায় ইতালিয়ান জায়ান্টরা। মনে হচ্ছিল সসুলোর জালে গোলবন্যা বইয়ে দেবেন গঞ্জালো হিগুয়েন-আলেক্স সান্দ্রোরা। কিন্তু দৃশ্যপট পাল্টে যেতে সময় লাগেনি। দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে জুভেন্টাসকে রুখে দিয়েছে সিরি’আর পয়েন্ট টেবিলের ৮ নম্বরে থাকা সসুলো। জুভেন্টাস ২ গোল দেওয়ার পর ম্যাচে আরও ৪টি গোল হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি গোল দিয়েছে সসুলো। ৬ গোলের ম্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে। দারুণ শুরুর পরও পয়েন্ট ভাগাভাগি করে কিছুটা হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় রোনালদোদের। সিরি’আতে টানা তিন ম্যাচে জয়হীন থাকলো জুভেন্টাস। যদিও এই ড্রয়ে খুব একটা ক্ষতি হয়নি শিরোপার পথে এগিয়ে যাওয়া জুভেন্টাসের। ৩৩ ম্যাচে ৭৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে তারা। দুই নম্বরে থাকা আতালান্তার চেয়ে সাত পয়েন্টে এগিয়ে আছে জুভেন্টাস। সমান ৩৩ ম্যাচে আতালান্তার পয়েন্ট ৭০।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: লিভারপুল


আরও
আরও পড়ুন