Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

ফেনীতে চাঞ্চল্যকর সাগর হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন, আটক ৩

ফেনী জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০২০, ৯:২৫ পিএম

ফেনীর রামপুরে গত ৩০ মে সাদেক হোসেন পাটোয়ারীর মালিকিয় শাহানাজ ডেইরী ফার্মের ভিতর মোজাম্মেল হক সাগর নামের এক রাখাল নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হন। এ ঘটনায় সাগরের পরিবার কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামী করে ফেনী থানায় মামলা দায়ের করেন। নিহত সাগরের বাড়ি নেত্রকোনায়। গত ২৮ জুন জেলা গোয়েন্দা শাখাকে মামলার তদন্তভার দেয়া হয়। হতাকান্ডের ৫০ দিনের মাথায় পুলিশ রহস্য উদঘাটন করেন। এ ঘটনার সাথে জড়িত ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার গুচ্ছগ্রামের আবদুল খালেকের ছেলে মোহন প্রকাশ নয়ন(৩০) তার স্ত্রী খালেদা আক্তার বৃষ্টি(২৬) এবং তার ভাই রাজন(৩৫)। তারা বর্তমানে ফেনীর রাণীর হাট মামুন ডেকোরেটরের বাড়িতে থাকতো। এ বিষয়ে ফেনী পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী বিপিএম, পিপিএম আজ দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি জানান, পরকীয়ার কারনে ও টাকার লোভে আটককৃতরা সাগরকে কুপিয়ে হত্যা করে। তিনি জানান, আটককৃত বৃষ্টির সাথে সাগরের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। পরবর্তীতে সম্পর্কের ফাটল ধরলে সাগরের কাছে তাদের দুজনের কিছু ছবি রয়ে যায়। এগুলো উদ্ধার করতে না পেরে বৃষ্টি তার স্বামী নয়নকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানায়। নয়ন তার ভাই রাজনকে এ বিষয়ে না জানিয়ে টাকার লোভ দেখিয়ে তাদের সাথে সম্পৃক্ত করে। ঘটনার দিন ডেইরী ফার্মের ভেতরে প্রথমে সাগরকে মোবাইলে রক্ষিত ছবি ও ভিড়িও চিত্র মুছে ফেলার জন্য বলে খুনিরা। সাগর রাজি না হলে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে দা দিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে আটককৃতরা। আজ তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হবে। তদন্তে আরো তথ্য বেরিয়ে এলে পরবর্তিতে জানানো হবে।
এ বিষয়ে জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএনএম নুরুজ্জামান জানান,সাগরের মোবাইল সেটে পরকীয়া সম্পর্কের কিছু ছবি ও ভিড়িও চিত্র রয়েছে বলে তদন্তে উঠে আসে। এসব সূত্র ধরে তাদের ধরতে ডিবি পুলিশ বিভিন্ন সময়ে ফেনী,নোয়াখালী,কুমিল্লা ও চাঁদপুরে অভিযান পরিচালনা করে। চাঁদপুর থেকে রাজনকে সাগরের মোবাইল ফোনসহ আটক করা হয়। তার তথ্যের ভিত্তিতে বাকি দুইজনকে ফেনীর রানীর হাট এলাকা থেকে আটক করা হয়। তিনি আরো জানান, একসময় নয়ন ও বৃষ্টি রামপুর শাহনাজ ডেইরী ফার্মের পার্শ্ববর্তী এলাকায় ভাড়া থাকতো। তখন থেকে সাগর ও বৃষ্টির মধ্যে পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

 



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৯ জুলাই, ২০২০, ১১:১৯ পিএম says : 0
    বাংলাদেশে হত্যা কান্ড প্রচুর বেড়েছে এরমধ্যে ধর্ষণের কারনে হত্যার সংখ্যাও কম নয়। তদানীন্তন কালে পূর্ব পাকিস্তান ছিল ইসলামিক দেশ, তারপরও সেসময়ে আইনগত ভাবে প্রচুর পতিতালয় ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ হবার পর সেসব পতিতালয় মোল্লারা মানে ধর্মীয় গুরুরা ভেঙ্গে দিয়েছে ইসলামের অজুহাতে। এরফলে এখন মানুষের যৌন চাহিদা মেটানোর কোন নির্দিষ্ট সুযোগ না থাকায় সরকারি দলের অনেকেই বেআইনি ভাবে পতিতালয়ের আদলে যৌন ক্ষুদা মেটানোর কাজ করে প্রচুর টাকা উপার্জন করে ধরা পড়েছে তবে সাজা হয়নি।যার এসব উচ্চমুল্যের যায়গায় প্রচুর পয়সা দিয়ে যেতে পারছেনা তারা সহজ প্রথা বিয়ের প্রলোভন দিয়ে মেয়েদেরকে বশ করে ক্ষুদা মেটাছে। আবার অনেকে জোরপূর্বকভাবে ক্ষুদা মিটাচ্ছে এবং সেসময়ে পরিচয় ধরা পরলে মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে যাচ্ছে। এখন যদি কেহ সেইসব মোল্লাদেরকে (যারা পতিতালয় ভেঙ্গেছিল এবং উসকানি দিয়েছিল) এসব হত্যা কান্ডের জন্যে দায়ি করেন তাহলেকি ভুল হবে??? আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সাবাইকে সত্য জানা, সত্য বুঝা ও সত্য পথে চলার ক্ষমতা দিন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৯ জুলাই, ২০২০, ১১:১৯ পিএম says : 0
    বাংলাদেশে হত্যা কান্ড প্রচুর বেড়েছে এরমধ্যে ধর্ষণের কারনে হত্যার সংখ্যাও কম নয়। তদানীন্তন কালে পূর্ব পাকিস্তান ছিল ইসলামিক দেশ, তারপরও সেসময়ে আইনগত ভাবে প্রচুর পতিতালয় ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ হবার পর সেসব পতিতালয় মোল্লারা মানে ধর্মীয় গুরুরা ভেঙ্গে দিয়েছে ইসলামের অজুহাতে। এরফলে এখন মানুষের যৌন চাহিদা মেটানোর কোন নির্দিষ্ট সুযোগ না থাকায় সরকারি দলের অনেকেই বেআইনি ভাবে পতিতালয়ের আদলে যৌন ক্ষুদা মেটানোর কাজ করে প্রচুর টাকা উপার্জন করে ধরা পড়েছে তবে সাজা হয়নি।যার এসব উচ্চমুল্যের যায়গায় প্রচুর পয়সা দিয়ে যেতে পারছেনা তারা সহজ প্রথা বিয়ের প্রলোভন দিয়ে মেয়েদেরকে বশ করে ক্ষুদা মেটাছে। আবার অনেকে জোরপূর্বকভাবে ক্ষুদা মিটাচ্ছে এবং সেসময়ে পরিচয় ধরা পরলে মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে যাচ্ছে। এখন যদি কেহ সেইসব মোল্লাদেরকে (যারা পতিতালয় ভেঙ্গেছিল এবং উসকানি দিয়েছিল) এসব হত্যা কান্ডের জন্যে দায়ি করেন তাহলেকি ভুল হবে??? আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সাবাইকে সত্য জানা, সত্য বুঝা ও সত্য পথে চলার ক্ষমতা দিন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ