Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ঘরের দর্শকের সামনে নেইমারদের গোল উৎসব

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০২০, ১২:০০ এএম

বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের মধ্যে বাতিল হয়েছে কেবল ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান। এপ্রিলের শেষ দিকে পিএসজিকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়। তার পর থেকেই এক রকম মাঠের বাইরে দলটির ফুটবলাররা। মৌসুমে তাদের সামনে এখনও রয়েছে ফরাসি কাপ, লিগ কাপ ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের খেলা। দীর্ঘ সময় মাঠের বাইরে থেকে যাতে খেলোয়াড়েরা ঝিমিয়ে না পড়ে সে লক্ষ্যেই নিজেদের প্রস্তুত করে তুলতে মাঠে নেমেছে পিএসজি। খেলছে প্রীতি ম্যাচ।
আগের ম্যাচে ফরাসি লিগ টুর দল লে হাভ্রেকে ৯-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল দেশটির চ্যাম্পিয়নরা। এবার তারা ৭-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ওয়াসলান্দ-বেভেরেনকে। বেলজিয়ামের দ্বিতীয় বিভাগের দলটির বিপক্ষে জালের ঠিকানা খুঁজে নেন দলের তিন তারকা নেইমার, কিলিয়ান এমবাপে ও মাউরো ইকার্দি।
গতপরশুও ওয়াসলান্দ-বেভেরেনের বিপক্ষে ম্যাচটি দিয়ে চার মাসেরও বেশি সময় পর প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে খেলতে নামে পিএসজি। আগের ম্যাচের মতো এদিনও দর্শকদের সামনে পার্ক দে প্রিন্সেসে ২১তম মিনিটে আলেক্সান্দার ভুকোতিচের আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় তারা। সাত মিনিট পর স্পট-কিক থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার। বিরতির ঠিক আগে ফের পেনাল্টি পায় পিএসজি। এবার গোলপোস্টে সরাসরি শট না নিয়ে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমার বল বাড়িয়ে দেন সামনে। ডি-বক্সের বাইরে থেকে দৌড়ে এসে জাল খুঁজে নেন আর্জেন্টাইন ইকার্দি।
দ্বিতীয়ার্ধে আরও চারবার গোল উৎসব করে স্বাগতিকরা। ৬০তম মিনিটে অ্যাঙ্গেল দি মারিয়ার ক্রসে নেইমার পা ছোঁয়ানর পর বল পেয়ে যান ফরাসি স্ট্রাইকার এমবাপে। আলতো টোকায় ফাঁকা জালে বল পাঠাতে কোনো বেগ পেতে হয়নি তাকে। ৬৫তম মিনিটে ম্যাচের স্কোরলাইন ৫-০ করেন এরিক ম্যাক্সিম চুপো-মোটিং। পরের মিনিটে ফের লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। আর যোগ করা সময়ে পিএসজিকে সপ্তম গোল উপহার দেন লোইক এমবে সোহ।
তবে এমন প্রস্তুতিমূলক ম্যাচে প্রতিপক্ষ ভাসলন্ড বেভারেনের খেলোয়াড়দের আগ্রাসী ফুটবলে চোটে পড়ার শঙ্কা জেগেছিল ফরোয়ার্ড নেইমারের মনে। বেলজিয়ান দলটির বিপক্ষে ম্যাচ শেষে বিন স্পোর্টসকে দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় প্রতিপক্ষের শক্তিনির্ভর খেলা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন, ‘হ্যাঁ, আমরা একটু ভয়ে ছিলাম। আমরা প্রীতি ম্যাচ খেললাম, তাই এরকম ঘটনা ঠিক নয়। নিজেদের প্রস্তুত করতে খেলছি আমরা। তবে সতর্কও থাকতে হবে। অবশ্য আমরাও কিছুটা পাল্টা জবাব দিয়েছি, তাই কোনোও সমস্যা নেই।’
গত ১১ মার্চের পর প্রথম দর্শক নিয়ে ঘরের মাঠে ফিরতে পেরে খুশি নেইমার, ‘ফিরতে পেরে এবং ঘরের মাঠে কিছু দর্শকের উপস্থিতিতে খেলতে পেরে আমি খুশি। আমরা নিজেদের সেরা পর্যায়ে পৌঁছাতে একটু একটু প্রস্তুত হচ্ছি। এরপর আমরা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলব। এখানে অন্য বিষয়গুলো খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ নয়।’
আগামী শুক্রবার ফরাসি কাপের ফাইনালে পিএসজির প্রতিপক্ষ সাঁত এতিয়েন। আর ৩১ জুলাই ফরাসি লিগ কাপের ফাইনালে লিওঁর বিপক্ষে খেলবে টমাস টুখেলের দল। আগামী ১২ আগস্ট তারা খেলবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে; শেষ আটে ফরাসি চ্যাম্পিয়নদের প্রতিপক্ষ ইতালিয়ান সিরি ‘আ’র দল আতালান্তা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গোল-উৎসব
আরও পড়ুন