Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

স্বাস্থ্য অধিদফতরে দুদকের অভিযান

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০২০, ১২:০২ এএম

স্বাস্থ্য অধিদফতরে আবারও অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক)টিম। উপ-পরিচালক আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের টিম গতকাল রোববার বিকেল পৌনে ৩ টা থেকে পৌনে ৪ টা পর্যন্ত এ অভিযান চালায়।তবে এসময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের কাউকে গ্রেফতার কিংবা আটক করা হয়নি। কিছু নথিপত্র জব্দ করা হয়েছে। কমিশন সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখত জানিয়েছেন,মাস্ক-পিপিই সরবরাহ এবং রিজেন্ট কেলেংকারির ঘটনায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ শীর্ষ কর্মকর্তাদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।

এর আগে গত ১৫ জুলাই একই টিম স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে অভিযান চালিয়ে রিজেন্ট হাসপাতালের লাইসেন্স ও করোনা পরীক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের মেমোরেন্ডাম অব আন্ডারস্ট্যান্ডিংসহ (এমওইউ)সংশ্লিষ্ট নথিপত্র জব্দ করেন টিমের সদস্যরা। এ সময় অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানার সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের তথ্য-উপাত্ত নিয়ে আলোচনা করেন তারা। তবে গতকাল টিমের চাহিদা অনুসারে অনেক নথিপত্রই অধিদফতরের কর্মকর্তারা দিতে পারেননি। এ জন্য সময় প্রার্থনা করেন। প্রাথমিকভাবে নথি যাচাই-বাছাইয়ে কাগজপত্রের অসঙ্গতি পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন টিমের একজন সদস্য। রিজেন্ট হাসপাতালের লাইসেন্সের কপি পেলেও মেলেনি হাসপাতালটির নবায়ন কিংবা বিভিন্ন বিভাগের অনুমোদনের কাগজপত্র। এমনকি কোভিড-১৯ এর এমওইউ এর কাগজপত্রেও অসঙ্গতি পাওয়া যায়।

দুদক সূত্র জানায়, মোহাম্মদ সাহেদের বিরুদ্ধে মাইক্রোক্রেডিট ও এমএলএম ব্যবসার নামে গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাত,আয়কর ফাঁকি, ভুয়া নাম ও পরিচয়ে ব্যাংক ঋণ গ্রহণ করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান করছে দুদক। এ লক্ষ্যে গত ৩ জুলাই অনুসন্ধানে তিন সদস্যের টিম গঠন করা হয়। সহকারী পরিচালক মো. নেয়ামুল হাসান গাজী ও শেখ মো. গোলাম মাওলা টিমের অপর দুই সদস্য। অভিযান বিষয়ে দল নেতা আবু বকর সিদ্দিক বলেন,আমরা রিজেন্ট হাসাপাতালের বেশ কিছু তথ্য-উপাত্ত চেয়েছিলাম। বেশ কিছু পেয়েছি, এখনো কিছু তথ্য পায়নি। ডিজি আশস্ত করেছেন ২০ জুলাইয়ের মধ্যে সব তথ্য দেবেন। কাগজপত্র পেলে তা বিশ্লেষণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।
এদিকে সাহেদ করিম এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের দুর্নীতির অনুসন্ধানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ (ডিজি) ঊর্ধ্বতনদের তলব করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন দুদক সচিব দিলোয়ার বখত। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। সচিব বলেন, রিজেন্টের ঘটনায় তদন্তকারী কর্মকর্তার যদি মনে হয় অনুসন্ধানে কারও বক্তব্য নেয়া প্রয়োজন তাহলে অবশ্যই তিনি তাকে তলব করতে পারেন। চিকিৎসাসহ অন্যান্য সরঞ্জামাদি বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহের নামে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও রিজেন্টের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতসহ অবৈধভাবে সম্পদের অভিযোগে দুদক অনুসন্ধান করছে এবং এর অংশ হিসেবে ইতোমধ্যেই কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে যার যা দায়িত্ব সেই বিষয়ে অনুসন্ধান করা হবে। পরবর্তী সময়ে সে অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাস্থ্য অধিদফত


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ